logo
সোমবার ২২ জুলাই, ২০১৯, ৭ শ্রাবণ ১৪২৬

  ক্রীড়া ডেস্ক   ০৬ জুলাই ২০১৯, ০০:০০  

পাপনের অনুরোধেই মাঠে মাশরাফি

বিশ্বকাপের এবারের আসরে ৮ ম্যাচ খেলে একটি মাত্র উইকেট পেয়েছেন মাশরাফি। আর ১০ নম্বরে ব্যাট করতে নেমে সব মিলিয়ে করেছেন ১৯ রান। ব্যাট-বল সবেতেই ব্যর্থ টাইগার অধিনায়ক!

পাকিস্তানের বিপক্ষে বিশ্বকাপের শেষ ম্যাচের আগে বাংলাদেশ অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা যখন অনুশীলনে নামেননি, আনুষ্ঠানিক সংবাদ সম্মেলনেও উপস্থিত হননি, ড্রেসিংরুমেই কাটিয়েছেন সময়, এতেই সন্দেহ তৈরি হয়। দুপুর গড়ানোর আগে থেকেই লর্ডসের বাতাসে ভেসে বেড়াচ্ছিল একটি গুঞ্জন; মাশরাফি কি খেলবেন? একসময় মনে হলো মাশরাফি সত্যিই বুঝি খেলবেন না। ম্যানেজার খালেদ মাহমুদ সুজন আর প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীন নান্নুও নিশ্চিত করতে পারছিলেন না মাশরাফির খেলার বিষয়ে।

জানা যায়, মাশরাফি নিজেই শুক্রবার পাকিস্তানের বিপক্ষে না খেলার কথা ভাবছিলেন। যদিও বৃহস্পতিবার গভীর রাতে সে সিদ্ধান্ত পাল্টেছে। শেষ পর্যন্ত লর্ডসে লাল-সবুজ জার্সি পরে মাঠে নামেন মাশরাফি। মিরাজ, সাইফউদ্দিন আর মুস্তাফিজের পর প্যাভিলিয়ন প্রান্তে চার নম্বর বোলার হিসেবে করলেন বোলিংও।

হ্যামস্ট্রিং ইনজুরি নিয়েই বিশ্বকাপে খেলেছেন মাশরাফি। ব্যক্তিগত আলাপচারিতা, অনানুষ্ঠানিক কথোপকথনে সব সময়ই জানিয়েছেন নিজের হ্যামস্ট্রিং ইনজুরির কথা। মাশরাফির হ্যামস্ট্রিং ইনজুরির সমস্যাটা এখন ছোটখাটোও নয়, 'গ্রেড টু টিআর।' অন্তত সপ্তাহ তিনেকের পরিপূর্ণ বিশ্রাম চায় তার। মাশরাফি সেই ইনজুরি নিয়েই খেলে গেছেন।

মাশরাফি শুক্রবার পাকিস্তানের সাথে ম্যাচে বিশ্রামে থাকার সিদ্ধান্ত নিয়েই ফেলেছিলেন। টাইগার ক্যাপ্টেনের ভাবনা ছিল, যেহেতু ইনজুরি ভোগাচ্ছে আর পাকিস্তানের সাথে শেষ ম্যাচ তেমন গুরুত্ববহ নয়। তাই বিশ্রামে থাকাই শ্রেয়। তার এ সিদ্ধান্তে বিপাকে পড়ে যায় টিম ম্যানেজমেন্ট। ইনজুরি নিয়ে পুরো বিশ্বকাপ খেলা মাশরাফি শেষ ম্যাচে এসে ইনজুরির জন্য নিজেকে সরিয়ে নিচ্ছেন, এমন খবরে বিব্রত হয়ে যান বোর্ডের শীর্ষকর্তারাও।

এ খবর পেয়ে বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন মাশরাফির সাথে বৃহস্পতিবার রাতে (লন্ডন সময় ১১টা, বাংলাদেশে শুক্রবার ভোর ছয়টা) কথা বলতে বাংলাদেশের টিম হোটেল রয়েল ল্যাঙ্কাস্টারে যান। ওই সময় বিসিবির মাহবুব আনাম, পরিচালক আকরাম খান, নাইমুর রহমান দুর্জয়, সিইও নিজামউদ্দীন চৌধুরী সুজন, ইসমাইল হায়দার মলিস্নক, লোকমান হোসেন ভূঁইয়া প্রমুখ বোর্ড প্রধানের সাথে ছিলেন। তারা মাশরাফিকে নিজের বিশ্বকাপ ক্যারিয়ারের শেষ ম্যাচটি মাঠে খেলেই বিদায় নিতে অনুরোধ করেন। তাদের সাথে দীর্ঘ আলোচনা ও বোর্ড প্রধানের অনুরোধের পর নিজের সিদ্ধান্ত থেকে সরে আসেন টাইগার দলপতি। লাল-সবুজ জার্সি গায়ে মাঠে নামেন প্রতিপক্ষ পাকিস্তানের বিপক্ষে।

বিশ্বকাপের এবারের আসরে ৮ ম্যাচ খেলে একটি মাত্র উইকেট পেয়েছেন মাশরাফি। আর ১০ নম্বরে ব্যাট করতে নেমে সব মিলিয়ে করেছেন ১৯ রান। ব্যাট-বল সবেতেই ব্যর্থ টাইগার অধিনায়ক!

মাশরাফির সময়কার ক্রিকেটারদের কেউই এখন আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে নেই। অথচ তিন চোট নিয়েই খেলে যাচ্ছেন বিশ্বকাপে। হাঁটুতে আছে সাতটি অস্ত্রোপচার। এভাবেই ২০০১ সালে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অভিষেকের পর ১৮ বছর পার করে দিয়েছেন।

চলতি বিশ্বকাপের উদ্দেশে দেশ ছাড়ার আগে মাশরাফি জানিয়েছিলেন, এটাই হতে যাচ্ছে তার শেষ বিশ্বকাপ। তাই গুঞ্জন, বিশ্বকাপ শেষে দেশে ফিরেই অবসরের ঘোষণা দেবেন মাশরাফি।

বয়স, ফিটনেস আর সাম্প্রতিক পারফরম্যান্স ছাড়াও বর্তমানে জাতীয় সংসদের নির্বাচিত সংসদ সদস্য মাশরাফি বিন মর্তুজা। মূলত রাজনৈতিক জীবনে মনোনিবেশ করার জন্যই ক্যারিয়ারের ইতি টানবেন বলে শোনা যাচ্ছিল।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close

উপরে