৪৮ ঘন্টা বন্ধ থাকার পর পাবনা মানসিক হাসপাতালে রোগী ভর্তি শুরু

৪৮ ঘন্টা বন্ধ থাকার পর পাবনা মানসিক হাসপাতালে রোগী ভর্তি শুরু

আদালত কর্তৃক হাসপাতালে টেন্ডারের উপরে অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞা, খাবার ও আর্থিক সংকটের কারণে ৪৮ ঘন্টা বন্ধ থাকার পর দেশের একমাত্র বিশেষায়িত পাবনা মানসিক হাসপাতালে রোগী ভর্তির কার্যক্রম শুরু হয়েছে।

বিভিন্ন গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশের পর টনক নড়ে স্বাস্থ্য দপ্তরের উর্ধতন কর্তাদের। সোমবার সকালে মৌখিক আদেশের প্রেক্ষিতে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ হাসপাতালের বহিঃ বিভাগে ফ্রি বেডে ভর্তি কার্যক্রম শুরু করেন। এমন তথ্য নিশ্চিত করে হাসপাতালে ভারপ্রাপ্ত পরিচালক ডা. রতন কুমার রায়ের স্বাক্ষরিত এক অফিস আদেশ জারী করা হয়।

ভারপ্রাপ্ত পরিচালক নিজ কার্যালয়ে দুপুর বারোটায় বলেন, জরুরী এক ফ্যাক্স বার্তা এসেছে। সেখানে তাকে স্বাভাবিক কার্যক্রম চালু রাখার তাগিদ দেয়া হয়েছে।

ওই স্মারকে মানসিক হাসপাতাল, পাবনার স্মারক নং মহাপাপ/প্রশা/২০২২/২৩১৭ তারিখ: ১১/০৯/২০২২ইং মোতাবেক পত্র হাসপাতালে যে রোগী ভর্তি রাখার নির্দেশ দেয়া হয়েছিল তা বাতিল করা হলো এবং হাসপাতালে বহির্বিভাগে পূর্বের ন্যায় রোগী ভর্তির কার্যক্রম চলমান রাখার নির্দেশ দেয়া হলো।

এর আগে খাবার ও আর্থিক সংকটের কারণে দেশের একমাত্র বিশেষায়িত পাবনা মানসিক হাসপাতালে ফ্রি বেডে রোগী ভর্তি বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছিল। একই সঙ্গে ফ্রি বেডে চিকিৎসাধীন রোগীদের বাড়ি পাঠিয়ে দেওয়া নির্দেশনা দেয়া হয়েছিল। তবে পেইড বেডে রোগী ভর্তি চলছিল।

রোববার হাসপাতালের পরিচালক (ভারপ্রাপ্ত) ডা. রতন কুমার রায় স্বাক্ষরিত এক অফিস আদেশে এ নির্দেশনা দেওয়া হয়। এর আগে শনিবার সকাল থেকেই হাসপাতালে রোগী ভর্তি বন্ধ হয়ে যায়।

রোববারের আদেশে বলা হয়েছিল, আদালত কর্তৃক হাসপাতালের টেন্ডার কার্যক্রমের ওপর অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞা জারী করায় টেন্ডার কার্যক্রম সম্পন্ন করা সম্ভব হয় নাই। যার দরুন রোগীদের পণ্য সরবরাহের জন্য ঠিকাদার নিযুক্ত হয় নাই। ভর্তি রোগীদের পণ্য/খাবার সরবরাহের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য একাধিক বার উর্দ্ধধন কর্তৃপক্ষকে পত্র মারফত এবং সরাসরি অবহিত করা হয়েছে। উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষ কর্তৃক ভর্তি রোগীদের পণ্য/খাবার সরবরাহের জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ বা নির্দেশনা প্রদান না করায় রোগীদের পণ্য/খাবার সরবরাহ চলমান রাখা সম্ভব হচ্ছে না। পুনরাদেশ না দেয়া পর্যন্ত অত্র হাসপাতালের বহি:বিভাগে রোগী ভর্তি বন্ধ রাখার নির্দেশ প্রদান করা হলো। ভর্তি রোগীদের পর্যায়ক্রমে বাড়িতে পাঠানোর জন্য সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ডের কনসালটেন্ট ও ওয়ার্ড ডাক্তারদের নির্দেশ প্রদান করা হলো।

বহির্বিভাগে দায়িত্ব পালনরত চিকিৎসক ডা. এ কে এম‌ শফিউল আযম বলেন, আমাদের পরিচালক স্যারের নির্দেশে আমরা ভর্তির কার্যক্রম বন্ধ রেখেছিলাম, আজকে (সোমবার) আবার স্যারের আরেক আদেশ পেয়ে ভর্তি কার্যক্রম আগের মত স্বাভাবিকভাবে করছি।

হাসপাতালের পরিসংখ্যা সূত্রে জানা গেছে, ৫০০ শষ্যার এই হাসপাতালে এখন আনুমানিক ৪৮০ জন রোগী ভর্তি আছে। এর মধ্যে ১৫০ জনের মতো পেইড বেডে ভর্তি। বাকি রোগীগুলো ফ্রি বেডের।

হাসপাতালের পরিচালক (ভারপ্রাপ্ত) ডা: রতন কুমার রায় বলেন, আমরা অনেকবার বিষয়টি সমাধানের জন্য উধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে অনুরোধ জানিয়েছি, কিন্তু লাভ হয়নি। বাধ্য হয়ে আমরা রোগী ভর্তি বন্ধ রেখেছিলাম। আমরা চাই দ্রুত বিষয়টি সমাধান হোক। রোগী ভর্তি বন্ধ করার পর ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ আমাদের আশ্বাস দিয়েছে, ফলে আজকে থেকে আবারও রোগী ভর্তি কার্যক্রম শুরু করেছি।

উল্লেখ্য, গত ১৪ জুন ২০২১ রোজ এন্টারপ্রাইজ নামে পাবনা মানসিক হাসপাতালে রোগীদের খাবার সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠান টেন্ডারে দ্রব্যের নাম উল্লেখ করা জটিলতা নিয়ে পাবনা জজ কোর্টে একটি মামলা দায়ের করলে আদালত ২৯ জুন ২০২১ আদালত সার্বিক বিবেচনায় পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত বিবাদীর বিরুদ্ধে অন্তবর্তীকালীন নিষেধাজ্ঞা জারি করলে শুরু হয় জটিলতা।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

আরও খবর

Copyright JaiJaiDin ©2022

Design and developed by Orangebd


উপরে