বৃহস্পতিবার, ০২ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ১৯ মাঘ ১৪২৯
walton1

লড়াকু কন্যা নিপুণ

নাসরিন আক্তার নিপুণ- চলচ্চিত্র ও দর্শক মহলে যিনি নিপুণ নামেই পরিচিত। দু'বার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার অর্জন করা এই অভিনেত্রী উচ্চমাধ্যমিকের পর ১৯৯৯ সালে রাশিয়া চলে যান। মস্কোতে তিনি ২০০৪ পর্যন্ত পড়াশোনা করেন। এরপর পাড়ি জমান যুক্তরাষ্ট্রে। তারপর দেশে এসে সরাসরি যুক্ত হন চলচ্চিত্র পরিবারে। যদিও তার প্রথম অভিনীত সিনেমা 'রত্নগর্ভা মা' মুক্তি না পেলেও বেশ কিছু সিনেমায় অভিনয় করে প্রশংসা অর্জন করেছেন। সম্প্রতি মুক্তি পেয়েছে এই অভিনেত্রীর 'বীরত্ব' সিনেমাটি। হাতে রয়েছে আরও কয়েকটি নতুন সিনেমা। তবে নতুন খবর হলো বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির নির্বাচনে সাধারণ সম্পাদক পদ নিয়ে সৃষ্ট জটিলতা ও দীর্ঘ লড়াই শেষে স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেললেন এই লড়াকু কন্যা। সব মিলিয়ে ফুরফুরে মেজাজে আছেন তিনি। তাকে নিয়ে লিখেছেন জাহাঙ্গীর বিপস্নব
নতুনধারা
  ২৪ নভেম্বর ২০২২, ০০:০০
'চলচ্চিত্র বাঁচলে আমরা বাঁচব। সিনেমা ভালো থাকলে আমরা ভালো থাকব, শিল্পীরা ভালো থাকবে আর শিল্পী ভালো থাকলেই তো শিল্পী সমিতিও প্রাণচঞ্চল থাকবে।' কথাগুলো বললেন চিত্রনায়িকা নিপুণ আক্তার; যিনি বাংলাদেশ চলচ্চিত্র নির্বাচনের সাধারণ সম্পাদক হিসেবে সদ্য দায়িত্ব পালন শুরু করলেন। যদিও মামলা-মোকদ্দমা, সদস্যপদ বাতিলের আদেশ-স্থগিতাদেশ চলাকালীন সময়েও তিনি সাধারণ শিল্পীদের পাশে ছিলেন। রায় ঘোষণার আগে থেকেই একাধিক দুস্থ ও অসহায় শিল্পীদের সাহায্যেও হাত বাড়িয়ে আসছেন তিনি। বলা চলে, অঘোষিত হলেও চলচ্চিত্র পরিবারে একজন নেত্রীর ভূমিকাই পালন করছেন এই অভিনেত্রী। নিপুণ আক্তার বলেন, 'শুরু থেকেই সমিতির পক্ষ থেকে অনেক কিছুই করছি। প্রথম সমিতির সদস্যপদ বাতিল করা ১৮৪ জনের মধ্যে ১০৩ জনের ভোটাধিকার ফেরত দিয়েছি। সিলেটে বন্যাদুর্গতদের সাহায্যের জন্য ছুটে গিয়েছি। সেখানকার আড়াই হাজার পরিবারকে বিভিন্নভাবে সহযোগিতা করেছি। এরপর ফাইট ডিরেক্টর মাসুম বাবুল ও চিত্রনায়িকা রঞ্জনা আপাকেও আমরা আর্থিক সহায়তা দিয়েছি। এভাবে নানাভাবে সব সময়ই শিল্পীদের পাশে থেকেছি। এখন তো দায়িত্ব আরও বেড়ে গেল। এখন শিল্পীদের স্বার্থ সংরক্ষণের পাশাপাশি যাবতীয় দেখভাল করে যাব ইনশালস্নাহ।' সোমবার চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির