বৃহস্পতিবার, ২১ জানুয়ারি ২০২১, ৬ মাঘ ১৪২৭

এক পটকা মাছে ৩০ জনের মৃত্যু হতে পারে

এক পটকা মাছে ৩০ জনের মৃত্যু হতে পারে

বিষাক্ত মাছ পটকা। দেশের প্রায় সব জায়গায় এ মাছ পাওয়া। পটকা মাছ খেয়ে মানুষের মৃত্যু হওয়ার খবরও মাঝে মাঝে পাওয়া যায়। বুধবার রাতে (২৩ ডিসেম্বর) মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলে বউ-শাশুড়ি মারা গেছেন এ মাছ খেয়ে। ২০১৫ সালে সিলেটের জৈন্তায় একই পরিবারের ছয়জন পটকা মাছের বিষক্রিয়ায় মারা গিয়েছেন।

তবে বিজ্ঞানীরা বলেন, এ মাছ এতই বিষাক্ত যে একটি মাছ খেয়ে মারা যেতে পারে অন্তত ৩০ জন। জাপানে পটকা মাছ খুবই জনপ্রিয়। তবে তারা রান্না করার আগে এ মাছ থেকে বিশেষভাবে বিষ আলাদা করে নেয়। তবে সে প্রযুক্তি এখনো আসেনি বাংলাদেশ। তাই এ মাছের বিষক্রিয়া থেকে বাঁচার একমাত্র উপায়, তা না খাওয়া।

পটকা মাছ নিয়ে অনেক গবেষণা হয়েছে। সরকারি পর্যায়ে ২০১৫ সালে সিলেট পাঁচজন মারা যাওয়ার ঘটনার পর ব্যাপক কাজ করেছে মৎস্য বিভাগ।

মৎস্য বিভাগের গবেষণা থেকে পাওয়া এ তথ্য জানিয়েছেন মৌলভীবাজারের সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তা সুলতান মাহমুদ। তিনি জানান, মানুষ এ মাছ সম্পর্কে জানে না বলেই খায়। আর সে কারণেই মারা যায়।

জানা গেছে পটকা মাছ বা Puffer Fish জাপানে ফুগো মাছ বলে পরিচিত। এটি আসলে বিষাক্ত জলজ প্রাণী বা মাছ। এ মাছে রয়েছে ক্ষতিকর টিটিএক্স (TTX) বা টেট্রোডোটোক্সিন (Tetrodotoxin) বিষ। বাংলাদেশে সবচেয়ে বেশি যে পটকা মাছর প্রজাতি পাওয়া যায়, তার বৈজ্ঞানিক নাম, Tetraodon CutCutia, ইংরেজিতে এ প্রজাতিকে Ocellated Pufferfish বলে। মাছটিকে স্থানীয়ভাবে টেপা বা ফোটকা মাছও বলা হয়।

তবে যে নামেই ডাকা হোক না কেন তার বিষাক্ততা কোনো অংশে কমে যায় না। বিষাক্ত পটকার চামড়া, যকৃত এবং ডিম্বাশয়ে সবচেয়ে বেশি বিষ থাকে। পটকার বিষ পটাশিয়াম সায়ানাইডের চেয়েও বেশি বিষাক্ত। প্রায় ১ হাজার ২০০ গুণ বেশি বিষাক্ত। একটি পটকা মাছের বিষে ৩০ জনের মৃত্যু হতে পারে।

গবেষণায় দেখা গেছে, কোনো কোনো সামুদ্রিক পটকা প্রতি গ্রামে ৪০০০ এমইউ পর্যন্ত বিষ বহন করে। একজন সুস্থ-সবল ব্যক্তি এমন বিষাক্ত পটকার তিন গ্রাম খেলেই বিষাক্রান্ত হয়ে কিছুক্ষণের মধ্যে মারা যাবে। অনেকের ধারণা, পটকা মাছ রান্না করলে এর বিষ নষ্ট হয়ে যায়। এটা সম্পূর্ণ ভুল ধারণা। অত্যাধিক তাপে বিষের উপাদান এক অবস্থা থেকে অন্য অবস্থায় রুপান্তর হতে পারে। এতে বিষাক্ততার খুব একটা তারতম্য হয় না।

তবে, সাধারণ প্রজনন ঋতুতে বা বর্ষাকালে এ মাছটি বেশি বিষাক্ত হয়ে পড়ে। অন্য সময়ে মাছটি কমবেশি বিষাক্ত থাকে। পটকা মাছ খাওয়ার পর যে সব উপসর্গ দেখে আপনি বুঝবেন বিষক্রিয়ায় আক্রান্ত হয়েছেন কিনা?

১. পটকা মাছ খেয়ে কিছুক্ষণ পর বিষক্রিয়ায় বমি হতে পারে বা বমি বমি ভাব হতে পারে।

২. মাথা ঘোরানোর, মাথাব্যথা ও আলোর প্রতি সংবেদনশীলতা বেড়ে যাবে।

৩. তলপেট ব্যথা ও ডায়েরিয়া হতে পারে।

৪ শরীর অসাড় হয়ে পড়া, হাত ও পায়ের পেশি দুর্বল হয়ে নিস্ক্রীয় হয়ে যেতে পারে।

৫. হাঁটা-চলার অক্ষমতা ও স্বাভাবিক চিন্তা প্রকাশ বাধাগ্রস্ত হতে পারে।

৬. কিছু কিছু রোগীর ক্ষেত্রে অশ্রাব্য ভাষায় গালাগাল করতে পারে।

যাযাদি/ এমএস

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

আরও খবর

Copyright JaiJaiDin ©2021

Design and developed by Orangebd


উপরে