পূর্বাচলে মাসব্যাপী ২৬তম আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলা শুরু

পূর্বাচলে মাসব্যাপী ২৬তম আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলা শুরু

নারায়ণগঞ্জ জেলার রূপগঞ্জে অবস্থিত রাজউকের পূর্বাচল নতুন শহরে ২৬তম ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলার উদ্বোধন করা হয়েছে। ১ জানুয়ারি শনিবার সকাল ১০টায় নতুন বছরের পহেলা জানুয়ারি নবনির্মিত বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশ-চায়না ফ্রেন্ডশিপ এক্সিবিশন সেন্টারে (বিবিসিএফইসি) ভিডিও কনফারেন্সে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এ মেলার উদ্বোধন করেন।

এ সময় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, দেশের স্বার্থেই পণ্যের মান বজায় রাখুন। রপ্তানিকারকদের উৎসাহিত করতে হবে। পণ্য রপ্তানিতে ব্যাপক উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে। ব্যবসাবাণিজ্যের প্রসার ও পণ্যের গুণগতমান বাড়াতে ব্যবসায়ীদের প্রতি তিনি আহŸান জানিয়েছেন। বর্তমান ক‚টনীতি হবে বাণিজ্য ও অর্থসংক্রান্ত।

এক্সিবিশন সেন্টারে আয়োজিত উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি এমপি। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরোর ভাইস চেয়ারম্যান এ এইচ এম আহসান। বক্তব্য রাখেন বাণিজ্য সচিব তপন কান্তি ঘোষ, ফেডারেশন অব বাংলাদেশ চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির সভাপতি জসীম উদ্দিন।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী গোলাম দস্তগীর গাজী বীরপ্রতীক, রূপগঞ্জ ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ্ব মো. ছালাউদ্দিন ভুঁইয়া, প্রতিমন্ত্রী, সংসদ সদস্য, ঢাকাস্থ বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রদূত, সচিব, রাজনৈতিক দলের নেতৃবৃন্দ, এফবিসিসিআই-এর সদস্য, বণিক সমিতির প্রতিনিধি, ব্যবসায়ীগণ।

সভায় বক্তারা বলেন, রপ্তানি বাণিজ্য উন্নয়নের অন্যতম প্রধান কৌশল হচ্ছে পণ্য উন্নয়ন ও পণ্যের বাজার সৃষ্টি করা। আর পণ্য বাজার সৃষ্টির অন্যতম প্রধান কৌশল হচ্ছে আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলার আয়োজন ও অংশগ্রহণ। ব্যবসাবাণিজ্যের উন্নয়ন ও সম্প্রসারণে যুক্ত হতে যাচ্ছে এক নতুন অধ্যায়। দেশীয় পণ্যের প্রচার, প্রসার, বিপণন ও উৎপাদনে সহায়তা প্রদানের লক্ষ্যে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় ও রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরোর যৌথ উদ্যোগে ১৯৯৫ সাল থেকে ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলা আয়োজন করা হয়। এবারই প্রথমবারের মতো স্থায়ী মেলা কমপ্লেক্সে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলা। পূর্বের ন্যায় মেলাটি জানুয়ারি মাসব্যাপী সকাল ১০টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত চলবে। ছুটির দিনে রাত ১০টা পর্যন্ত চলবে।

দেশীয় বস্ত্র, মেশিনারিজ, কার্পেট, কসমেটিক্স অ্যান্ড বিউটি এইডস, ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেক্ট্রনিক্স, ফার্নিচার, পাট ও পাটজাত পণ্য, গৃহসামগ্রী, চামড়া ও জুতাসহ চামড়াজাত পণ্য, স্পোর্টস গুডস, স্যানিটারিওয়্যার, খেলনা, স্টেশনারি, ক্রোকারিজ, প্লাস্টিক, মেলামাইন পলিমার, হারবাল ও টয়লেট্রিজ, ইমিটেশন জুয়েলারি, প্রক্রিয়াজাত খাদ্য, হস্তশিল্পজাত পণ্য, হোম ডেকর, ইত্যাদি পণ্য মেলায় প্রদর্শনী হতে যাচ্ছে।

এবারের বাণিজ্য মেলায় বিভিন্ন ক্যাটাগরির মোট ২৩টি প্যাভিলিয়ন, ২৭টি মিনি প্যাভিলিয়ন, ১৬২টি স্টল এবং ১৫টি ফুড স্টল দেশি-বিদেশি প্রতিষ্ঠানকে বরাদ্দ প্রদান করা হয়েছে। অত্যাধুনিক সুযোগ-সুবিধা সংবলিত শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত এক্সিবিশন সেন্টারের ১৪ হাজার ৩ শত ৬৬ বর্গমিটার আয়তনের ২টি হলে সকল স্টল বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। মেলা কমপ্লেক্সের বাইরে (সম্মুখ ও পেছনে) প্যাভিলিয়ন, মিনি প্যাভিলিয়ন এবং ফুড স্টল নির্মাণ করা হয়েছে। কোভিড-১৯ মহামারি পরিস্থিতি বাংলাদেশে এখন অনেকটাই স্বাভাবিক হলেও ইউরোপসহ অন্যান্য কিছু দেশে তা আবার নতুন রূপে ছড়িয়ে পড়ায় বিগত বছরগুলোর তুলনায় এবারের বাণিজ্য মেলায় বিদেশি প্রতিষ্ঠানের অংশগ্রহণ কিছুটা কম। মেলা চলাকালীন স্বাস্থ্যবিধি যথাযথভাবে অনুসরণ করা হবে।

