logo
বৃহস্পতিবার, ১৪ নভেম্বর ২০১৯, ৩০ কার্তিক ১৪২৬

  ক্রীড়া প্রতিবেদক   ২৮ অক্টোবর ২০১৯, ০০:০০  

জাতীয় ক্রিকেট লিগ

খুলনাকে জবাব দিচ্ছে ঢাকা

তৃতীয় রাউন্ডে দ্বিতীয় দিন শেষে ঢাকার সংগ্রহ ২ উইকেটে ১৭৫ রান। অন্যদিকে ৬ উইকেটে ২৬৩ রান নিয়ে রাজশাহীর বিপক্ষে লিড নিয়েছে রংপুর

খুলনার সাড়ে তিন শ ছাড়ানো সংগ্রহের জবাব ভালোভাবেই দিচ্ছে ঢাকা বিভাগ। রনি তালুকদার ও জয়রাজ শেখের দুর্দান্ত শুরুর পর ঢাকাকে এগিয়ে নিচ্ছেন সাইফ হাসান ও রকিবুল হাসান।

আগের দুই রাউন্ডে পাননি রানের দেখা। উপরন্তু আম্পায়ারের উদ্দেশে বাজে ভাষা ব্যবহার করে নিষিদ্ধ হয়েছিলেন এক ম্যাচের জন্য। লেগ স্পিনার রিশাদ হোসেনকে বিসিবি ডেকে পাঠানোয় বদলি নামার সুযোগটা পুরোপুরি কাজে লাগালেন নাসির হোসেন। তুলে নিলেন অপরাজিত ফিফটি। ফিফটির দেখা পেলেন মেহেদী মারুফ ও নাঈম ইসলামও। রাজশাহীর বিপক্ষে প্রথম ইনিংসে লিড নিয়েছে রংপুর।

কক্সবাজারের শেখ কামাল আন্তর্জাতিক স্টেডিয়ামে জাতীয় লিগের তৃতীয় রাউন্ডে দ্বিতীয় দিন শেষে ঢাকার সংগ্রহ ২ উইকেটে ১৭৫ রান। ২৬ রানে ক্রিজে আছেন সাইফ, ২৪ রানে রকিবুল। ৮ উইকেট হাতে নিয়ে প্রথম ইনিংসে এখনও তারা ১৬৫ রানে পিছিয়ে।

আগের দিন ৩০ রানে অপরাজিত থাকা মেহেদী হাসান মিরাজ এদিন মাঠে নামেননি। জাতীয় দলের সঙ্গে প্রস্তুতি ম্যাচ খেলতে তার সঙ্গে বিসিবির ডাকে এখন ঢাকায় সতীর্থ মোহাম্মাদ মিঠুনও। মিরাজের বদলি নামেন কিপার-ব্যাটসম্যান ইমরান উজ্জামান। মিঠুনের বদলি বাঁহাতি স্পিনার মইনুল ইসলাম। এদিন ৪ উইকেটে ৮১ রান যোগ করে ৩৭১ রানে অলআউট হয় খুলনা। আগের দিন দুটি করে উইকেট নেওয়া পেসার সুমন খান ও স্পিনার তাইবুর রহমান এদিন নিয়েছেন একটি করে। দুটি নেন শুভাগত হোম। লাঞ্চের আগে ২ ওভার ব্যাটিংয়ের সুযোগ পান ঢাকার দুই ওপেনার রনি ও জয়রাজ। রুবেল হোসেন, আব্দুর রাজ্জাকদের হতাশা বাড়িয়ে তারা কাটিয়ে দেন মাঝের সেশনও। জয়রাজকে ফিরিয়ে ১২৫ রানের উদ্বোধনী জুটি ভাঙেন মইনুল। ১২১ বলে ৫টি চার ও এক ছক্কায় ৫১ রান করেন তরুণ কিপার-ব্যাটসম্যান। পরের ওভারে রনিকে তুলে নিয়ে খুলনাকে ম্যাচে ফেরান রুবেল। আগের তিন ইনিংসে দুটি ফিফটির দেখা পাওয়া অভিজ্ঞ এই ডানহাতি এবার আউট হন ৭৩ রানে। শেষ বিকেলে খুলনার হতাশা বাড়ান আগের ম্যাচের সেঞ্চুরিয়ান সাইফ ও অভিজ্ঞ রকিবুল। দুজন অবিচ্ছিন্ন আছেন ৫০ রানের জুটিতে।

