করোনাকালে গণমাধ্যমের ভূমিকা

বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াতে গিয়ে সাংবাদিকতার শিক্ষার্থীদের আমি প্রায়ই বলি, সঠিক ও বিশ্বাসযোগ্য তথ্য এবং স্টোরিটেলিংয়ের মাধ্যমে একজন সাংবাদিক পারেন সাধারণ মানুষের সঙ্গে নীতি-নির্ধারকদের আবেগ, অনুভূতিকে আলোড়িত করতে, আর্তমানুষের সহায়তায় এগিয়ে আসতে।
করোনাকালে গণমাধ্যমের ভূমিকা

এই করোনাকালে আমাদের মিডিয়া জনগণের প্রত্যাশা পূরণ করতে পারছে কিনা সেটা নিয়ে গণমাধ্যমের শিক্ষক, সমালোচক, ব্যবহারকারীরা প্রশ্ন তুলতে পারেন। তবে এসব প্রশ্নের উদ্দেশ্য কোনো ব্যক্তি সাংবাদিকদের বোধবুদ্ধিকে চ্যালেঞ্জ করা নয়। বরং শিল্প হিসেবে গণমাধ্যম যখন বহুমুখী সমস্যার সম্মুখীন তখন এ ধরনের আলোচনা গণমাধ্যমকে জনগণের প্রকৃত চাহিদা জানানোর প্রয়াস বলা যেতে পারে। প্রথমেই বলতে চাই, এই করোনাকালে প্রাথমিকভাবে যে কয়েকটি শিল্প খাত অর্থনৈতিকভাবে বিপর্যস্ত হয়েছিল তার মধ্যে গণমাধ্যম নিঃসন্দেহে একটি। শুধু তা-ই নয়- করোনায় অনেক সাংবাদিক আক্রান্ত হয়েছেন, অনেকে মারাও গিয়েছেন। তবে গণমাধ্যমের ঘুরে দাঁড়ানোর প্রচেষ্টা কিন্তু লক্ষণীয়। স্বাস্থ্য খাতের বিভিন্ন দুর্নীতি উদ্‌ঘাটনসহ, ভ্যাকসিন ইসু্যতে বাংলাদেশের মিডিয়া কভারেজ যে কোনো বিচারেই প্রশংসনীয় বলা যায়। দেশের পলিটিক্যাল-ইকোনমিক ইসু্যগুলো আলোচনায় আমাদের গণমাধ্যমের রয়েছে বিশাল অভিজ্ঞতা ও ঐতিহ্য। সমসাময়িক বিভিন্ন ম্যাক্রো ইসু্যতে আমাদের গণমাধ্যম জনমত তৈরিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। স্বাস্থ্য খাত, ভ্যাকসিন বা লকডাউনের পক্ষে-বিপক্ষে আলোচনা অবশ্যই জাতির জন্য গুরুত্বপূর্ণ ছিল এবং সেখানে গণমাধ্যম তার ভূমিকা বেশ ভালোভাবেই পালন করেছে। এ পর্যন্ত স্বীকার করতে আমার কোনো আপত্তি নেই। কিন্তু গণমাধ্যম বিষয়ের একজন শিক্ষক বা সমালোচক হিসেবে নয়, বরং একজন সাধারণ পাঠক বা দর্শক হিসেবে এই করোনাকালে মূলধারার গণমাধ্যমের আমি খুব একটা উপযোগিতা দেখিনি। পত্রিকার পাঠক সংখ্যা এ সময়ে হ্রাস পায়, রেডিও বা টেলিভিশনও জনগণের বিপদকালের বন্ধু হয়ে উঠতে পারেনি। তৃতীয় বিশ্বে গণমাধ্যমের কাজ তো শুধু জাতীয় ইসু্য