এবারও মেলায় মূল ভবনের প্রবেশদ্বারে বঙ্গবন্ধু প্যাভিলিয়ন নির্মাণ করা হয়েছে। মুজিববর্ষ, স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী, বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা বিনির্মাণ ইত্যাদি বিষয়কে প্রক্ষেপণ করে এবারের বঙ্গবন্ধু প্যাভিলিয়ন অধিকতর নান্দনিক, ভাবগাম্ভীর্য ও অর্থপূর্ণভাবে নির্মাণ করা হয়েছে। এই প্যাভিলিয়নের মাধ্যমে মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস, স্বাধিকার আন্দোলন ও স্বাধীনতা সংগ্রামে বঙ্গবন্ধুর অবদান, বঙ্গবন্ধুর বর্ণাঢ্য রাজনৈতিক জীবনের বিভিন্ন দিক ছাড়াও যুদ্ধবিধ্বস্ত বাংলাদেশকে উন্নয়নের ধারায় এগিয়ে নেওয়ার প্রকৃত ইতিহাস সবার কাছে বিশেষ করে নতুন প্রজন্মের কাছে তুলে ধরারও প্রয়াস নেওয়া হয়েছে। বঙ্গবন্ধু প্যাভিলিয়নের ভিতরে বঙ্গবন্ধুর জীবন ও কর্মভিত্তিক বিভিন্ন আলোকচিত্র প্রদর্শন ছাড়াও তার জীবন ও কর্মভিত্তিক ডকুমেন্টারি প্রদর্শনের ব্যবস্থা করা হয়েছে।

মেলার সার্বিক নিরাপত্তা এবং মেলায় আগত দর্শনার্থীদের নিরাপত্তা নিশ্চিতকরণার্থে মেলা প্রাঙ্গণে পর্যাপ্ত সংখ্যক আনসার, পুলিশ, আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়ন ও র‌্যাব নিয়োজিত রয়েছে। পুলিশ, র‌্যাব মেলা প্রাঙ্গণ ও প্রাঙ্গণের বাইরে নিয়মিত টহল দিচ্ছে। এছাড়া সার্ভিস গেট ও ভিআইপি গেট এবং এক্সিবিশন হলের ভিতরে শৃঙ্খলা বজায় রাখার জন্য প্রাইভেট সিকিউরিটি গার্ড নিয়োগ করা হয়েছে। নিরাপত্তা অগ্রাধিকার বিবেচনায় এক্সিবিশন সেন্টারে বিল্ট ইন ১৬০টি সিসিটিভির অতিরিক্ত আরও ৬০টি ক্যামেরা মেলা প্রাঙ্গণের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থান, প্রবেশ গেট, পার্কিং এলাকা এবং সংশ্লিষ্ট সকল এলাকাসহ পুরো এলাকাটি সিসিটিভি ক্যামেরার আওতায় আনা হয়েছে। এছাড়া, মেলার প্রবেশ গেটে প্রয়োজনীয় সংখ্যক আর্চওয়ে ও মেটাল ডিটেক্টরের ব্যবস্থা করা হয়েছে। একইভাবে যেকোন ধরনের অগ্নিদুর্ঘটনা প্রতিরোধে মেলায় সার্বক্ষণিক নিয়োজিত থাকবে ফায়ার ব্রিগেড।

মেলার পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতার বিষয়টি অধিকতর গুরুত্বের সঙ্গে বিবেচনা করা হয়েছে। পর্যাপ্ত সংখ্যক পরিচ্ছন্নতাকর্মী সার্বক্ষণিক পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা কাজে নিয়োজিত থাকবে। এক্সিবিশন হলে পর্যাপ্ত সংখ্যক পুরুষ ও মহিলা আলাদা টয়লেট রয়েছে, যা পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতার জন্য আলাদাভাবে পুরুষ ও মহিলা পরিচ্ছন্নতাকর্মী নিয়োগ করা হয়েছে। মেলা প্রাঙ্গণের বাইরেও টয়লেট তৈরি করা হয়েছে। এছাড়া, মেলা প্রাঙ্গণ পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখার জন্য শতাধিক পরিচ্ছন্নতাকর্মী সার্বক্ষণিক নিয়োজিত থাকবে।

খাদ্যদ্রব্যের মূল্য ও মান নিয়ন্ত্রণের লক্ষ্যে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের পৃথক অফিস রয়েছে। ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর কর্তৃক নিয়োজিত ম্যাজিস্ট্রেটের নেতৃত্বে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যসহ গঠিত টিম মেলা চলাকালীন নিয়মিত মনিটরিং করবে এবং প্রয়োজনে অভিযান পরিচালনা করা হবে।