নির্বাচনে সাধারণ সম্পাদক পদে জায়েদ খানের প্রার্থিতা বৈধ বলে হাইকোর্টের রায় স্থগিত করেন আপিল বিভাগ। একইসঙ্গে হাইকোর্টের রায়ের বিরুদ্ধে নিপুণের লিভ টু আপিল গ্রহণ করেছেন আদালত। ফলে চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির নির্বাচনে সাধারণ সম্পাদক পদে নিপুণের দায়িত্ব পালনে বাধা নেই বলে জানানা আইনজীবীরা। প্রধান বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকীর নেতৃত্বাধীন আপিল বিভাগ এ আদেশ দেন। আদালতে জায়েদ খানের পক্ষে ছিলেন অ্যাডভোকেট আহসানুল করিম ও অ্যাডভোকেট নাহিদ সুলতানা যুথি। নিপুণের পক্ষে শুনানি করেন ব্যারিস্টার রোকন উদ্দিন মাহমুদ ও ব্যারিস্টার মোস্তাফিজুর রহমান খান। এই রায়ের পরিপ্রেক্ষিতে সোমবার বিকালেই এফডিসিতে ডাকা তাৎক্ষণিক সংবাদ সম্মেলনে অভিনেত্রী নিপুণ উচ্ছ্বাস প্রকাশ করে বলেন, 'আজকে ৯ মাস ধরে এটা নিয়ে অনেক কিছু হচ্ছিল। কখনো আমি থাকব, কখনো আমার বিপরীতে যিনি আছেন তিনি থাকবেন, কিন্তু আমার একটা দৃঢ় বিশ্বাস ছিল, আমি এবং কাঞ্চন সাহেব খুব সততা নিয়ে নির্বাচনটা করেছি।' সাধারণ সম্পাদক পদে জায়েদ খানের প্রার্থিতা বৈধ বলে হাইকোর্টের রায় স্থগিত করে আপিল বিভাগের আদেশের পরে নিপুণ বলেছেন, আমার বিশ্বাস ছিল সত্যের জয় হবে এবং সেটা হয়েছে। তিনি বলেন, 'কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি আমার আপিল বোর্ডের সদস্যদের। তারা ৯ মাস ধরে আমার সঙ্গে একটা যুদ্ধ করে গেছে। যেই রায়টা আসলে আজকে আমি পেয়েছি তার জন্য এই পূর্ণাঙ্গ বেঞ্চ, মহামান্য উচ্চ আদালতের প্রতি অনেক অনেক কৃতজ্ঞ, অনেক অনেক ধন্যবাদ। তারা একটা সঠিক রায় দিয়েছেন।' নিপুণ আরও বলেন, 'আমাদের নির্বাচনে যা নিয়মনীতি ছিল সেটাই পালন করেছি। নিয়মনীতির বাইরে একদমই যাইনি। সেই জন্য আমরা খাবার পাইনি, পানি পাইনি, আমরা ওয়াসরুম ব্যবহার করতে পারিনি, সব মেনে নিয়েছি। আমার বিশ্বাস ছিল সত্যের জয়টা হবে এবং আজকে সেটা হয়েছে।' এ সময় নিপুণের সঙ্গে সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ চলচ্চিত্র প্রযোজক-পরিবেশক সমিতির সাবেক সভাপতি খোরশেদ আলম খসরু, চিত্রনায়ক ডি এ তায়েব, পরিচালক সমিতির সভাপতি সোহানুর রহমান সোহান, শিল্পী সমিতির সভাপতি ইলিয়াস কাঞ্চন, সহ-সাধারণ সম্পাদক চিত্রনায়ক সাইমন সাদিকসহ অনেকে। চলতি বছরের ২৮ জানুয়ারি চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। পরদিন প্রাথমিক ফলাফলে জায়েদকে সাধারণ সম্পাদক হিসেবে জয়ী ঘোষণা