logo
বৃহস্পতিবার ১৭ অক্টোবর, ২০১৯, ২ কার্তিক ১৪২৬

  অনলাইন ডেস্ক    ০৫ অক্টোবর ২০১৯, ০০:০০  

কোনো আশ্বাসেই থামছে না বিদেশি বিনিয়োগকারীদের শেয়ার বিক্রি

কোনো আশ্বাসেই থামছে না বিদেশি বিনিয়োগকারীদের শেয়ার বিক্রি
যাযাদি রিপোর্ট

কোনো আশ্বাসেই থামছে না প্রবাসী ও বিদেশি বিনিয়োগকারীদের শেয়ার বিক্রি। অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামালের আশ্বাস এবং পুঁজিবাজারের তারল্য সংকট দূর করতে বাংলাদেশ ব্যাংকের বিশেষ উদ্যোগের পরও আস্থা রাখতে পারছেন না বিনিয়োগকারীরা। ফলে শেয়ার কেনার চেয়ে বিক্রি করে পুঁজিবাজার ছাড়ছেন প্রবাসী ও বিদেশিরা।

দেশের প্রধান পুঁজিবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) তথ্য মতে, প্রবাসী ও বিদেশিরা পুরো সেপ্টেম্বর মাসে ২৫৭ কোটি ৭৮ লাখ ৭১ হাজার ৪৮০ টাকার শেয়ার কিনেছেন। এর বিপরীতে ৩১৮ কোটি ১৪ লাখ ২৮ হাজার ৭৮৮ টাকার শেয়ার বিক্রি করেছেন। অর্থাৎ সেপ্টেম্বর মাসে ৬০ কোটি ৩৫ লাখ ৫৭ হাজার ৩০৮ টাকার শেয়ার বিক্রি করে বাজার ছেড়েছেন বিনিয়োগকারীরা। সব মিলে প্রত্যাশার এই মাসে প্রবাসী ও বিদেশি বিনিয়োগকারীদের মোট লেনদেন হয়েছে ৫৭৫ কোটি ৯৩ লাখ ২৬৮ টাকা।

এর ফলে চলতি বছরের মার্চ থেকে সেপ্টেম্বর টানা ৭ মাস বিদেশিরা শেয়ার কেনার পরিবর্তে শেয়ার বিক্রি করে পুঁজিবাজার ছাড়ছেন। বাজার সংশ্লিষ্টরা বলছেন, পুঁজিবাজারের অবস্থা কতটা খারাপ হলে এক মাসে শেয়ার কেনাবেচা করেও ডিএসইর একদিনের লেনদেনের সমান হয়নি বিদেশিদের লেনদেন।

ডিএসইর তথ্য মতে, চলতি বছরের জানুয়ারি মাসে প্রবাসী ও বিদেশিদের শেয়ার কেনাবেচা বাবদ লেনদেন হয়েছিল ৮১৫ কোটি ১০ লাখ ২৭ হাজার ৪৯৫ টাকা। এর মধ্যে সেই মাসে বিদেশিরা ১৭৫ কোটি ২৯ লাখ ২৮ হাজার ৩৩৫ টাকা বিনিয়োগ করেছিলেন। এরপরের মাস ফেব্রম্নয়ারিতে ৩২৩ কোটি ১৮ লাখ ৬৭ হাজার ১১০ টাকা বিনিয়োগ করেছিলেন তারা।

কিন্তু তারপর অর্থাৎ মার্চ মাস থেকে চলা দরপতনের ফলে বিদেশিরা শেয়ার কেনার পরিবর্তে শেয়ার বিক্রি শুরু করেন। মার্চ মাসে ১২৩ কোটি ৭০ লাখ ৮৮ হাজার, এপ্রিল মাসে ১৫৪ কোটি ১৮ লাখ ৮৩ হাজার, মে মাসে ৬৫ কোটি ১৬ লাখ ৬৫ হাজার, জুন মাসে ১০ কোটি ৫২ লাখ ১ হাজার, জুলাই মাসে ১৬৪ কোটি ৬৭ লাখ ৮ হাজার, আগস্ট মাসে ১০২ কোটি ৫৩ লাখ ৮১ হাজার টাকার শেয়ার বিক্রি করে পুঁজিবাজার ছেড়েছেন প্রবাসী ও বিদেশি বিনিয়োগকারীরা।

বিদেশি বিনিয়োগকারীদের শেয়ার ক্রয়-বিক্রয়ের তথ্যের ওপর ভিত্তি করে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) হালনাগাদ তথ্য পর্যালোচনার পর এ তথ্য পাওয়া গেছে। বাজারের ওপর আস্থা না পাওয়ায় বিদেশিরা এভাবে শেয়ার বিক্রি করছেন বলে অভিমত বাজার সংশ্লিষ্টদের।

বিদেশি বিনিয়োগকারীদের মাসের পর মাস শেয়ার বিক্রির চাপ অব্যাহত থাকায় সার্বিক শেয়ারবাজারেও মন্দাভাব দেখা দিয়েছে। প্রায় সাত মাস ধরে মন্দা চলছে শেয়ারবাজারে।

সদ্য সমাপ্ত সেপ্টেম্বর মাসে বিদেশিরা ডিএসইর মাধ্যমে ২৫৭ কোটি ৭৮ লাখ ৭১ হাজার ৪৮০ টাকার শেয়ার কিনেছেন। বিপরীতে বিক্রি করেছে ৩১৮ কোটি ১৪ লাখ ২৮ হাজার ৭৮৮ টাকার শেয়ার। অর্থাৎ সেপ্টেম্বরে ৬০ কোটি ৩৫ লাখ ৫৭ হাজার ৩০৮ টাকার শেয়ার বিক্রি করেছে বিদেশিরা।

