রোববার, ২৯ জানুয়ারি ২০২৩, ১৪ মাঘ ১৪২৯

রাজশাহীতে বিএনপি নেতাকর্মীদের ঢল

রাজশাহী প্রতিনিধি
  ০২ ডিসেম্বর ২০২২, ২০:৫৪
শুক্রবার বিকেলে রাজশাহী মাদ্রাসা মাঠের পাশের সড়কে অবস্থান নেয় বিভিন্ন জেলা থেকে আসা হাজার হাজার নেতাকর্মী-যাযাদি

রাজশাহীতে বিএনপির বিভাগীয় গণসমাবেশ আগামীকাল শনিবার। দলের চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তিসহ বিভিন্ন দাবিতে ঐতিহাসিক মাদ্রাসা মাঠে দুপুর ২টায় এই গণসমাবেশ অনুষ্ঠিত হবে। তবে চতুর্মুখী চাপের ভেতরেও কৌশলী হয়ে গণসমাবেশ সফলের চেষ্টা চালিয়েছে দলটি। পরিবহন ধর্মঘটের পর এবার সিএনজি, থ্রি হুইলার মালিকরাও ধর্মঘটের ডাক দিলেও রাজশাহীতে ঢল নামছে বিএনপি নেতাকর্মীদের।

পুলিশের কড়াকড়ি, আওয়ামী লীগের সতর্কবার্তা এবং বাস ও সিএনজি ধর্মঘটের  মধ্যে দলটির নেতারা রাজশাহীকে জনসমুদ্রে পরিণত করতে চান বিএনপি নেতারা।

গণসমাবেশের আগে শুক্রবার বিকেলে বাঁধাভাঙা ঢল নামে নেতাকর্মীদের। আগের দুদিন খণ্ড খণ্ডভাবে বিএনপির নেতাকর্মীরা এলেও শুক্রবার ছিল জনস্রোত। বিশেষ করে বিকেলে মাদ্রাসা মাঠের আশেপাশের সড়ক হাজার হাজার নেতাকর্মীর পদচারণায় মুখর হয়ে ওঠে। মুহুর্মুহু স্লোগানে প্রকম্পিত হয়ে ওঠে চারপাশ।

বগুড়া থেকে আসা নেতারা জানান, এই জেলা থেকে আট হাজার মোটরসাইকেলে এসেছেন বিপুলসংখ্যক নেতাকর্মী। চাঁপাইনবাবগঞ্জ, নাটোর, নওগাঁ, জয়পুরহাট, সিরাজগঞ্জ ও পাবনা থেকেও একইভাবে বিএনপির নেতাকর্মীরা এসেছেন মোটরসাইকেল, সাইকেল ও নসিমনে চড়ে। শুধু সড়কপথেই নয়, নদীপথ পাড়ি দিয়েও রাজশাহীর গণসমাবেশে যোগ দিতে এসেছেন নেতাকর্মীরা।

রাজশাহী জেলা বিএনপির আহ্বায়ক আবু সাঈদ চাঁদ জানান, বাঘা ও চারঘাট থেকে বিপুলসংখ্যক নেতাকর্মী পদ্মা পাড়ি দিয়ে গণসমাবেশের উদ্দেশে রওয়ানা হন। কিন্তু নদীপথেও নৌপুলিশ বাধা দেয়। তবে বাধা পেড়িয়ে নেতাকর্মীরা গন্তব্যে পৌঁছেছেন।

তিনি আরও বলেন, ‘যে জোয়ার তৈরি হয়েছে তা আর থামানো যাবে না। দাবি পূরণ না হওয়া পর্যন্ত বিএনপির নেতাকর্মীরা আর ঘরে ফিরবে না। ১০ ডিসেম্বরের পর আর এই সরকার ক্ষমতায় থাকবে না।’

শুক্রবার সন্ধ্যায় মুহুর্মুহু তালি ও শ্লোগানে স্লোগানে উত্তাল হয়ে ওঠে আশোপাশের এলাকা। প্রথমদিকে পুলিশ নিয়ন্ত্রণ করার চেষ্টা করলেও শেষ পর্যন্ত তা আর ধরে রাখা যায়নি।  রঙ-বেরঙের টি-শার্ট ও ক্যাপ পরে দলে দলে ছুটে আসেন ঈদগাহ মাঠের দিকে। হাজার হাজার নেতাকর্মীর উপস্থিতিতে ভরে যায় পুরো এলাকা।

বগুড়ার শাহজাহানপুর থেকে আসা সাইদুল ইসলাম বলেন, ‘সরকার ধর্মঘট দিয়ে গণসমাবেশ বানচাল করার চেষ্টা করেছিল। কিন্তু এই জনসমুদ্রই প্রমাণ করেছে দেশের মানুষ আওয়ামী লীগকে আর ক্ষমতায় দেখতে চায় না। তারা ভোটের অধিকার চাই। বেঁচে থাকার অধিকার চাই’। 

যাযাদি/ সোহেল

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

উপরে