শনিবার, ১৩ জুলাই ২০২৪, ২৮ আষাঢ় ১৪৩১

চীন-ভারত সীমান্তে তীব্র উত্তেজনা, সংঘাতের শঙ্কা

যাযাদি ডেস্ক
  ১০ জুলাই ২০২৪, ০৯:৩৩
-ফাইল ছবি

এশিয়ার বৃহত রাষ্ট্র গণচীন। আর দক্ষিণ এশিয়ার ভারত। এই দুই দেশের মধ্যে রয়েছে বিশাল সীমান্ত এলাকা। আর এই সীমান্তে বিভিন্ন ইস্যুতে তীব্র মতবিরোধের সৃষ্টি হয় দুই দেশের মধ্যে। যার ফলে মাঝে মধ্যে সংঘাত বেধে যায়। বিশেষ করে লাদাখ ও কাশ্মীর সীমান্তে প্রায় দুুই দেশের সেনারা যুদ্ধে জড়িয়ে পড়ে।

এবার চীনের সীমান্তবর্তী অরুণাচল প্রদেশে ১২টি জলবিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণের কাজ গতিশীল করতে ১০০ কোটি ডলার ব্যয়ের পরিকল্পনা চূড়ান্ত করেছে ভারত।

দুই দেশের সরকারী সূত্র জানিয়েছে, চীনের দাবিকৃত অঞ্চলে নয়াদিল্লির এমন পদক্ষেপ চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী দুই দেশের মধ্যে ফের উত্তেজনা ছড়িয়ে দিতে পারে।

ভারতের কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামন সম্প্রতি উত্তর-পূর্ব হিমালয়ের এই অঞ্চলে প্রতিটি জলবিদ্যুৎ প্রকল্পের জন্য প্রায় ৯ কোটি ডলার আর্থিক সহায়তার অনুমোদন দিয়েছেন। এই প্রকল্পের অধীনে অরুণাচল প্রদেশের ১২টি জলবিদ্যুৎ প্রকল্পের জন্য প্রায় ৯ হাজার কোটি রুপি বরাদ্দ দেয়া হবে। যাদের বিষয়টি সম্পর্কে সরাসরি জ্ঞান রয়েছে।

এই মেগাপ্রকল্পটি সম্ভবত দেশটির উত্তর-পূর্বের রাজ্যগুলোর সমর্থন পাবে। জলবিদ্যুৎ কেন্দ্রগুলোর পরিকল্পনাগুলো ২০২৪-২৫ অর্থবছরের বাজেটে ঘোষণা করা হবে বলে আশা করা হচ্ছে। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সরকার আগামী ২৩ জুলাই প্রকল্পগুলোর উন্মোচন করবে।

একাধিক সূত্র জানিয়েছে, গোপনীয় তথ্য হওয়ার কারণে নাম প্রকাশ করতে অস্বীকার করেছেন তারা। ভারতীয় অর্থ ও বিদ্যুৎ মন্ত্রণালয় এবং চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সংবাদ সংস্থা রয়টার্সের সঙ্গে এ বিষয়ে সাড়া দেয়নি।

ভারত এবং চীনের মধ্যে দুই হাজার ৫০০ কিলোমিটার সীমান্ত রয়েছে যার বেশিরভাগই অনির্ধারিত। সীমান্ত নিয়েই ১৯৬২ সালে যুদ্ধে জড়িয়েছিল দুই দেশ। ভারত দাবি করে অরুণাচল প্রদেশ দেশটির অবিচ্ছেদ্য অংশ, কিন্তু চীন দাবি করে যে এটি দক্ষিণ তিব্বতের একটি অংশ। তাই এই বিতর্কিত অঞ্চলে ভারতীয় অবকাঠামো নির্মাণের প্রকল্পে তীব্র বিরোধিতা করছে বেইজিং।

যাযাদি/ এস

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

উপরে