কিছুতেই বৃষ্টি পিছু ছাড়ছে না জাতীয় ক্রিকেট লিগের। তৃতীয় রাউন্ডে দ্বিতীয় স্তরের দুই ম্যাচেরই টানা দ্বিতীয় দিনের খেলা পরিত্যক্ত হয়েছে। রাজশাহীর শহীদ কামরুজ্জামান স্টেডিয়ামে চট্টগ্রামের প্রতিপক্ষ সিলেট বিভাগ। বগুড়ার শহীদ চান্দু স্টেডিয়ামে বরিশাল-ঢাকা মেট্রোর ম্যাচেও বেরসিক বৃষ্টির বাধা। দ্বিতীয় স্তরের এই ম্যাচটির দ্বিতীয় দিনে রোববার ভেজা আউটফিল্ডের কারণে হতে পারেনি টস।

কক্সবাজারের শেখ কামাল আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামের একাডেমি মাঠে ৬ উইকেটে ২৬৩ রান নিয়ে দিন শেষ করে রংপুর। প্রথম ইনিংসে ২০১ রানে গুটিয়ে যাওয়া রাজশাহীর চেয়ে ৬২ রানে এগিয়ে আছে তারা। নাসির ৫৫ ও ধীমান ঘোষ ১৪ রানে অপরাজিত আছেন।

জাতীয় লিগের প্রথম স্তরের তৃতীয় রাউন্ডে রোববার ২ উইকেটে ৩২ রান নিয়ে দিন শুরু করে রংপুর। সাবধানি ব্যাটিংয়ে প্রথম সেশনে মাত্র ৫৯ রান তোলেন আগের দিনের দুই অপরাজিত ব্যাটসম্যান মারুফ ও নাঈম। লাঞ্চের পর ১৭৪ বলে ফিফটি তুলে নেন মারুফ। নাঈমের পঞ্চাশ আসে ১৭৬ বলে। রানের গতি বাড়ানোর চেষ্টায় থাকা মারুফকে ফিরিয়ে ১২৭ রানের জুটি ভাঙেন ইফতেখার সাজ্জাদ। পরে অভিজ্ঞ নাঈমকেও বিদায় করেন ডানহাতি এই অফস্পিনার।

আগের দুই ম্যাচেই ফিফটি তুলে নেওয়া তানবীর হায়দার কাটা পড়েন রান আউটে। আরিফুল হকের সঙ্গে ৬১ রানের জুটিতে দলকে লিড এনে দেন নাসির। ৪৭ রান করে সাকলাইন সজীবের বলে বোল্ড হয়ে যান আরিফুল। ধীমানকে নিয়ে দিনের বাকি সময় নিরাপদে পার করেন নাসির।

সংক্ষিপ্ত স্কোর

খুৃলনার ১ম ইনিংস : ১১১.১ ওভারে ৩৭১ (এনামুল হক বিজয় ১২৬, তুষার ইমরান ৫৫, মো: মিঠুন ৪৫, জিয়াউর রহমান ২৭, আব্দুর রাজ্জাক ৩২, রুবেল হোসেন ২২ ও মেহেদী মিরাজ ৩০; সুমন খান ৩/৫১, শুভাগত ২/৫১, তৈয়বুর রহমান ৩/৪১)।

ঢাকার ১ম ইনিংস : ৬৩.৩ ওভারে ২০৬/২ (রনি তালুকদার ৭৩, জয়রাজ শেখ ৫১, সাইফ হাসান ৪১*, রাকিবুল হাসান ৩৮*; রুবেল ১/৪২, মইনুল ইসলাম ১/৩৭)।

রাজশাহী ১ম ইনিংস: ৭১.৪ ওভারে ২০১

রংপুর ১ম ইনিংস : (প্রথমদিন শেষে ৩২/২) ১০৭ ওভারে ২৬৩/৬ (মারুফ ৭৮, মাহমুদুল ২, সোহরাওয়ার্দী ১, নাঈম ৫৪, আরিফুল ৪৭, তানবীর ৫, নাসির ৫৫*, ধীমান ১৪*; দেলোয়ার ১/৪৫, তাইজুল ১/১২, ইফতেখার ২/৫৯, সাকলাইন ১/২০)।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close

উপরে