সোমবার, ০৬ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ২৩ মাঘ ১৪২৯
walton1

সমৃদ্ধ কনটেন্ট এবং সফটওয়্যারের সমন্বয়ে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের এলএমএস কার্যক্রম গ্রহণ 

যাযাদি ডেস্ক
  ২৭ নভেম্বর ২০২২, ১২:৪৯
ওয়ার্কশপে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. মো. মশিউর রহমান

সমৃদ্ধ কনটেন্ট এবং সফটওয়্যারের সমন্বয়ে লার্নিং ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম (এলএমএস) চালুর কার্যক্রম গ্রহণ করেছে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়। এ লক্ষ্যে গত শনিবার (২৬ নভেম্বর) রংপুরে মাহিগঞ্জ কলেজের মিলনায়তনে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় অধিভুক্ত কলেজ/শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসমূহে এলএমএস বাস্তবায়নের নিমিত্তে ওয়ার্কশপের আয়োজন করা হয়েছে। 

ওয়ার্কশপে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. মো. মশিউর রহমান। জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় অধিভুক্ত রংপুর অঞ্চলের সরকারি, বেসরকারি এবং প্রফেশনাল কলেজের ৬২ জন অধ্যক্ষ কর্মশালায় অংশগ্রহণ করেন। 

প্রধান অতিথির বক্তব্যে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় উপাচার্য প্রফেসর ড. মো. মশিউর রহমান বলেন, ‘সমৃদ্ধ কনটেন্ট এবং সফটওয়্যারের সমন্বয়ে এলএমএস কার্যক্রম চালু করা হবে। এরফলে শিক্ষার্থীরা আরও বেশি তথ্যপ্রযুক্তি ব্যবহারের মধ্য দিয়ে শিক্ষাগ্রহণ করতে পারবে। নিজেদের সমৃদ্ধ করতে পারবে। ই-লাইব্রেরি, ই-জার্নাল থেকে শুরু করে শিক্ষা ও গবেষণা সম্পর্কিত সকল সুযোগ তারা গ্রহণ করতে পারবে। পাশাপাশি তারা আউট সোর্সিং করে ইনকামের সুযোগ পাবে। নিজেদের মতো করে কনটেন্ট তৈরির সুযোগও তৈরি হবে। শুধু তাই নয়, প্রান্তিক অঞ্চলে যারা ইন্টারনেট সুবিধার বাইরে আছে তাদেরকেও এই সমন্বিত সফটওয়্যারের মধ্যে নিয়ে আসা যাবে। যেসব প্রত্যন্ত অঞ্চলে এখনো ইন্টারনেট সুবিধার ঘাটতি রয়েছে সেগুলো পুরণের বিকল্প ব্যবস্থা এই প্রকল্পে থাকবে। এর ফলে সকলের সমান সুযোগ নিশ্চিত হবে।’ 

শিক্ষকদের উদ্দেশে দেশের প্রথিতযশা এই সমাজবিজ্ঞানী বলেন, ‘আগামী সমাজ কাঠামো কেমন হবে সেটি নির্ভর করছে আমরা শিক্ষার্থীদের কীভাবে তৈরি করছি। শিক্ষকরা সমাজের মহৎ পেশায় নিয়োজিত। তারা একজন শিক্ষার্থীকে অন্তদৃর্ষ্টি দিয়ে দেখে আগামীর বাংলাদেশের সমাজ এবং মানস তৈরিতে ভূমিকা রাখতে পারেন।  যে চিন্তা, চেতনা, ভাবনা দিয়ে শিক্ষার্থীকে বড় করছেন সেই চেতনায় আগামীর ৫০ বছরে বাংলাদেশ দাঁড়াবে। সুতরাং আপনার হাতে যে সন্তানটি বড় হচ্ছে, তার মধ্য দিয়ে বাংলাদেশ লালিত হচ্ছে, আগামীর বাংলাদেশের ভিত তৈরি হচ্ছে। সে যদি সততার শিক্ষা পায়, নৈতিকতার শিক্ষা পায়, তাহলে আগামী দিনে বাংলাদেশ ক্ষতিগ্রস্ত হবে না। আর যদি অসততার শিক্ষা পায় তাহলে আগামী দিনে বাংলাদেশ গভীর সংকটে পড়বে। সুতরাং শিক্ষার্থীদের যে অ্যাকাডেমিক শিক্ষা, নৈতিক শিক্ষা আপনারা দিচ্ছেন তার বাস্তবতার মধ্য দিয়ে বাংলাদেশ তৈরি হবে।’ 

এ সময় উপাচার্য ড. মশিউর রহমান জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের রংপুর আঞ্চলিক কেন্দ্র পরিদর্শন করেন। আঞ্চলিক কেন্দ্রের কার্যক্রম গতিশীল করার জন্য সংশ্লিষ্টদের নির্দেশনা প্রদান করেন উপাচার্য। মাহিগঞ্জ কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর মো. আখতারুজ্জামানের সভাপতিত্বে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের তথ্য-প্রযুুক্তি দপ্তরের পরিচালক মো. মুমিনুল ইসলাম, পরিকল্পনা ও উন্নয়ন দপ্তরের পরিচালক সুমন চক্রবর্তীসহ রংপুর বিভাগের ৬২টি কলেজের অধ্যক্ষ কর্মশালায় উপস্থিত ছিলেন।

যাযাদি/সাইফুল

 

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

উপরে