এর আগে আগস্টে বিদেশিরা যে টাকার শেয়ার ক্রয় করে, বিক্রি করে তার থেকে ১০৩ কোটি টাকার বেশি। মাসটিতে বিদেশিরা ১৭৬ কোটি টাকার শেয়ার কেনার বিপরীতে বিক্রি করেছেন ২৭৯ কোটি টাকা। তার আগের মাস জুলাইয়ে বিদেশিরা শেয়ারবাজার থেকে ৩০৯ কোটি টাকার শেয়ার ক্রয়ের বিপরীতে বিক্রি করেন ৪৭৪ কোটি টাকা। অর্থাৎ জুলাইয়ে বিদেশিরা শেয়ার ক্রয় থেকে বিক্রি বেশি করেন ১৬৫ কোটি টাকার।

জুলাই মাসের মতো আগের চার মাসেও বিদেশিদের শেয়ার বিক্রির চাপ ছিল। এর মধ্যে জুনে যে পরিমাণ টাকার শেয়ার ক্রয় করে, বিক্রি করে তার থেকে ১১ কোটি বেশি। মাসটিতে বিদেশিরা ২৯৫ কোটি টাকার শেয়ার ক্রয়ের বিপরীতে বিক্রি করেন ৩০৫ কোটি টাকা।

একইভাবে মে মাসে বিদেশিরা শেয়ার ক্রয় থেকে বিক্রি বেশি করে ৬৫ কোটি টাকা। তার আগের মাস এপ্রিলে ১৫৪ কোটি টাকা। আর মার্চে ক্রয় থেকে বিক্রি বেশি ছিল ১২৪ কোটি টাকা। অর্থাৎ মার্চ থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত বিদেশিরা যে পরিমাণ টাকার শেয়ার ক্রয় করেছেন বিক্রি করেছেন তার থেকে ৬৮২ কোটি টাকা বেশি।

মাসের হিসাবে এর আগে বিদেশিদের শেয়ার বিক্রির টানা চাপ ছিল গত বছর। ২০১৮ সালের এপ্রিল থেকে আগস্ট পর্যন্ত টানা পাঁচ মাস বিদেশিরা শেয়ার ক্রয় থেকে বিক্রি বেশি করেন। এর মধ্যে এপ্রিলে শেয়ার ক্রয় থেকে বিক্রি বেশি করে ২৫ কোটি, মে-তে ২৮২ কোটি, জুনে ২০৭ কোটি, জুলাইয়ে ৩৩ কোটি এবং আগস্টে ৬ কোটি টাকা। অর্থাৎ গত বছর টানা পাঁচ মাসে বিদেশিরা শেয়ার ক্রয় থেকে বিক্রি বেশি করেন ৫৫৩ কোটি টাকা।

তবে টাকার অঙ্কে বিদেশিদের শেয়ার বিক্রির চাপ সব থেকে বেশি ছিল ২০১০ সালে। ওই বছরের অক্টোবর, নভেম্বর ও ডিসেম্বর টানা তিন মাস বিক্রি বেশি ছিল বিদেশিদের। এর মধ্যে অক্টোবরে ৬৩ কোটি টাকা, নভেম্বরে ১৫৭ কোটি টাকা এবং ডিসেম্বরে ৪৯৫ কোটি টাকা শেয়ার ক্রয় থেকে বিক্রি বেশি ছিল বিদেশিদের। অর্থাৎ টানা তিন মাসে বিদেশিরা ৭১৫ কোটি টাকা ক্রয় থেকে বিক্রি বেশি করে।

বিদেশিরা ২০১০ সালের যে সময় শেয়ার বিক্রির চাপ বাড়ায়, সে সময়েই দেশের শেয়ারবাজারে এক কলঙ্কজনক অধ্যায়ের সৃষ্টি হয়। সে সময়ে মহাধসে নিঃস্ব হয় অসংখ্য ক্ষুদ্র বিনিয়োগকারী। ধকল সামলাতে না পেরে ধুঁকতে থাকে শেয়ারবাজার। দীর্ঘ প্রায় ৯ বছর পার হলেও এখনো সেই ধকল পুরোপুরি কাটিয়ে উঠতে পারেনি শেয়ারবাজার। এ পরিস্থিতেই চলতি বছরে এসে আবারও শেয়ার বিক্রির চাপ বাড়িয়েছে বিদেশিরা।

এদিকে গত সাত মাস বিদেশিরা অব্যাহতভাবে শেয়ার বিক্রি করলেও চলতি বছরের প্রথম দুই মাসের চিত্র ছিল সম্পূর্ণ বিপরীত। জানুয়ারি ও ফেব্রুয়ারি পর পর দুই মাস শেয়ার বিক্রির থেকে ক্রয়ে বেশি মনোযোগী ছিল বিদেশিরা। জানুয়ারিতে বিদেশিদের শেয়ার বিক্রি থেকে ক্রয় বেশি হয় ১৭৫ কোটি টাকা। আর ফেব্রম্নয়ারিতে বিক্রি থেকে ক্রয় বেশি ছিল ৩২৩ কোটি টাকা। অর্থাৎ চলতি বছরের দুই মাসে বিদেশিরা যে টাকার শেয়ার বিক্রি করেন ক্রয় করেন তার থেকে ৪৯৮ কোটি টাকা বেশি। বিদেশিদের এমন টানা শেয়ার ক্রয়ের কারণে ওই দুই মাসে শেয়ারবাজারে বড় ধরনের উত্থান ঘটে।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close

উপরে