logo
  • Sat, 17 Nov, 2018

  ক্রীড়া প্রতিবেদক   ০৯ নভেম্বর ২০১৮, ০০:০০  

৬ বছর পর চ্যাম্পিয়ন রাজশাহী

৬ বছর পর চ্যাম্পিয়ন রাজশাহী
জাতীয় ক্রিকেট লিগের শিরোপা হাতে একফ্রেমে বন্দি রাজশাহী বিভাগের খেলোয়াড়রা। বৃহস্পতিবার বরিশাল বিভাগকে ৬ উইকেটে হারিয়ে ষষ্ঠ বারের মতো আসরের শিরোপা ঘরে তুলেছে পদ্মাপাড়ের দলটি Ñসৌজন্য
সুদীঘর্ ছয় বছর পর জাতীয় লিগে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে রাজশাহী বিভাগ। প্রথম স্তরের চারদিনের ম্যাচে বৃহস্পতিবার সকালেই বরিশালকে ছয় উইকেটে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন হওয়ার আনন্দে মাতলো পদ্মাপাড়ের দলটি। ছয় ম্যাচে দুই জয় ও চার ড্রয়ে ৩৪.৮১ পয়েন্ট সংগ্রহ করে রাজশাহী। ষষ্ঠ এবং শেষ রাউন্ডের বাকি তিনটি ম্যাচই ড্র হয়েছে। তাতে প্রথম স্তর থেকে দ্বিতীয় স্তরে নেমে গেছে বরিশাল বিভাগ (১৪.৮১ পয়েন্ট) আর দ্বিতীয় স্তর থেকে প্রথম স্তরে উঠে এসেছে ঢাকা বিভাগ (২৯.৩৫ পয়েন্ট)।

খালেদ মাসুদ পাইলট অধ্যায় শেষের পর রাজশাহীর শিরোপা খরা কিছুতেই কাটছিল না। শেষ পযর্ন্ত ২০১৭-১৮ মৌসুমে জহুরুল ইসলামের নেতৃত্ব হারানো গৌরব পুনরুদ্ধার করল দলটি। এর আগে ২০১১-১২ মৌসুমে জাতীয় লিগের শিরোপা ছুঁয়েছিল রাজশাহী। এরপর ২০১৩-১৪ মৌসুমে রানাসর্আপ হওয়াই সবোর্চ্চ অজর্ন ছিল তাদের। সব মিলিয়ে জাতীয় লিগে এটি তাদের ষষ্ঠ শিরোপা। সবচেয়ে বেশি ছয়বার শিরোপা জেতা খুলনাকে ছুঁয়ে ফেলল তারা। আগের তিন বছর টানা চ্যাম্পিয়ন ছিল খুলনা বিভাগ।

গত মৌসুমে দ্বিতীয় স্তরে ছিল রাজশাহী। ঢাকা মেট্রো, সিলেট ও চট্টগ্রামকে পেছনে ফেলে প্রথম স্তরে উঠে আসে তারা। প্রথম স্তরে উঠেই শিরোপা উৎসব করল দলটি। বড় অজর্নই বটে! রাজশাহী প্রথমবার শিরোপা জিতেছিল ২০০৫-০৬ মৌসুমে। এরপর ২০০৮-০৯ থেকে টানা চার মৌসুমে শিরোপাটা নিজেদের সম্পত্তি বানিয়ে ফেলেছিল তারা। এরপর তাদের রাজত্বে হানা দিয়েছিল খুলনা বিভাগ। এবার দলটি কোনোমতে দ্বিতীয় স্তরে অবনমন হওয়া থেকে রক্ষা পেয়েছে।

রাজশাহীর শহীদ কামারুজ্জামান স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত ম্যাচে স্বাগতিক রাজশাহী টস জিতে বরিশালকে আগে ব্যাটিংয়ে পাঠালে দলটি ৯৭ রানে অলআউট হয়। জবাবে রাজশাহী প্রথম ইনিংসে ১৬০ রান করে। বরিশাল ম্যাচে ফিরে আসে দ্বিতীয় ইনিংসে। দলটি ৩৪৬ রানের বড় সংগ্রহ পায়। তাতে রাজশাহীর সামনে ২৮৪ রানের চ্যালেঞ্জিং লক্ষ্য দঁাড়ায়। কিন্তু তৃতীয় দিনেই সেটাকে মামুলি বানিয়ে ফেলে দলটির ব্যাটসম্যানরা। চতুথর্ দিনে জয়ের জন্য ১০২ রান দরকার ছিল তাদের। হাতে ছিল ৮ উইকেট। জুনায়েদ সিদ্দিকীর (১২০*) অপরাজিত সেঞ্চুরিতে ওই রান সহজেই টপকে গেছে রাজশাহী। দলপতি জহুরুল ইসলাম খেলেন ৬৪ রানের ইনিংস। এর আগে প্রথম ইনিংসে ৭৮ রান করেছিলেন জুনায়েদ। স্বাভাবিকভাবেই ম্যাচসেরা হয়েছেন তিনি।

