logo
সোমবার ২২ জুলাই, ২০১৯, ৭ শ্রাবণ ১৪২৬

  অনলাইন ডেস্ক    ০৬ জুলাই ২০১৯, ০০:০০  

সংবাদ সংক্ষেপ

নিষিদ্ধ হতে পারে জিম্বাবুয়ে ক্রিকেট

ক্রীড়া ডেস্ক

নিষিদ্ধ হতে পারে জিম্বাবুয়ের ক্রিকেট। এর মূল কারণ দেশটির ক্রিকেট বোর্ডে রাজনীতির আধিপত্য। এমনিতেই দেশটির ক্রিকেটের অবস্থা নাজুক। তার ভেতর গত মাসে ক্রিকেট বোর্ডের সবাইকে চাকরিচু্যত করে জিম্বাবুয়ে সরকার।

বিশ্বকাপের মূল পর্বে উঠতে না পারায় হতাশ জিম্বাবুয়ে ক্রিকেট বোর্ড। সেই ক্ষোভ থেকেই গত বছর কোচ থেকে শুরু করে পরিবর্তন করে ফেলে অধিনায়কও। এছাড়া আছে আর্থিক সংকট। আন্তর্জাতিক ক্রিকেট সংস্থা (আইসিসি) থেকে প্রতি বছর ৯ মিলিয়ন ডলার পেয়ে থাকলেও দুর্নীতির কারণে আলোর মুখ দেখছে না জিম্বাবুয়ে ক্রিকেট।

আর্থিক সমস্যায় পড়ে গত সপ্তাহে বাতিল করতে হয়েছে নারী দলের আয়ারল্যান্ড সফরও। শোনা যায়, বিমান ভাড়ার টাকাও নাকি বোর্ডের তহবিলে নেই।

দেশটির ক্রীড়া ও বিনোদন বিভাগের চেয়ারম্যান জেরাল্ড স্স্নোতশোয়া জানান, বোর্ড কর্মকর্তারা চাকরিচু্যত হবার আগেও কর্মক্ষেত্রে অনিয়মিত ছিলেন। এসবের জের ধরে যদি জিম্বাবুয়ের ক্রিকেট বোর্ডকে নিষিদ্ধ করে আইসিসি তাহলে বড় ক্ষতির সম্মুখীন হবে জিম্বাবুয়ের ক্রিকেট। এতে করে খেলতে হবে আসন্ন অস্ট্রেলিয়ায় টি২০ বিশ্বকাপের বাছাইপর্ব। নারী দলের কোয়ালিফাইং রাউন্ড হবে আগস্টে আর পুরুষ দলের অক্টোবরে।

বোর্ডের এসব কর্মকান্ডের প্রভাব পড়েছে মাঠের খেলায়ও। সম্প্রতি যুক্তরাজ্য সফরে নেদারল্যান্ডসের কাছে ২-০ ব্যবধানে হেরেছে ওয়ানডে সিরিজ। ২ ম্যাচের সিরিজ খেলছে আয়ারল্যান্ডের সঙ্গে। এখানেও হেরে গেছে প্রথম ম্যাচটি।

ক্রিকেটবিশ্ব মিস করবে গেইলকে

ক্রীড়া ডেস্ক

ওয়ানডে বিশ্বকাপে আর ব্যাট হাতে দেখা যাবে না ক্রিস গেইলকে। চলতি বিশ্বকাপই এ ক্যারিবিয়ান মারকুটে ব্যাটসম্যানের ক্যারিয়ারের শেষ আসর। ভারতের বিপক্ষে হোম সিরিজ শেষেই বর্ণাঢ্য আন্তর্জাতিতক ক্রিকেট ক্যারিয়ারে পর্দা টেনে দেবেন তিনি।

এটা ভেবেই যেন খারাপ লাগছে সতীর্থ শাই হোপের। অবসরে গেলে ইউনিভার্স বসকে খুব মিস করবেন এ উইকেটরক্ষক-ব্যাটসম্যান। শুধুই কী হোপ? তেমনটা হতেই পারে না। অবসরের পর পুরো ক্রিকেট দুনিয়া বিস্ফোরক ব্যাটসম্যানকে মিস করবে।

বৃহস্পতিবার লিডসে আফগানিস্তানের বিপক্ষে ২৩ রানে জয়ের পর এমনটাই জানিয়েছেন হোপ, 'ব্যাট-প্যাড তুলে রাখলে সম্ভবত ক্রিকেটবিশ্ব গেইলকে মিস করবে। সেদিনটা হবে ক্রিকেটের দুঃখের দিন।'

সতীর্থ ক্রিস গেইল ক্রিকেটকে না বলে দিলে আপনি তার কোন জিনিসটা সবচেয়ে বেশি মিস করবেন? সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের উত্তরে হোপ এক গাল হেসে উত্তর দেন, 'সম্ভবত তার সানগস্নাস। ক্রিসের কাছ থেকে আপনি অনেক কিছু নিতে পারবেন।'

৩ আগস্ট ভারতের বিপক্ষে হোম সিরিজ খেলতে নামছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। গেইল জানিয়ে দিয়েছেন এটাই হবে তার ক্যারিয়ারের শেষ আন্তর্জাতিক সিরিজ।

সিরিজে ওয়ানডে তো অবশ্যই খেলবেন গেইল। আইসিসি টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের অধীনে ওয়েস্ট ইন্ডিজ-ভারতের দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজের অন্তত একটি খেলেই ক্রিকেটকে বিদায় বলে দিতে চান এ ক্রিকেট মেগাস্টার।

