বিদ্যার প্রত্যাবর্তন

বিদ্যার প্রত্যাবর্তন
বিদ্যা বালান

বলিউডের জনপ্রিয় অভিনেত্রীদের মধ্যে বিদ্যা বালান অন্যতম। ক্যারিয়ারের শুরুটা ভালো না হলেও গত এক দশকেরও বেশি সময় ধরে বেছে বেছে গুরুত্বপূর্ণ চরিত্রে অভিনয় করে নিজেকে আলোয় নিয়ে এসেছেন তিনি। সাহিত্য ও ইতিহাসনির্ভর এমনকি জীবনীমূলক সিনেমাগুলোতে অভিনয় করেই বেশি খ্যাতি অর্জন করেছেন তিনি। বলিউডে নারী কেন্দ্রিক সিনেমার চলও নতুন করে ফিরিয়ে আনেন এ অভিনেত্রী।

এর মধ্যে 'দ্য ডার্টি পিকচার, 'কাহানি', এবং 'পরিণীতা' সিনেমাগুলোর নাম আসে সবার আগে। বিশেষ করে একতা কাপুর প্রযোজিত 'দ্য ডার্টি পিকচার' সিনেমায় বিতর্কিত ভারতীয় অভিনেত্রী সিল্ক স্মিতার চরিত্রে অভিনয় করে আলোচনা, সমালোচনা ও খ্যাতি- সবই পান বিদ্যা। এরপর বেশ কয়েকটি ছবিতে অভিনয় করে আলোচনার ধারা অব্যাহত

রাখেন তিনি। মাঝখানে করোনার কারণে সারা বিশ্বের ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রির মতো থমকে যায় বলিউডও। শুটিং, ডাবিং বন্ধ থাকায় পিছিয়ে যান বিদ্যা বালানসহ বলিউডের সব নামিদামি তারকা

শিল্পীরা। এর মধ্যে ঝুঁকি নিয়ে অনেকেই ওটিটি পস্ন্যাটফর্মে মুক্তি দিয়ে ব্যর্থ

হয়েছেন অনেকে। এমনকি কদিন আগে সালমান খানের মতো সুপারস্টারের ছবিও মুখ থুবড়ে পড়ে।

এত অনিশ্চয়তার মধ্যেই আগামীকাল শুক্রবার মুক্তি পাচ্ছে বিদ্যা বালান অভিনীত বহুল প্রতিক্ষীত সিনেমা 'শেরণি'। করোনার কারণে বারবার সিনেমাটির মুক্তি পিছিয়ে গেলেও এবার আর সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করতে রাজি নন সিনেমাটির নির্মাতাপক্ষ। আর এ সিনেমার মাধ্যমে আবারও জ্বলে ওঠার স্বপ্নে বিভোর বিদ্যা। কারণ এ সিনেমাটির জন্য অনেক কাঠ-খড় পোড়াতে হয়েছে তাকে। তাছাড়া সিনেমার গল্প ও তার চরিত্র অসাধারণ মনে হয়েছে তার কাছে। এ কারণেই নিজের চরিত্রটি ফুটিয়ে তুলতে অনেক ঘাম ঝরিয়েছেন তিনি। এ সিনেমাটিও নারীকেন্দ্রিক এবং এতে কেন্দ্রীয় চরিত্রে অভিনয় করেছেন বিদ্যা বালান। আমলাতন্ত্রের ভেতরে গৎবাঁধা পুরুষতান্ত্রিক পরিবেশকে চ্যালেঞ্জ করে নির্মিত হয়েছে 'শেরনি'।

এতে বিদ্যা বালান অভিনয় করেছেন একজন বন কর্মকর্তার চরিত্রে। বিদ্যা জানান, তার চরিত্রটি শুধু জঙ্গলের বুনো পরিবেশের ভেতরে বিচরণ করেনি, চ্যালেঞ্জ করেছে পুরুষতন্ত্রকেও। গল্পটি জঙ্গলে চিত্রায়িত হয়েছে এমন নয়, বরং এটি জঙ্গলেরই গল্প।