আলোচনার মাধ্যমে নীতিনির্ধারণের দৃষ্টি আকর্ষণ করা নয়, বরং বিভিন্ন সংকট মুহূর্তে জনগণের পাশে থেকে সমস্যার বাস্তব সমাধান দেওয়া। আমাদের কিন্তু এটা প্রথমেই বুঝতে হবে যে দেশের সাধারণ মানুষ এখন একদিকে করোনা ও অন্যদিকে অর্থনৈতিক সংকটে বিপর্যস্ত। করোনা সংকট এখন দীর্ঘমেয়াদি হয়ে পড়েছে, দেশের গ্রাম-গঞ্জে করোনা ছড়িয়ে পড়েছে। সেই সঙ্গে যোগ হয়েছে করোনার প্রভাবে ব্যবসা-বাণিজ্যে স্থবিরতা ও কর্মসংস্থানের সংকট। শহর ছাড়ছে মানুষ। কিন্তু গ্রামে কর্মসংস্থান যথাযথ চিকিৎসাসেবা পাওয়া যথেষ্ট কঠিন। আবারও লকডাউন শুরু হয়েছে। সরকারি সাহায্য যে অপ্রতুল সেটা তো মিডিয়ায় অহরহই আসছে। এরকম অবস্থায় গণমাধ্যম যদি তার প্রথাগত সাংবাদিকতার ধারণা থেকে বের হয়ে এসে জনগণের পাশে দাঁড়াতো তাহলে সাধারণ জনগণ নিশ্চয়ই উপকৃত হতো। পত্রিকায় একদিনে খুব বেশি আলোচনার অবকাশ নেই। আমি শুধু দুই একটা উদাহরণ দিই। যেমন- কোরবানি ঈদের আগে আমি দেখছিলাম ফেসবুকে কেউ কেউ জানতে চাইছিলেন যে তাদের কোরবানিটা গরীবদের মধ্যে দেওয়ার কোনো ব্যবস্থা আছে কিনা। দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে যদি নিজের নামে কোরবানি দিয়ে সেখানকার গরীবদের মধ্যে মাংস বিতরণের কোনো ব্যবস্থা থাকে, আমার বিশ্বাস অনেকেই এগিয়ে আসতেন। আমি দেখেছি আমার পরিচিতদের মধ্যে অনেকেই এরকম চিন্তা করছিলেন। কিন্তু দু-একটা ছাড়া খুব বেশি বিশ্বাসযোগ্য প্রতিষ্ঠানের আমি নাম দেখলাম না। গণমাধ্যম তো পারত মানুষজনকে এতে উদ্বুদ্ধ করতে। আমাদের মূলধারার গণমাধ্যমের দেশব্যাপী যে বিশাল নেটওয়ার্ক, তাদের পক্ষে সহজ ছিল চ্যারিটি প্রতিষ্ঠানগুলোর ব্যাপারে ভেরিফাই করে শহরবাসীকে তাদের দানের ব্যাপারে আশ্বস্ত করা। ধর্মীয় নিয়মানুসারে কোরবানির টাকা মানুষকে সরাসরি দান করা যায় না। আমি এ কারণেই এটা লিখছি যে এই ঈদে ঢাকায় আমার এলাকায় খুব বেশি ভিক্ষুক দেখি না। লকডাউনের ঘোষণায় অনেকেই ঢাকা ছেড়ে গেছে। করোনায় আক্রান্তদের ডাক্তাররা প্রোটিন খেতে বলছেন। সঠিক ব্যবস্থাপনায় ধনীরা পারত গ্রামাঞ্চলে গরীবদের প্রোটিনের চাহিদা কিছুটা পূরণ করতে। এ ব্যাপারে মিডিয়া একটা ভূমিকা রাখতে পারত।