৭৭ রানে ইনিংস খেলে ম্যাচ সেরা হোপ বিশ্বকাপের অভিজ্ঞতা থেকে শিক্ষা নিতে চান, 'বিশ্বকাপ অভিযাত্রা অবশ্যই শিক্ষণীয় এক অভিজ্ঞতা। যা আমি কখনোই ভুলব না।'

মিঁয়াদাদের রেকর্ড ভাঙলেন বাবর

ক্রীড়া ডেস্ক

সেমিফাইনালে যাওয়ার প্রায় অসম্ভব পথ পাড়ি দিতে শুক্রবার লর্ডসে বাংলাদেশের বিপক্ষে মাঠে নামে পাকিস্তান। তবে ম্যাচ জয়ের আগে টস জয়টাই বেশি গুরুত্বপূর্ণ ছিল তাদের কাছে। এক্ষেত্রে পাকিস্তান অধিনায়ক সরফরাজ আহমেদ বেশ ভাগ্যবান ভাবতে পারেন নিজেকে।

টস জিতে আগে ব্যাট করবে পাকিস্তান, সেটা অনুমিতই ছিল। আর এটাই হয়েছে। বাংলাদেশের বোলারদের সামলে ঠিকই বড় সংগ্রহ দাঁড় করায় পাকিস্তান। জটিল সমীকরণের ম্যাচে ইমাম উল হকের সেঞ্চুরি (১০০) আর বাবর আজমের ৯৬ রানের ইনিংসে ভর করে ৯ উইকেটে ৩১৫ রানের বিশাল ইনিংস গড়ে তোলে।

দলকে এগিয়ে দেয়ার পথে বাবর আজম তো ছিলেন একেবারে সেঞ্চুরির দোরগোড়ায়। ৯৬ রানের মাথায় তাকে সাজঘরের পথ দেখান মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন।

সেঞ্চুরিটা পাওয়া হয়নি, তবে তার আগেই অনন্য এক রেকর্ড গড়ে ফেলেছেন বাবর আজম। পাকিস্তানের কিংবদন্তি ব্যাটসম্যান জাভেদ মিঁয়াদাদকে ছাড়িয়ে দেশের হয়ে বিশ্বকাপের এক আসরে সর্বোচ্চ রান সংগ্রহের রেকর্ড গড়েছেন তিনি।

মিঁয়াদাদ রেকর্ডটি গড়েছিলেন ১৯৯২ বিশ্বকাপে। পাকিস্তানকে চ্যাম্পিয়ন করার সে আসরে দলের হয়ে ৯ ম্যাচে ৪৩৭ রান করেছিলেন তিনি। যেটি এতদিন পর্যন্ত ছিল পাকিস্তানের হয়ে এক আসরে সর্বোচ্চ রানের রেকর্ড।

২৭ বছর পর সেই রেকর্ডটি ভেঙে দিলেন বাবর আজম, যিনি আবার পাকিস্তানের হয়ে এবারই প্রথম বিশ্বকাপ খেলছেন। ম্যাচে নামার আগে রেকর্ড থেকে ৫৯ রান দূরে ছিলেন বাবর। শেষ পর্যন্ত এ বিশ্বকাপে ৮ ম্যাচ খেলে ডানহাতি এই ব্যাটসম্যান করলেন ৪৭৪ রান।

২০ জুলাই শ্রীলংকা যাচ্ছে বাংলাদেশ

ক্রীড়া ডেস্ক

নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চে একটুর জন্য বেঁচে ফিরেছেন তামিম-মাহমুদউলস্নাহরা। এদিকে গত এপ্রিলে কলম্বোতে সন্ত্রাসী হামলার কারণে শ্রীলংকায় যাওয়াটাও নিরাপদ হবে কি না, এ নিয়ে নিশ্চিত হয়ে কিছু বলা যাচ্ছিল না। বাংলাদেশ দলকে সর্বোচ্চ নিরাপত্তা দেয়ার আশ্বাস দিলেও সংশয় থেকেই যাচ্ছিল।

অনেক জল্পনাকল্পনা শেষে অবশেষে শুক্রবার শ্রীলংকা সিরিজের ব্যাপারটি নিশ্চিত করেছে বিসিবি। এই মাসেই শ্রীলংকা সফরে যাচ্ছেন মাশরাফিরা। বিসিবির এক কর্মকর্তা জানান, 'আগামী ২০ জুলাই দল শ্রীলংকায় পৌঁছাবে, সেখানে ২৬, ২৯ ও ৩১ জুলাই তিনটি ওয়ানডে ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে। সব ম্যাচই শ্রীলংকার প্রেমাদাসা স্টেডিয়ামে হবে।

বিশ্বকাপ শেষেই শ্রীলংকান পেসার লাসিথ মালিঙ্গার অবসর নেয়ার গুঞ্জন চলছিল। তবে ইংল্যান্ড বিশ্বকাপে লংকান এই পেসার যে পারফরম্যান্স দেখিয়েছেন তাতে একটি ব্যাপার স্পষ্ট, এখনো ফুরিয়ে যাননি মালিঙ্গা। বাংলাদেশের সঙ্গেও এখন খেলতে চান এই পেসার। এ প্রসঙ্গে শ্রীলংকান প্রধান নির্বাচক বলেন, 'আমি মালিঙ্গার সঙ্গে কথা বলেছি, ও খেলা চালিয়ে যাবে বলেই জানিয়েছে।'
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close

উপরে