চলচ্চিত্রটিতে জঙ্গলের হিংস্র, বুনো পরিবেশ কীভাবে আসলে ভারতের আমলাতন্ত্রে সহকর্মীদের ভেতরে টিকে থাকা পুরুষতান্ত্রিক আচরণকে প্রতিফলিত করেছে তার ব্যাখ্যা তুলে ধরেন বিদ্যা। সিনেমার গল্প সম্পর্কে এ অভিনেত্রী জানান, সিনেমায় দেখা যাবে একটি বাঘকে খুঁজে বের করতে একজন বন কর্মকর্তা (বিদ্যা বালান) স্থানীয় বাসিন্দা ও অনুসন্ধানকারীদের দলকে নেতৃত্ব দিচ্ছেন। এই অভিযাত্রায় তাকে কীভাবে পদে পদে লৈঙ্গিক বৈষম্যের শিকার হতে হয়েছে তার গল্প। জঙ্গলে গেলে আমরা জঙ্গলকে দেখতে পাই না, কিন্তু জঙ্গল আমাদের দেখতে পায়। অচেনা কীট-পতঙ্গের ডাক বা স্বাভাবিক উদ্ভিদের ঘনত্বের রহস্যময় আড়াল থেকে জঙ্গল দেখে মানুষের প্রকৃতি জয়ের দম্ভ। প্রকৃতি ও মানুষের আদি অকৃত্রিম এই দ্বন্দ্বই 'শেরনি'র মূল পটভূমি।

আমিত মাসুরকার পরিচালিত এ সিনেমা দিয়েই অনেকদিন পর সিলভার স্ত্রিনে ফিরছেন বলিউডের দাপুটে অভিনেত্রী বিদ্যা বালান। কিছুদিন আগে ওটিটি পস্ন্যাটফর্মে মুক্তি পেলেও 'শেরনি' নিয়ে এর মধ্যেই সোশ্যাল মিডিয়া তোলপাড়। বিদ্যার প্রত্যাবর্তনের পাশাপাশি এমন একটি চরিত্রে অসাধারণ অভিনয়ের জন্য বিদ্যার প্রশংসা করেছেন দর্শক। এছাড়া এমন একটি সুন্দর সিনেমা নির্মাণের জন্য পরিচালককেও ধন্যবাদ জানিয়েছেন তারা। পরিচালক এক বন বিভাগের অফিসারের চোখ দিয়ে জঙ্গলের গল্প তুলে ধরেছেন। ভারতীয় সিনেমায় এই ধরনের গল্প নিয়ে কাজ খুব একটা হয়নি আগে। তাই 'শেরনি'র টিজার সামনে আসার পর থেকেই ছবি নিয়ে বেশ উৎসাহ ছিল নেটনাগরিকদের মধ্যে। সোশ্যাল মিডিয়ায় কিছু নেতিবাচক প্রতিক্রিয়া চোখে পড়লেও বেশির ভাগই প্রশংসা করেছেন সিনেমাটির। বেশির ভাগেরই অভিমত, প্রকৃতি ও বন্যপ্রাণীদের সমস্যা নিয়ে যে গুরুত্বপূর্ণ বার্তা সিনেমার মাধ্যমে নির্মাতা তুলে ধরতে চেয়েছেন, তা প্রশংসাযোগ্য। অনেকের মতে এটি ২০২১ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত সেরা সিনেমা। সঙ্গে সবাই প্রশংসা করেছেন বিদ্যার অভিনয়ে। পরিচালক অমিতের হাতের ছোঁয়ায় যেন প্রত্যেকটা চরিত্র জীবন্ত হয়ে উঠেছে, নেট-নাগরিকদের কাছে।

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বেড়ে চলায় ভারতে দ্বিতীয়বারের মতো লকডাউন চলছে। এতে অন্যান্য খাতের মতো চলচ্চিত্র শিল্পও বড় ক্ষতির মুখে পড়েছে। এত কিছুর পরও আশাবাদীকণ্ঠে বিদ্যা বালান বলেন, 'আমি বিশ্বাস করি, এটা সাময়িক এবং আমরা আবার স্বাভাবিক জীবনযাত্রায় ফিরলে মানুষ আবার সিনেমা হলে ভিড় করবে। আমি খুবই আশাবাদী এবং আমি মনে করি, সম্মিলিত অভিজ্ঞতা খুবই আলাদা এবং অতুলনীয়।'

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

আরও খবর

Copyright JaiJaiDin ©2021

Design and developed by Orangebd


উপরে