logo
শুক্রবার, ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১৬ ফাল্গুন ১৪২৬

  যাযাদি রিপোর্ট   ২০ জানুয়ারি ২০২০, ০০:০০  

বিমার আওতায় আসবে সব ভবন

সরকারি-বেসরকারি সব ভবন বিমার আওতায় আনতে চায় সরকার। কীভাবে এটি বাস্তবায়ন হবে, সে বিষয়েও কাজ শুরু করেছে অর্থ মন্ত্রণালয়।

সম্প্রতি অর্থ মন্ত্রণালয়ের আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের যুগ্ম সচিব মো. হুমায়ুন কবিরের সভাপতিত্বে একটি আন্তঃমন্ত্রণালয় সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় সিদ্ধান্ত হয়, দেশের বহুতল ভবনগুলোকে বিমার আওতায় আনার লক্ষ্যে প্রাথমিকভাবে পাইলট প্রকল্প চালু করা যেতে পারে।

এ ছাড়া বিমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সংশ্লিষ্ট স্টেকহোল্ডারদের (অংশীজন) নিয়ে চলতি বছরের ফেব্রম্নয়ারির মধ্যে একটি ওয়ার্কশপ বা সেমিনার আয়োজন করে সুনির্দিষ্ট সুপারিশমালা প্রণয়ন করা হবে।

এ বিষয়ে যুগ্ম সচিব মো. হুমায়ুন কবির বলেন, দেশের বিভিন্ন স্থানে অগ্নিকান্ড, ভূমিকম্পসহ বিভিন্ন ঝুঁকি এবং ব্যক্তিপ্রতিষ্ঠানের আর্থিক ক্ষতি হ্রাসের জন্য সরকারি-বেসরকারি সব ভবন বিমার আওতায় আনতে চায় সরকার। কীভাবে এটি বাস্তবায়ন করা যায়, সে জন্য প্রথম বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে। আগামীতে এ বিষয়ে আরও আলাপ-আলোচনা করে করণীয় ঠিক করা হবে। আন্তঃমন্ত্রণালয় সভার কার্যপত্র থেকে জানা যায়, সভায় বিমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষের (আইডিআরএ) পরিচালক কামরুল হক জানান, দেশে প্রচুর বহুতল ভবন রয়েছে, যেগুলো কখনো বিমার আওতায় আনা হয় না। ট্যারিফ বেশি হওয়ায় মূলত অনেকে বিমা করেন না। এটি বাস্তবায়নে আইনগতভাবে তাদের বাধ্য করতে হবে।

বাংলাদেশ ইন্সু্যরেন্স ফোরামের প্রতিনিধি মো. ইমাম শাহীন জানান, দেশের বহুতল ভবনগুলো বিমার আওতায় আনতে হলে আইনগত বাধ্যবাধকতা থাকতে হবে। দেশে বর্তমানে প্রিমিয়াম রেট প্রতি বর্গফুট শূন্য দশমিক ৭৫ টাকা। এটি দেশব্যাপী চালু করতে হলে প্রিমিয়াম রেট কমাতে হবে। এ ক্ষেত্রে বাংলাদেশ ইন্সু্যরেন্স অ্যাসোসিয়েশন ও বাংলাদেশ ইন্সু্যরেন্স ফোরাম মিলে বাস্তবায়নযোগ্য একটি রেট নির্ধারণ করতে পারে।

তিনি আরও জানান, সিটি করপোরেশনের বার্ষিক নিবন্ধন ফি নবায়নের সময় ভবনগুলোর বিমা আছে কিনা, তা সিটি করপোরেশন দেখভাল করতে পারে।

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগের প্রতিনিধি জানান, দেশে সাধারণত ষষ্ঠ থেকে ১০ তলা পর্যন্ত অনেক ভবন রয়েছে। ১৮ তলার ওপর ভবন করতে রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষকে অতিরিক্ত ফি জমা দিতে হয়। ভবনগুলো বিমার আওতায় আনতে রাজউক ও জাতীয় গৃহায়ন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলা যেতে পারে এবং এ ক্ষেত্রে যদি আইন করার প্রয়োজন হয়, তাহলে অবশ্যই তা করতে হবে। এ বিষয়ে আইডিআরএ-সংশ্লিষ্ট সব স্টেকহোল্ডারকে নিয়ে একটি ওয়ার্কশপ বা সেমিনারের আয়োজন করা যেতে পারে।

সভায় সুরক্ষা সেবা বিভাগের প্রতিনিধি জানান, শুরুতেই বহুতল ভবনগুলো অগ্নি-বিমা পলিসির মধ্যে আনতে হবে। প্রাকৃতিক দুর্যোগের কারণে হলে তা কতটুকু বাস্তবসম্মত, তা বিবেচনায় আনতে হবে। তবে প্রাথমিকভাবে পাইলটিং ব্যবস্থায় ভবনগুলো বিমার আওতায় আনলে ভালো হয়। ভবন নির্মাণের ক্ষেত্রে যে আইনগুলো আছে, সেগুলো যাতে বাস্তবায়ন করা যায় সেদিকেও লক্ষ্য রাখতে হবে। এলাকাভিত্তিক আলোচনা করে পাইলটিং কাজ শুরু করা যেতে পারে।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close

উপরে