পুঁজি ফিরেছে সাড়ে ২৯ হাজার কোটি টাকা

পুঁজি ফিরেছে সাড়ে ২৯ হাজার কোটি টাকা

অনলাইনে প্রতারণামূলক বিজ্ঞাপন সরাতে ব্যর্থ হয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্ম ফেসবুক এবং সার্চ ইঞ্জিন জায়ান্ট গুগল। সম্প্রতি ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ সংস্থা হুইচ?-এর এক গবেষণায় এ তথ্য উঠে এসেছে। গবেষণা প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে, ৩৪ শতাংশ স্ক্যাম বিজ্ঞাপনের তথ্য সরাতে ব্যর্থ হয়েছে গুগল এবং ২৬ শতাংশ সরাতে ব্যর্থ হয়েছে ফেসবুক।

ফেসবুক এবং গুগল উভয় প্রতিষ্ঠান বলছে, তারা প্রতারণামূলক বিজ্ঞাপনগুলো সরিয়ে নিয়েছে। কিন্তু হুইচ? মনে করছে, এ ব্যাপারে তাদের আরও কঠোর পদক্ষেপ নেওয়া উচিত ছিল। তাদের গবেষণা প্রতিবেদনে বলা হয়-

ফেসবুকের স্ক্যাম বিজ্ঞাপনে রিপোর্ট না করার পেছনে অধিকাংশ ব্যবহারকারী জানিয়েছেন, তারা মনে করেন যে এতে তাদের অ্যাকাউন্টের নিরাপত্তা বিঘ্নিত হবে। অন্যদিকে গুগলের স্ক্যাম বিজ্ঞাপনে অনেকেই রিপোর্ট করতে জানেন না।

সতর্ক করা হচ্ছে

হুইচ? বলছে, ‘অনলাইন প্ল্যাটফর্মে প্রতারণামূলক বিজ্ঞাপন দেখানোর সময় ব্যবহারকারীদের হাতে রিপোর্ট করার অপশন রয়েছে। যাতে ব্যবহারকারীরা প্রতারণামূলক বিজ্ঞাপন থেকে রক্ষা পায়।’

হুইচ?-এর ভোক্তা অধিকার বিশেষজ্ঞ অ্যাডাম ফ্রেঞ্চ বলেন, ‘প্রতারণামূলক বিজ্ঞাপন সরানোর জন্য ফেসবুক এবং গুগলসহ অন্যান্য প্রযুক্তি বিষয়ক প্রতিষ্ঠান, নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষ ও সরকারকে একযোগে কাজ করতে হবে। অনলাইন প্ল্যাটফর্মগুলোকে অবশ্যই প্রতারণামূলক বিজ্ঞাপন সরানোর দায়িত্ব নিতে হবে, ভুয়া কনটেন্টের ব্যাপারে কঠোর অবস্থান নিতে হবে এবং সরকারকে সংশ্লিষ্ট বিষয়ে আইন প্রণয়ন করতে হবে।’

ফেসবুক ও গুগলের ভাষ্য

ফেসবুকের একজন প্রতিনিধি বলেন, ‘সোশ্যাল মিডিয়াটিতে প্রতারণামূলক কার্যক্রম অনুমোদিত নয় এবং যুক্তরাষ্ট্রে আমরা একাধিক পেজের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিয়েছি।’

একই সময় গুগল জানায়, তারা ৩ কোটি ১০ লাখের বেশি বিজ্ঞাপন সরিয়ে দিয়েছে বা ব্লক করেছে। সার্চ ইঞ্জিন প্রতিষ্ঠান বলেছে, ‘অনলাইনে স্ক্যাম বিজ্ঞাপনগুলো আমরা সবসময় পর্যবেক্ষণ করি। প্রতিষ্ঠানের নীতিমালা লঙ্ঘন করলেই আমরা সাইট ব্লক করে দিই বা কনটেন্ট সরিয়ে দিই।’

গুগল আরও বলেছে, ‘এ ব্যাপারে আমাদের কঠোর নীতিমালা রয়েছে এবং প্রতারণামূলক বিজ্ঞাপন দেখতে পেলেই আমরা সেটি সরিয়ে দিই।’ সূত্র: বিবিসি।

যাযাদি/এসআই

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

আরও খবর

Copyright JaiJaiDin ©2021

Design and developed by Orangebd


উপরে