করা হয়। পরে নির্বাচনী আপিল বোর্ডের কাছে এ নিয়ে লিখিত অভিযোগ করেন নিপুণ। আপিল বোর্ড সমাজসেবা অধিদপ্তরে চিঠি পাঠায়। এর পরিপ্রেক্ষিতে গত ২ ফেব্রম্নয়ারি সমাজসেবা অধিদপ্তর এক চিঠিতে জানায়, আপিল বোর্ড এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবে। এরপর ৫ ফেব্রম্নয়ারি আপিল বোর্ড জায়েদের প্রার্থিতা বাতিল করে নিপুণকে চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির সাধারণ সম্পাদক ঘোষণা করে। তারপর থেকেই পাল্টা-পাল্টি অভিযোগের ভিত্তিতে আদালতের নির্দেশে সাধারণ সম্পাদকের আসনটি এতদিন খালি রাখা হয়। এবার একটু নিপুণের অন্যান্য ব্যস্ততা ও সিনেমার খবর শোনা যাক। নিপুণ জানান, বর্তমানে বেশ কয়েকটি সিনেমা হাতে রয়েছে তার। এর মধ্যে 'ভাগ্য' নামের একটি চলচ্চিত্রে অভিনয় করছেন তিনি। এটি পরিচালনা করছেন নিরঞ্জন বিশ্বাস। এতে নিপুণের বিপরীতে নায়ক হিসেবে দেখা যাবে মাহবুবুর রশীদ মুন্না। এটি নির্মিত হচ্ছে হালিমা কথাচিত্রের ব্যানারে। রাজধানীর আফতাবনগরে চলে সিনেমাটির দৃশ্যধারণ। নিপুণ বলেন, 'শিল্পী সমিতির নির্বাচনের আগে সিনেমাটির শুটিং শুরু করেছিলাম। সিনেমাটির গল্প, চরিত্র, চিত্রনাট্য ও নির্মাণশৈলী সবকিছুতেই ভালোবাসার আবেশ রয়েছে। আশা করি, দর্শকের ভালো লাগবে।' এছাড়া শহিদ রায়হানের 'মনোলোক' এবং দেলোয়ার জাহান ঝন্টুর 'সুজন মাঝি' নামের দু'টি সিনেমাও হাতে রয়েছে বলে জানালেন তিনি। এর মাঝে সোহানুর রহমান সোহান পরিচালিত একটি জনসচেতনতামূলক ওভিসির কাজ করেছেন এই তারকা। চলমান সময় ও সিনেমার বর্তমান ও ভবিষ্যৎ নিয়ে নিপুণ আক্তার বলেন, বর্তমান সময়টা ভালোই কাটছে। কিন্তু ক্রাইসিসও আছে। অভিনয়ের পাশাপাশি টিউলিপ এন্টারটেইনমেন্ট নামের একটি প্রযোজনা সংস্থা আছে। এছাড়া একটি বিউটি পার্লারও পরিচালনা করছি। এর মধ্যেও বর্তমানে বিভিন্ন অনুষ্ঠানে বিশেষ করে সিনেমা সংক্রান্ত অনুষ্ঠানগুলোতে উপস্থিত থাকতে হচ্ছে। কষ্ট হলেও খারাপ লাগে না। সিনেমা আমার প্রাণের জায়গা। এটাই আমার আসল কাজ। আর চলচ্চিত্র বিষয়ে বলব, আমাদের চলচ্চিত্র এখন অনেকখানি বদলে গেছে। এখন কিন্তু নায়ক-নায়িকানির্ভর সিনেমা হচ্ছে না। গল্পই এখন সিনেমার মূল নায়ক। এই গল্পগুলো আরও আগে আসা উচিত ছিল। ১০ বছর আগে এরকম গল্পভিত্তিক সিনেমা এলে আজ চলচ্চিত্রের এই অবস্থা হতো না। প্রধানমন্ত্রীও সহযোগিতা করছেন। দেরিতে হলেও আমি অনেক আশাবাদী আমাদের ইন্ডাস্ট্রি নিয়ে।'
  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

উপরে