logo
শনিবার ২৩ মার্চ, ২০১৯, ৯ চৈত্র ১৪২৫

  ক্রীড়া ডেস্ক   ১১ জানুয়ারি ২০১৯, ০০:০০  

ইউরোপিয়ান ফুটবল

লিগ কাপ থেকে পিএসজির বিদায়

লিগ কাপ থেকে পিএসজির বিদায়
ফরাসি লিগ ওয়ানে এই মৌসুমে একমাত্র দল হিসেবে অপরাজিত আছে প্যারিস সেন্ট জামের্ই (পিএসজি)। ৪৭ পয়েন্ট নিয়ে রয়েছে টেবিলের শীষের্। সবার শেষে বিশ নম্বরে আছে গুইনগাম্প। বুধবার রাতে তলানির সেই দলের কাছেই ২-১ গোলে হেরে ফরাসি লিগ কাপের কোয়াটার্র ফাইনাল থেকে বিদায় নিয়েছে শেষ পঁাচ মৌসুমের চ্যাম্পিয়নরা। ফরাসি লিগ কাপ থেকে পিএসজি বিদায় নিলেও ইংলিশ এফএ কাপের সেমিফাইনালের প্রথম লেগে বড় জয় পেয়েছে ম্যানচেস্টার সিটি। বাটর্ন অ্যালবিওনকে (৯-০) গোলের বড় ব্যবধানে জিতে ফাইনালে এক পা রেখেছে পেপ গাদির্ওলার দল। আর নতুন বছরের তৃতীয় ম্যাচে এসে জয়খরা কাটাল রিয়াল মাদ্রিদ। কোপা দেল রেতে শেষ ষোলোর প্রথম লেগে লেগানাসকে ৩-০ গোলে হারিয়েছে তারা।

পিএসজির মাঠে ম্যাচের প্রথমাধের্ কোনো গোল হয়নি। বিরতির পর ৬২ মিনিটে এগিয়ে গিয়েছিল পিএসজিই। সতীথর্ মুনিয়ের কনার্র থেকে হেডে গোল করে দলকে লিড এনে দেন ব্রাজিলিয়ান ফরোয়াডর্ নেইমার। কিন্তু শেষ দশ মিনিটে কপাল পোড়ে তাদের। ৮৩ মিনিটে পেনাল্টি পেয়ে অতিথিদের সমতায় ফেরান ইয়েনি। আর যোগ করা সময়ের দ্বিতীয় মিনিটে আবারো পেনাল্টি পায় তারা। এবার থুরামের সফল স্পট-কিক প্রতিযোগিতা থেকে ছিটকে দেয় পিএসজিকে। এ ছাড়া এদিন সেমিফাইনালে উঠেছে থিয়েরি অঁরির মোনাকোও। শেষ আটে রেনের বিপক্ষে মোনাকো টাইব্রেকারে জিতেছে ৮-৭ গোলে। নিধাির্রত সময়ে ম্যাচটি ১-১ গোলে ড্র ছিল।

এদিকে ইতিহাদ স্টেডিয়ামে এফএ কাপের ম্যাচের পঞ্চম মিনিটে হেডে গোল করে ম্যানসিটিকে এগিয়ে দিয়েছিলেন ডি ব্রæইন। ৩০ মিনিটে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন গ্যাব্রিয়েল জেসুস। তিন মিনিট পরই নিজের দ্বিতীয় গোলে স্কোরলাইন ৩-০ করে ফেলেন এই ব্রাজিলিয়ান ফরোয়াডর্। ৩৭ মিনিটে ব্যবধান বাড়ান জিনচেঙ্কো। বিরতির পর ৫৭ মিনিটে জেসুস পূণর্ করেন হ্যাটট্রিক। ৬২ মিনিটে দলের হয়ে ষষ্ঠ গোল করেন ফোডেন। ৬৫ মিনিটে নিজের চার নম্বর গোলটা করেন জেসুস। এরপর ৭০ মিনিটে ওয়াকার ও ৮৩ মিনিটে অতিথিদের কফিনে নয় নম্বর পেরেকটি ঠুকে দেন মাহরেজ। গত প্রায় ৩২ বছরে এই প্রথম কোনো ম্যাচে আটের বেশি গোল করল ম্যানচেস্টার সিটি। ১৯৮৭ সালের নভেম্বরে দ্বিতীয় বিভাগের ম্যাচে হাডাসির্ফল্ড টাউনকে ১০-১ গোলে হারিয়েছিল তারা। প্রতিযোগিতার ইতিহাসে সেমিফাইনালে সবচেয়ে বড় হার এটি।

নতুন বছরে এটাই ছিল রিয়ালের প্রথম জয়। এই বছর লা লিগায় দুই ম্যাচ খেলে একটি হেরেছে এবং একটি ড্র করেছে তারা। সান্তিয়াগো বানার্ব্যুতে প্রথম গোলের দেখা পেতে অবশ্য ম্যাচের ৪৪ মিনিট পযর্ন্ত অপেক্ষায় থাকতে হয়েছে রিয়াল সমথর্কদের। পেনাল্টি থেকে স্বাগতিকদের এগিয়ে দেন সাজির্ও রামোস। স্পট-কিকে বল জালে জড়িয়েই ক্যারিয়ারের শততম গোলের মাইলফলক স্পশর্ করেন রিয়াল অধিনায়ক। রিয়ালের হয়ে এটি তার ৮০তম গোল, এ ছাড়া স্পেন জাতীয় দলের হয়ে করেছেন ১৭ গোল, সেভিয়ার জাসিের্ত ৩ গোল। বিরতির পর ৬৮ মিনিটে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন লুকাস ভাসকেজ। আর ৭৭ মিনিটে স্কোরলাইন ৩-০ করার পাশাপাশি দলের জয় নিশ্চিত করেন রিয়ালের ১৮ বছর বয়সি উইঙ্গার ভিনিসিয়াস জুনিয়র। অপর ম্যাচে জিরোনার বিপক্ষে শুরুতে আঁতোয়ান গ্রিজম্যানের গোলে এগিয়ে যাওয়ার পরও ১-১ গোলে ড্র করেছে অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদ।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সকল ফিচার

রঙ বেরঙ
উনিশ বিশ
জেজেডি ফ্রেন্ডস ফোরাম
নন্দিনী
অাইন ও বিচার
ক্যাম্পাস
হাট্টি মা টিম টিম
তারার মেলা
সাহিত্য
সুস্বাস্থ্য
কৃষি ও সম্ভাবনা
বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি
close

উপরে