logo
রবিবার, ১৭ নভেম্বর ২০১৯, ৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

  অনলাইন ডেস্ক    ০২ নভেম্বর ২০১৯, ০০:০০  

সরকারের পতন এখন সময়ের ব্যাপার: মওদুদ

সরকারের পতন এখন সময়ের ব্যাপার: মওদুদ
জাতীয় প্রেসক্লাবে শুক্রবার জাতীয়তাবাদী নবীন দল আয়োজিত প্রতিবাদ সভায় বক্তৃতা করেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ। পাশে দলের অন্য নেতারা -যাযাদি

যাযাদি রিপোর্ট বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ বলেছেন, নিজেদের কারণেই এই সরকারের পতন হবে। তাদের পতন এখন সময়ের ব্যাপার। শুক্রবার জাতীয় প্রেসক্লাবে আয়োজিত এক প্রতিবাদ সভায় তিনি এ কথা বলেন। বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে এ প্রতিবাদ সভার আয়োজন করে জাতীয়তাবাদী নবীন দল। মওদুদ বলেন, দুর্নীতিপরায়ণ সরকারের অবশ্যই পতন হবে। তাদের নিজেদের দুর্নীতির ভারেই তাদের পতন হবে। আমাদের নেত্রী মুক্তি পাবেন, দেশে গণতন্ত্র ফিরে আসবে। আইনের শাসন ফিরে আসবে, বিচার বিভাগের স্বাধীনতা ফিরে আসবে। আমাদের হাজার হাজার নেতাকর্মী যারা জেলে আছেন তারা মুক্তি পাবেন। তিনি বলেন, সরকার দুর্নীতির বিরুদ্ধে যতই অভিযান চালাক না কেন, এটা হচ্ছে আইওয়াশ। এটা সত্যিকার অর্থে তারা পারবে না। কারণ তাদের প্রত্যেকটি অঙ্গ-প্রতঙ্গে, শাখা-প্রশাখায় দুর্নীতি প্রবেশ করে গেছে। এখান থেকে ফিরে আসা তাদের সম্ভব হবে না। নিজেদের কারণেই তাদের পতন হবে। মওদুদ আহমদ বলেন, দেশে এখন আওয়ামী পুলিশের শাসন চলছে। পুলিশ নির্ধারণ করে দেয় কোন দল সভা-সমাবেশ করতে পারবে আর কোন দল পারবে না। তিনি আরও বলেন, এক বছর আট মাস হলো আমাদের নেত্রী কারাগারে, ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান ৬ হাজার মাইল দূরে আছেন। লক্ষাধিক মামলায় ২৬ লাখের ওপরে দলীয় নেতাকর্মীকে আসামি করা হয়েছে। তারপরও বিএনপি টিকে আছে। তারা জোর করে ক্ষমতায় গিয়ে বিএনপিকে নিঃশেষ করতে চায়। কিন্তু নিঃশেষ করতে পেরেছে? পারেনি। কারণ বিএনপি একটি দেশপ্রেমিক রাজনৈতিক দল। এই দল দেশের জনগণের জন্য কাজ করে। এই দলকে নিঃশেষ করা সম্ভব হবে না। তিনি আরও বলেন, এই সরকার ভারতের সাথে চুক্তি করে আমাদের হাত-পা বেঁধে ফেলেছে। আমাদের স্বাধীনতার শক্তি, সার্বভৌমত্বের শক্তি নষ্ট করে দিয়েছে। বিএনপির এই নেতা বলেন, আমাদের কিছু করার দরকার নেই। কারণ এই সরকার দুর্নীতির বিরুদ্ধে কথা বলে ক্ষমতায় এসেছে। আজকে দেখা যাচ্ছে এই সরকার পুরো দুর্নীতিতে ডুবে আছে এবং তারা তা স্বীকার করছে। ছাত্রলীগের সভাপতি-সেক্রেটারিসহ সব নেতাকর্মী চাঁদাবাজি টেন্ডারবাজি মাদক ব্যবসার সাথে জড়িত। প্রকাশ্যে সবারই তা জানা হয়ে গেছে। যুবলীগ-ছাত্রলীগ আওয়ামী লীগের একটি স্তম্ভ। কতশত সম্রাট-শামীম আছে আওয়ামী লীগে তার কোনো হিসাব নেই। মওদুদ বলেন, নুসরাত হত্যা মামলার পরে আওয়ামী লীগের একজন নেতা বলেছেন, দেশে যে আইনের শাসন আছে সেটা প্রমাণ হলো। তার মানে, সরকার যখন চাইবে তখন আইনের শাসন হবে। আয়োজক সংগঠনের সভাপতি হুমায়ুন আহমেদ তালুকদারের সভাপতিত্বে ও সোহেল রানার পরিচালনায় অন্যদের মধ্যে বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা জয়নুল আবদিন ফারুক, বিএনপির যুগ্ম-মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, খায়রুল কবির খোকন, সাংগঠনিক সম্পাদক শামা ওবায়েদ, নির্বাহী কমিটির সদস্য নিপুণ রায় প্রমুখ বক্তৃতা করেন।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close

উপরে