logo
বৃহস্পতিবার, ০৯ এপ্রিল ২০২০, ২৬ চৈত্র ১৪২৫

  ক্রীড়া ডেস্ক   ২৭ মার্চ ২০২০, ০০:০০  

ফেদেরারের দান ৯০ লাখ

মেসি, রোনালদো থেকে শুরু করে বাংলাদেশের মাশরাফি, মুশফিক, তামিমরাও মহানুভবতার পরিচয় দিয়ে অর্থ দান করেছেন। এগিয়ে এলেন টেনিসশ্রেষ্ঠ রজার ফেদেরারও।

কোভিড-১৯ ভাইরাস মহামারি বিশ্বজুড়ে এক অর্থনৈতিক মহামন্দার আশঙ্কা জাগিয়ে তুলেছে। নিম্নআয়ের মানুষরা এর শিকার হতে চলেছে। এই পরিস্থিতিতে বিশ্বের ধনী ক্রীড়াবিদদের এগিয়ে আসা উচিত। জীবনভর অনেক টাকাই তো রোজগার করেছেন তারা। সেই আয় থেকে সামান্য কিছু দান করলে মানুষের একটু উপকার হয়। ক্রীড়াবিদরা এগিয়ে এসেছেনও। মেসি, রোনালদো থেকে শুরু করে বাংলাদেশের মাশরাফি, মুশফিক, তামিমরাও মহানুভবতার পরিচয় দিয়ে অর্থ দান করেছেন। এগিয়ে এলেন টেনিসশ্রেষ্ঠ রজার ফেদেরারও।

সর্বোচ্চ ২০টি গ্র্যান্ড স্স্নামজয়ী ফেদেরার সুইজারল্যান্ডের আর্থিক সংকটে পড়া সুইজারল্যান্ডবাসীর জন্য তাই দান করলেন এক লাখ সুইস ফ্রাঙ্ক, বাংলাদেশি মুদ্রায় যা প্রায় ৯০ লাখ টাকার মতো। সুইস তারকা এই অর্থ দানের ঘোষণা দিয়ে বলেছেন, 'আমার ও মিরকার (তার স্ত্রী) পক্ষ থেকে দেয়া এই সামান্য অনুদান কেবল শুরু বলতে পারেন। আমরা আশা করি, অন্যরাও সুইজারল্যান্ডের ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারগুলোর সাহায্যে এগিয়ে আসবেন।' সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ব্যবহার করে ফেদেরার আরও জানিয়েছেন, 'আমাদের সবাইকে এক হয়ে এই সংকট উতরাতে হবে। সবাই সুস্থ থাকুন।'

হাঁটুর চোটে পড়ে গত অস্ট্রেলিয়ান ওপেনের সেমিফাইনালটা খেলেছেন অস্বস্তির সঙ্গে, হেরে গেছেন নোভাক জোকোভিচের কাছে। এরপর ফেব্রম্নয়ারিতে অস্ত্রোপচার করিয়েছেন। প্রায় সুস্থ হয়ে ওঠার পথে ফেদেরার। আগেই জানিয়েছিলেন, ফ্রেঞ্চ ওপেন খেলবেন না। মে মাসে নির্ধারিত ফ্রেঞ্চ ওপেন এমনিতেও হচ্ছে না। করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে ওটা পিছিয়ে চলে গেছে সেপ্টেম্বর-অক্টোবরে। খেলার কথা ছিল তার প্রিয় উইম্বলডনে, যেটি শুরু হওয়ার কথা ২৯ জুন।

উইম্বলডন আয়োজকরা এখনো আশাবাদী যে, ওই সময়ের আগেই করোনার প্রাদুর্ভাব থেমে যাবে এবং উইম্বলডন যথারীতি কোর্টে গড়াবে। এ নিয়ে এখন টেনিস খেলোয়াড়দের মধ্যেই চলছে চাপান-উতোর। অনুশীলন করা যাচ্ছে না, অনুশীলন এটিপি টুর্নামেন্ট স্থগিত, কিভাবে হবে উইম্বলডন! উইম্বলডনও স্থগিত করে দেয়ার পক্ষে জনমত ভারি হচ্ছে ক্রমশই। এর মধ্যে ২৪ জুলাই থেকে ৯ আগস্ট পর্যন্ত অনুষ্ঠেয় বিশ্বের সর্ববৃহৎ ক্রীড়ানুষ্ঠান অলিম্পিক এক বছর পিছিয়ে যাওয়ায় আরও চাপে পড়ে গেছে উইম্বলডন। অ্যাসোসিয়েশেন অব টেনিস পেস্নয়ার্স (এটিপি) এবং ডবিস্নউটিএ'র (উইমেনস টেনিস অ্যাসোসিয়েশন) অন্দরে এখন যে আলোচনা চলছে, এতে বছরের তৃতীয় এই গ্র্যান্ড স্স্নাম স্থগিত হয়ে যাওয়াটাই হয়ত নিয়তি।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close

উপরে