মিয়ানমারে সাজা ভোগের পর দেশে ফিরল ২৪ বাংলাদেশি

মিয়ানমারে সাজা ভোগের পর দেশে ফিরল ২৪ বাংলাদেশি

মিয়ানমারে বিভিন্ন মেয়াদে সাজাভোগের পর দেশে ফিরেছেন ২৪ বাংলাদেশি। এদের মধ্যে টেকনাফের ১২ জন, রাঙামাটির আটজন, বান্দরবানের তিনজন এবং রাজশাহীর একজন। মঙ্গলবার দুপুরে তাদের টেকনাফ জেটিঘাটে ফেরত আনা হয়।

টেকনাফ ২ বিজিবি ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লে. কর্নেল ফয়সল হাসান খান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেন।

ফেরত আসা ব্যক্তিরা হচ্ছেন- রাঙামাটি জেলার কাউখালী থানার ধুবুয়া লামারপাড়ার চাইরুই মারমার পুত্র পাইসেহ্লা, টুইকাহার ওরফে সানসুর পুত্র মং চিং মামরা, কুলার পাড়ার থৈইনু ওরফে থৈইনুর পুত্র থৈঅংরী মারমা, টেকনাফের হোয়াইক্যং উত্তর পাড়ার মো. গিয়াস উদ্দিনের পুত্র জুনায়েদ, বান্দরবানের কুহালংয়ের ক্যচিং মংয়ের পুত্র চাই চাই প্রু মারমা, হ্নীলা দমদমিয়ার করিমুল্লাহর পুত্র রহমত উল্লা, শাহপরীর দ্বীপ উত্তর পাড়ার লাল মিয়ার পুত্র এনায়েত উল্লাহ, শাহপরীর দ্বীপের আবদুর শুক্কুরের (মিজি) পুত্র মোহাম্মদ আয়েস, উত্তর পাড়ার মৃত জালাল আহমদের পুত্র সিরাজুল্লাহ, উলুবনিয়ার আব্দুল জলিলের পুত্র রুবেল, নাইক্ষ্যং পাড়ার মোহাম্মদ শরীফের পুত্র মোহাম্মদ উল্লাহ, বড়তলীর আমানুল্লাহের পুত্র মোহাম্মদ সলিম, বান্দরবানের কুহালংয়ের জহির আহমদের পুত্র মোহাম্মদ সাদেক, হোয়াইক্যং লম্বাবিলের মো. ইসমাঈলের পুত্র আব্দুল কাদের, একই গ্রামের জকির আহমদের পুত্র অলি আহমেদ, রাজশাহী পুটিয়া থানার মধুখালী গ্রামের দমদমিয়ার ইয়াসিনের পুত্র মো. সাবুর, হ্নীলা জাদিমোরার মো. হোসাইনের পুত্র ইমান হোসাইন, বান্দরবান কুহালংয়ের উথেইসেনের পুত্র পুকুয়েটসে, রাঙামাটি জেলার কাউখালী থানার পূর্ব সোনাইছড়ির চাইথৈয়াইউ মারমার মেয়ে মিস অঞ্জনা মারমা, উচিংনু মারমার পুত্র আগ্রা মারমা, একই থানার পশ্চিম মোনাইপাড়ার থৈসামং মারমার পুত্র কংচিংউ মারমা, দুসরী পাড়ার উশোপ্রু মারমার পুত্র সাথোয়াইমং মারমা, পাওপাড়ার মংসা মারমার পুত্র থৈয়াইপ্রু অং মারমা এবং টেকনাফ আলী পাড়ার মৃত মীর আহমেদের পুত্র নুরুল আলমসহ ২৪ জন।

টেকনাফ ২ বিজিবি ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লে. কর্নেল ফয়সল হাসান খান জানান, সকাল সাড়ে ৯টায় মিয়ানমারের অভ্যন্তরে মন্ডু ১নং ট্রানজিট পয়েন্টে ৯ সদস্য বিশিষ্ট বাংলাদেশ প্রতিনিধি দল ও ৭ সদস্যবিশিষ্ট মিয়ানমার প্রতিনিধি দলের সঙ্গে পতাকা বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। বাংলাদেশ প্রতিনিধি দলের নেতৃত্ব দেন টেকনাফ ২ বিজিবি ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লে. কর্নেল ফয়সল হাসান খান (বিজিবিএম,পিএসসি) এবং মিয়ানমার প্রতিনিধি দলের নেতৃত্ব দেন ৪নং বর্ডার গার্ড মিয়ানমার পুলিশ ব্র্যাঞ্চের কমান্ডিং অফিসার পুলিশ লে. কর্নেল জ লিং অং।

বৈঠক চলে প্রায় দুই ঘণ্টাব্যাপী। সৌহার্দপূর্ণ পরিবেশে বৈঠকে মাদক চোরাচালান প্রতিরোধ, মানব পাচার দমন এবং সীমান্তে সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড কঠোর হাতে দমানোসহ উভয় দেশের স্বার্থ সংশ্লিষ্ট বিষয়ে আলোচনা করা হয়। পরে মিয়ানমার কারাগারে বিভিন্ন মেয়াদে সাজাভোগকারী বাংলাদেশি নাগরিককে হস্তান্তর করা হয়।

ফেরত আসা সাজাভোগকারী নাগরিকদের উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এবং উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তার সমন্বয়ে প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে নেওয়া হয়েছে।

যাযাদি/ এস

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

আরও খবর

Copyright JaiJaiDin ©2021

Design and developed by Orangebd


উপরে