এদিকে, শহীদ চান্দু স্টেডিয়ামে প্রথম স্তরের আরেক ম্যাচে ড্র করেছে খুলনা আর রংপুর বিভাগ। ফলে রেলিগেশন এড়াতে সক্ষম হয়েছে খুলনা। প্রথম ইনিংসে ২৬১ রানে অলআউট হয় দলটি। জবাবে রংপুর নিজেদের প্রথম ইনিংসে ২৪৯ রানে ইনিংস ঘোষণা করে। এরপর তৃতীয়দিন বুধবার খুলনা দ্বিতীয় ইনিংসে ৬ উইকেটে ১৯২ রান সংগ্রহ করে ২০৪ রানের লিড নেয়। চতুথর্ দিনে খুলনার ইনিংস শেষ হয় ২৮২ রানে। রংপুরের সামনে লক্ষ্য দঁাড়ায় ২৯৫ রান। শেষ দিনে রংপুর ৫০.৫ ওভারে ৬ উইকেট হারিয়ে ১৮৪ রান সংগ্রহ করে।

কক্সবাজারের একাডেমি মাঠে অনুষ্ঠিত দ্বিতীয় স্তরের ড্রয়ের ম্যাচে শেষ দিনে ব্যাট করতে নেমে ৪ উইকেটে ১৪২ রান সংগ্রহ করে। তৃতীয়দিন শেষে ৭৯ রানের লিড নিয়েছিল ঢাকা মেট্রো। মেট্রোর প্রথম ইনিংসে ৩২৮ রানের জবাবে চট্টগ্রাম প্রথম ইনিংসে ৩৪৫ রান করে। লিড নেয় ১৭ রানের। এরপর মেট্রো ৬ উইকেটে ২৬১ রানে ইনিংস ঘোষণা করে। ফলে চট্টগ্রামে সামনে লক্ষ্য দঁাড়ায় ২৪৫ রানের। মেট্রোর পয়েন্ট ২৫.১৩ আর চট্টগ্রামের ২১.১১।

কক্সবাজারে দ্বিতীয় স্তরের অপর ম্যাচেও জমজমাট লড়াইয়ের পর ড্র হয়েছে। সিলেট প্রথম ইনিংসে ২৩৮ রান সংগ্রহ করে। এনামুল জুনিয়রের দুদার্ন্ত বোলিংয়ের পরও প্রথম ইনিংসে ৩৪৬ রানের বড় স্কোর গড়ে ঢাকা বিভাগ। ৪ উইকেটে ১০২ রানে তৃতীয় দিন শেষ করে সিলেট। শেষ দিনে ৬ উইকেটে ৩০৩ রান সংগ্রহ করে। পেশাদার ক্রিকেট ক্যারিয়ারের শেষ ইনিংসে মাত্র ১৩ রানের জন্য সেঞ্চুরি না পাওয়ার আক্ষেপে পুড়েছেন রাজিন সালেহ। ৭টি চার ও ১টি ছক্কার সাহায্যে ৮৩ রানে ফিরেছেন। জাকের আলী (৭৭*) ও শাহানুর রহমান (৭০*) রানে অপরাজিত থাকেন। ৬ ম্যাচে সিলেট বিভাগের পয়েন্ট ২০.১২।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সকল ফিচার

রঙ বেরঙ
উনিশ বিশ
জেজেডি ফ্রেন্ডস ফোরাম
নন্দিনী
অাইন ও বিচার
ক্যাম্পাস
হাট্টি মা টিম টিম
তারার মেলা
সাহিত্য
সুস্বাস্থ্য
কৃষি ও সম্ভাবনা
বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি
close

উপরে