তবে এসব বলার অর্থ এই নয় যে আমি জনগণের পাশে দাঁড়ানোর ক্ষেত্রে রাষ্ট্র বা সরকারের দায়িত্বকে অস্বীকার করতে চাইছি। গণমাধ্যম অবশ্যই সরকারকে চাপ দেবে খাদ্য সাহায্য, আর্থিক প্রণোদনা, চিকিৎসাসেবা নিশ্চিত করতে। কিন্তু আমরা তো বাস্তব অবস্থা দেখছি। জানছি মানুষজনের দুর্দশার অবস্থা, গণমাধ্যমেই পড়ছি বিভিন্ন পরিসংখ্যান। সাহায্য প্রত্যাশী আর সাহায্য প্রাপ্তদের সংখ্যায় রয়েছে বিশাল ফারাক। সর্বোপরি সরকারি নেতারাই তো প্রতিদিন বিত্তবানদের এগিয়ে আসতে বলছেন। কোরবানি তো একটি নির্দিষ্ট সময়ের জন্য; কিন্তু সহায়তা তো সারা বছরই করা যেতে পারে বা উচিত। একজন নাগরিক তো প্রশ্ন করতেই পারেন যে গণমাধ্যম খবর দিচ্ছে শ্রমজীবী মানুষের কষ্টের কথা, জানাচ্ছে সন্তানকে খাবার দিতে না পেরে অসহায় পিতার আত্মহত্যার কথা, কিন্তু কার কী কর্তব্য আর বিত্তবানরা কোথায় কীভাবে কাকে সাহায্য করতে পারেন সে তথ্য দিচ্ছে না। অনেক শহুরে মধ্যবিত্তের অনেকেই খুব কষ্ট পান যখন গণমাধ্যমে এ ধরনের খবর দেখেন এবং নিজেকে অপরাধী মনে করেন এটা ভেবে যে প্রত্যন্ত অঞ্চলে বা কর্মহীন মানুষকে রেখে সবাই তিনবেলা পেট পুরে খাচ্ছেন। আমি দেখেছি অনেকেই চান যে এই ক্রান্তিকালে তাদের সামান্য আয়ের কিছু অংশ প্রকৃত অনাহারীর কাছে যাক। কিন্তু গণমাধ্যমের কাছে এ তথ্য কেউ পাচ্ছে না। কেউ নিশ্চয়তা দিচ্ছে না তার অর্থ প্রকৃত অভাবীরা পাবেন। বাঙালি দানশীল, আবেগপ্রবণ। তারা রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিয়েছেন। কিছুদিন আগে আমি দেখলাম যে নির্যাতিত প্যালেস্টাইনিদের নামে সোশ্যাল মিডিয়ায় টাকা ওঠানো হচ্ছে এবং অনেকেই নাকি বিশাল অংক দান করেছে। যদিও পরে এ টাকা আদতে কে পাবে সেটা নিয়েও ফেসবুকে বিতর্ক দেখেছি। কিন্তু সোশ্যাল মিডিয়াকে তো বিশ্বাস করা যায় না। আমার এক পরিচিত ব্যক্তি শুনলাম ফেসবুক দেখে করোনা রোগীদের দাফন-কাফনের জন্য নাকি বিশাল অংক দান করেছেন। যেহেতু মূলধারার মিডিয়া এ সংক্রান্ত কোনো তথ্য দেয়নি তার টাকা আসলে কে পেয়েছে, সেটা নিয়ে আমিও সন্দিহান। যাহোক সঠিকভাবে উপস্থাপনা করতে পারলে গণমাধ্যম কিন্তু মানুষকে প্রভাবিত করতে পারে। আমি আমার একটা নিজের ঘটনাই বলি। বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বের হওয়ার পরপরই আমি একটা ইংরেজি সাপ্তাহিকে সম্পাদনা সহকারী বা এডিটোরিয়াল অ্যাসিস্ট্যান্ট হিসেবে যোগ দিই। সেই সাপ্তাহিকেরই একজন প্রতিনিধি একদিন আমাকে এক রিকশাওয়ালাকে সাহায্যের আবেদন জানিয়ে এক লেখা এনে দেয়, যার দুই মেয়ে থ্যালাসেমিয়ায় ভুগছে। সেই সাংবাদিক আমাকে অনুরোধ করেন লেখাটিকে ইংরেজিতে অনুবাদ করে সাপ্তাহিকে প্রকাশ করতে। আমি খুব একটা গুরুত্ব না দিয়ে লেখাটিকে ডেস্কে ফেলে রাখি। এরকম কত লেখাই তো পত্রিকায় আসে! তাছাড়া এই দুর্বল বাংলাকে কষ্ট করে ইংরেজি করতে হবে, সেই ঝামেলা তো ছিলই। আমি যথারীতি সেই লেখার কথা ভুলে যাই। দুই-এক সপ্তাহ পরে সেই সাংবাদিক আবার আমাকে বলেন যে মেয়ে দুটার অবস্থা ভালো না, অমুক হাসপাতালে তারা ভর্তি আছে, আপনি দেখেন কোনো নিউজ করা যায় কিনা! আমার মনে হলো যে আমি হুঁশ ফিরে পেলাম। সেদিন ছিল সাপ্তাহিকটি প্রকাশের দিন। সব কাজ ফেলে আমি আগে সেটিকে অনুবাদ করলাম। তারপর সেদিনই সংবাদটি প্রকাশিত হলো। এরপর যা হলো তা অভাবনীয়! দেশ-বিদেশ থেকে বিভিন্নজন আমাদের ফোন করা শুরু করল। আমি শুনলাম অনেকে হাসপাতালে ছুটে গিয়েছে তাদের সাহায্য করতে। কিছুদিন পর এক পাঁচতারকা হোটেল তাদের পুরনো ঝাড়বাতি বিক্রির সব টাকা সেই মেয়ে দুটাকে দান করে। তারা নিঃসন্দেহে উপকৃত হয়েছেন। আমি এটুকুই জানি। এরপরে কী ঘটেছে তা আমি জানি না। সাংবাদিকতা বিষয়ে পড়াশোনা করলেও এই ঘটনার মাধ্যমে গণমাধ্যম বা সাংবাদিকতার শক্তি সম্পর্কে আমার প্রথম চাক্ষুষ ধারণা হয়। পরবর্তীতে এরকম আরও ঘটনা দেখেছি বা জেনেছি।

বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াতে গিয়ে সাংবাদিকতার শিক্ষার্থীদের আমি প্রায়ই বলি, সঠিক ও বিশ্বাসযোগ্য তথ্য এবং স্টোরিটেলিংয়ের মাধ্যমে একজন সাংবাদিক পারেন সাধারণ মানুষের সঙ্গে নীতি-নির্ধারকদের আবেগ, অনুভূতিকে আলোড়িত করতে, আর্তমানুষের সহায়তায় এগিয়ে আসতে।

এ ক্ষেত্রে পশ্চিমা সাংবাদিকতার টেক্সট আর তাদের সাংবাদিকতা শিক্ষার হুবহু অনুকরণ আমাদের জন্য ফলদায়ক হবে না। পশ্চিমা দেশগুলোর প্রাতিষ্ঠানিক কাঠামো শক্তিশালী আর আমাদের মতো তৃতীয় বিশ্বের দেশে প্রাতিষ্ঠানিক কাঠামো, রাজনৈতিক সংস্কৃতি দুর্বল। সুতরাং সব দেশে একই ধরনের সাংবাদিকতা চলতে পারে না। একদিকে ভয়াবহ করোনা পরিস্থিতি অন্যদিকে লকডাউন, এ সময়ে আর্তমানবতার পাশে দাঁড়াতে আমাদের সাংবাদিকতাকে ভিন্নভাবে চিন্তা করতে হবে বলে আমি ব্যক্তিগতভাবে মনে করি।

লেখক : অধ্যাপক

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

আরও খবর

Copyright JaiJaiDin ©2021

Design and developed by Orangebd


উপরে