বুধবার, ০৬ ডিসেম্বর ২০২৩, ২১ অগ্রহায়ণ ১৪৩০
walton

ডিপফেক ভিডিও আতঙ্কে তারকারা

বিনোদন ডেস্ক
  ১৯ নভেম্বর ২০২৩, ১৩:৪০
ফাইল ছবি

আধুনিক যুগ তথ্যপ্রযুক্তির অবাধ সরবরাহের যুগ। কিন্তু প্রযুক্তির এই অবাধ প্রবাহমানতা সংস্কৃতি অঙ্গনে কখনো কখনো ক্ষতিরও কারণ হয়ে দাঁড়ায়। হুমকির মুখে পড়ে সমাজ, রাষ্ট্র। ক্ষতি থেকে বাদ যায় না শোবিজও। বিশেষ করে সংস্কৃতি অঙ্গনের অন্যতম মাধ্যম মঞ্চ নাটক, টিভি নাটক ও সিনেমার প্রচার ও প্রসার মারাত্মক ব্যাহত হয়। এই তথ্যপ্রযুক্তির নিত্য নতুন আবিষ্কারের যথেচ্ছ অপব্যবহারের কারণে সংশ্লিষ্ট শিল্পী ও কলা-কুশলীরা নানামুখী বিব্রত পরিস্থিতির শিকার হোন। আধুনিক যুগের সর্বশেষ আবিষ্কার নতুন এক অবাক করা বিষয় ডিপফেক প্রযুক্তি। বর্তমান সময়ে সবচেয়ে আলোচিত আতঙ্কের নাম ডিপফেক প্রযুক্তি। এই প্রযুক্তির জন্য সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে সংস্কৃতি অঙ্গনের মানুষ। সম্প্রতি বলিউডে এই আতঙ্ক ব্যাপকহারে ছড়িয়ে পড়েছে।

বলা হয়ে থাকে ইন্টারনেটের যুগে মাঝে-মধ্যেই হঠাৎ হঠাৎ কিছু জোয়ার আসে। সেই ধারাবাহিকতায় চলমান এক জোয়ারের নাম ডিপফেক। সাম্প্রতিক সময়ে আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্সকে কাজে লাগিয়ে ভুয়া ছবি, ভিডিও ছড়িয়ে দেওয়ার প্রবণতা ক্রমেই বাড়ছে। বিশেষ করে অতি সম্প্রতি বলিউডে নায়িকা রাশমিকা মান্দানার ডিপফেক ভিডিও প্রকাশ হওয়ার পর বিষয়টি নিয়ে তুমুল চর্চা হচ্ছে। সর্বশেষ ক্যাটরিনা কাইফ এবং খ্যাতিমান বলিউড অভিনেত্রী কাজলের ডিপফেক ভিডিও ভাইরাল হয়েছে। বিষয়টির রাশ টেনে ধরতে উদ্যোগ নিতে আহ্বান জানিয়েছেন বলিউডের খ্যাতিমান তারকারা। এই অবস্থায় বাংলাদেশেরও তারকাদের মধ্যে এই আতঙ্ক দেখা গেছে। ইতোমধ্যে বেশ কয়েকজন তারকার ডিপফেক ভিডিও অন্তর্জালে ছড়িয়ে পড়েছে। এই ঘটনায় মিডিয়ায় নিয়মিত কাজ করা শিল্পীরা চরম আতঙ্কে রয়েছেন। কারণ ইতোমধ্যে বাংলাদেশের বেশ কয়েকজন তারকার এই ধরনের ভিডিও নেট দুনিয়ায় ঘুরে বেড়াচ্ছে। এরমধ্যে রয়েছে চিত্রনায়িকা পরীমনি, নুসরাত ফারিয়া, অভিনেত্রী তানজিন তিশা, সাফা কবিরসহ আরও কয়েকজনের ভিডিও নেট দুনিয়ায় ভাসতে দেখা গেছে। এ ঘটনায় চরম আতঙ্কে রয়েছেন অন্য শিল্পীরাও। বিষয়টির মৌলিক এবং স্থায়ী সুরাহা করতে প্রশাসনসহ সংশ্লিষ্টদের বিশেষ উদ্যোগ নেয়ার দাবি উঠেছে সংস্কৃতি অঙ্গনের মানুষদের মধ্যে।

আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমের প্রতিবেদনে জানা যায় সম্প্রতি দক্ষিণী সিনেমার খ্যাতিমান নায়িকা রাশমিকার ‘ডিপফেক’ ভিডিও ছড়ানোর দায়ে এক যুবককে নোটিশ দিয়েছে পুলিশ। সম্প্রতি তার সোশ্যাল ডিপফেক ভিডিও মিডিয়ায় কে ছড়িয়েছিল- সেই প্রশ্নের উত্তর খুঁজতে গিয়ে ১৯ বছরের এক যুবককে জিজ্ঞাসাবাদ করছে দিল্লি পুলিশ। রাশমিকার ওই ‘ডিপফেক’ ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় আলোচনা-সমালোচনার ঝড় তুলেছিল। অন্য এক নারীর দেহে সুনিপুণভাবে রাশমিকার মাথা বসিয়ে দেওয়া হয়েছিল। তাতেই তোলপাড় শুরু হয়ে যায় সোশ্যাল মিডিয়ায়। এতে প্রতিবাদে ফেটে পড়েন বলিউড শাহেন শাহ অমিতাভ বচ্চনও। দিল্লি পুলিশ মনে করছে ওই যুবকই প্রথম সোশ্যাল মিডিয়ায় রাশমিকার ডিপফেক ভিডিও আপলোড করেছিল। পরে সেটি সোশ্যাল মিডিয়ায় দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে। ভারতীয় গণমাধ্যমের সূত্রে জানা যায়, খবর বিহারের ওই যুবককে নোটিশ পাঠিয়েছে দিল্লি পুলিশ। প্রাথমিকভাবে জানা যাচ্ছে ওই যুবক রাশমিকা ছবিটি একটি ইনস্টাগ্রাম অ্যাকাউন্ট থেকে ডাউনলোড করেছিল। কোন অ্যাকাউন্ট থেকে সে ওই ছবিটি পেয়েছিল তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। পুলিশের আইএফএসও ইউনিটের পক্ষ থেকে ওই যুবককে দেখা করতে বলা হয়েছে। সঙ্গে আনতে বলা হয়েছে তার মোবাইল ফোনটিও। রাশমিকার ডিপফেক ভিডিওটি ছড়িয়ে পড়ার পর এনিয়ে একটি এফআইআর হয়। তার পরই দিল্লি পুলিশের আইএফএসও ইউনিট ফেসবুককে চিঠি লিখে ওই ছবি ও অ্যাকাউন্ট ব্যবহারকারীর সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য চেয়ে পাঠিয়েছে। রাশমিকার ডিপফেক ভিডিও নিয়ে মামলার পর মাঠে নেমেছে পুলিশ। সর্বশেষ তথ্য অনুসারে একজনকে গ্রেপ্তারও করেছে পুলিশ। এছাড়াও সব সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মকে অভিযোগ দায়েরের ৩৬ ঘণ্টার মধ্যে এ ধরনের কন্টেট সরানোর কথা বলা হয়েছে।

সম্প্রতি ‘ডিপফেক’ ভিডিওর শিকার হয়েছেন ক্যাটরিনা কাইফও। ‘টাইগার-৩’ সিনেমায় তার টাওয়েল ফাইট সিন সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়ে যায়। আর্টিফিসিয়াল টেকনোলজি কাজে লাগিয়ে একেবারে আসলের মতো কিছু কনটেন্ট তৈরি করা হয়। এ ক্ষেত্রে সেটি ভিডিও বা স্টিল ছবিও হতে পারে। তার ওই ভিডিওটি ভাইরাল হয়ে যাওয়ার পর রীতিমতো আতঙ্কিত হয়ে পড়েন রাশমিকা। তিনি বলেন, গোটা ঘটনাটাই আমার কাছে ভয়ের। যারা সারাক্ষণ ক্যামেরার সামনে থাকেন তাদের কথা বলতে ভয় লাগে। কীভাবে প্রযুক্তির অপব্যবহার করা হচ্ছে! এমনটি করা মোটেই উচিত নয়।

রাশমিকার এক সপ্তাহ পরেই ক্যাটরিনা কাইফের একটি ছবি একই রকমভাবে ভাইরাল হয়। সেটি নিয়েও উত্তপ্ত হয় সামাজিক মাধ্যম। এবার ডিপফেক প্রযুক্তির শিকার হোন বলিউড অভিনেত্রী কাজল। কাজল পোশাক পরিবর্তন করছেন, এমন ভিডিওটি নিয়ে রীতিমতো তোলপাড় চলছে ইন্টারনেটে।

ডিপফেক প্রযুক্তি ব্যবহার করেই এই ভিডিওটি বানানো হয়েছে। বিষয়টি নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে কাজলের ভক্তরাও ক্ষোভ প্রকাশ করছেন। রাশমিকা মন্দানার মতো আইনি ব্যবস্থা নিতে অনুরোধ জানাচ্ছেন অভিনেত্রীকে। যদিও এই ভিডিও প্রসঙ্গে এখনো মুখ খোলেননি কাজল। এমন পরিস্থিতিতে ভারতের ইলেকট্রনিক্স ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মগুলোর জন্য নির্দেশিকা জারি করা হয়েছে। অনলাইনে এ ধরনের ডিপফেক ভিডিও ভাইরাল হলে কী কী শাস্তি হতে পারে, তা জানিয়েছে মন্ত্রণালয়। তথ্যপ্রযুক্তি আইন ২০০০-এর ৬৬-ডি ধারায় স্পষ্ট বলা আছে, কম্পিউটার রিসোর্সকে কাজে লাগিয়ে যদি কেউ যোগাযোগের মাধ্যমকে ভুলভাবে কাজে লাগানোর চেষ্টা করে, কিংবা কোনো ব্যক্তির সঙ্গে বিশ্বাসঘাতকতা করা হয়, তাহলে তিন বছর পর্যন্ত জেল এবং এক লাখ টাকা পর্যন্ত জরিমানা হতে পারে। ভারতের কেন্দ্রীয় মন্ত্রী রাজীব চন্দ্র শেখর জানিয়েছেন, প্রত্যেক ভারতীয় যাতে সুরক্ষিত থাকে সেই লক্ষে কাজ করছে সরকার। নাগরিকদের অনলাইন নিরাপত্তা এবং তাদের বিশ্বাস অর্জন করাই মোদি সরকারের কাজ।

প্রসঙ্গত, ডিপফেক মূলত এমন প্রযুক্তি, যার সাহায্যে কারো ছবি বা ভিডিও এমনভাবে এডিট করে দেওয়া যাতে আপাতদৃষ্টিতে আসল-নকলের পার্থক্য বোঝা কঠিন হয়ে যায়। ডিপফেক প্রযুক্তির ব্যবহার করে অন্য নারীর ভিডিওতে যুক্ত করে দেওয়া হয় আরেকজনের শরীরে। সেই ভুয়া ভিডিও রীতিমতো তোলপাড় ফেলে দেয় ইন্টারনেটে।

যাযাদি/ এস

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়
X
shwapno

উপরে