উল্লেখ্য, এবারের মেলায় এক্সিবিশন সেন্টারের ভিতরে বাংলাদেশ পর্যটন কর্পোরেশন পাঁচশত আসনবিশিষ্ট একটি ক্যাফেটেরিয়া পরিচালনা করবে।

মেলায় রয়েছে প্রায় এক হাজার কার পার্কিংয়ের সুবিধা। পার্কিংয়ের জন্য রয়েছে বিল্ট-ইন দ্বিতল কার পার্কিং বিল্ডিং যেখানে পাঁচশতাধিক গাড়ির পাকিং সুবিধা রয়েছে। এছাড়াও, এক্সিবিশন হলের বাইরে ৬ একর জমিতে পার্কিংয়ের ব্যবস্থা করা হয়েছে।

দর্শনার্থীদের সকল প্রকার তথ্য প্রদানের জন্য রয়েছে একটি তথ্য কেন্দ্র। ব্যাংকিং সার্ভিসের জন্য মেলায় থাকছে জনতা ব্যাংক। পাশাপাশি মেলায় কিছু ব্যাংক বুথ স্থাপন করা হয়েছে। মেলায় প্রাথমিক স্বাস্থ্যসেবা প্রদানের বিষয়টিও নিশ্চিত করা হয়েছে। মা ও শিশুদের কথা বিবেচেনা করে মেলায় স্থাপন করা হয়েছে ২টি মা ও শিশু কেন্দ্র। অন্যান্য প্রয়োজনীয় সেবার মধ্যে রক্ত সংগ্রহ কেন্দ্র, মসজিদ, দর্শনার্থীদের বিশ্রামের জন্য আরামদায়ক ও শোভন চেয়ার/বেঞ্চ ইত্যাদির ব্যবস্থা করা হয়েছে।

এছাড়াও সাধারণ দর্শনার্থীদের যাতায়াতের সুবিধার্থে কুড়িল বিশ্বরোড হতে মেলা প্রাঙ্গণ পর্যন্ত বিআরটিসি ও কয়েকটি যাত্রীবাহী বাসের ডেডিকেটেড সার্ভিসের ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। মেলা চলাকালীন এ বাস সার্ভিস চালু থাকবে। নির্ধারিত ভাড়া পরিশোধ করে দর্শনার্থীগণ এ বাসে মেলায় যাতায়াত করতে পারবেন।

মেলার প্রবেশ টিকিটের মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে প্রাপ্তবয়স্কদের জন্য ৪০ টাকা এবং অপ্রাপ্তবয়স্কদের ২০ টাকা। মেলায় পর্যাপ্ত সংখ্যক টিকিট কাউন্টার স্থাপন করা হয়েছে। মেলার টিকিট অন-লাইনেও বিক্রয় করা হচ্ছে।

দেশের আর্থসামাজিক উন্নয়নে ডিআইটিএফ অনন্য ভূমিকা পালন করে। সরকারের সময়োপযোগী পদক্ষেপ এবং সরকারি-বেসরকারি সংশ্লিষ্ট সকলের সমন্বিত প্রচেষ্টায় আয়োজিত ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলা ইতিবাচক রপ্তানি প্রবৃদ্ধির ধারা অব্যাহত রাখার ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখে চলছে। এছাড়াও দেশীয় উদ্যোক্তাদের স্থানীয় বাজারে তাদের পণ্যের প্রচার ও প্রসারে এ মেলাটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। ডিআইটিএফর বিভিন্ন অবকাঠামো/প্যাভিলিয়ন/স্টল নির্মাণ ও সজ্জিতকরণ কাজে প্রচুর জনবলের প্রয়োজন হয়। এতে করে মৌসুমি কর্মসংস্থানের সৃষ্টি হয়। ডিআইটিএফর মাধ্যমে ইন্টেরিয়র ডিজাইনিং কাজে সংশ্লিষ্ট ফার্মসমূহ তাদের ইনোভেটিভ কর্মকাÐ ফুটিয়ে তুলতে সক্ষম হয়। ডিআইটিএফর মাধ্যমে দেশের ইন্টেরিয়র ডিজাইনিং খাতের সুনাম আন্তর্জাতিক অঙ্গনে ছড়িয়ে পড়ছে। এছাড়া ডিআইটিএফ দেশের সার্ভিস সেক্টর উন্নয়নের মাধ্যমে দেশের সামষ্টিক অর্থনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখছে।

যাযাদি/ এস

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

আরও খবর

সকল ফিচার

ক্যাম্পাস
তারার মেলা
সাহিত্য
সুস্বাস্থ্য
বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি
জেজেডি ফ্রেন্ডস ফোরাম
নন্দিনী
আইন ও বিচার
হাট্টি মা টিম টিম
কৃষি ও সম্ভাবনা
রঙ বেরঙ

Copyright JaiJaiDin ©2022

Design and developed by Orangebd


উপরে