মাফিয়াদের নিয়ে দেশ চালাচ্ছে সরকার: মির্জা ফখরুল

মাফিয়াদের নিয়ে দেশ চালাচ্ছে সরকার: মির্জা ফখরুল

দেশের প্রত্যেকটি ক্ষেত্রেই মাফিয়ারা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে বলে দাবি করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

রোববার (২ মে) দুপুরে এক ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন। শনিবার (১ মে) অনুষ্ঠিত বিএনপির স্থায়ী কমিটির বৈঠকের সিদ্ধান্তগুলো তুলে ধরতে এ সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়।

এসময় মির্জা ফখরুল বলেন, ‘এখন আমাদের সবচেয়ে গুরুত্ব দিতে হচ্ছে করোনার টিকাকে। কিন্তু এ কার্যক্রম টিকার অভাবে হঠাৎ করে বন্ধ। আমরা বলতে চাই, সরকার কতটা দায়িত্বহীন হলে, কতটা অযোগ্য হলে, জনগণের সঙ্গে তাদের সম্পর্ক কতটা বিচ্ছিন্ন হলে এই ধরনের একটা সঠিক সিদ্ধান্ত নিতে পারে নাই। তার কারণ শুধুমাত্র দুর্নীতি। একটি উৎস থেকে টিকা সংগ্রহের উদ্যোগের কারণে আজ টিকা কার্যক্রম বন্ধ করে দিতে হয়েছে।’

‘বর্তমান সরকার মূলত কতগুলো মাফিয়া চক্রের মধ্যে একত্রিত হয়েছে’ মন্তব্য করে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘তাদের নিয়ে তারা দেশ চালাচ্ছে। একটা মাফিয়া সরকার তৈরি হয়েছে। এটা নিয়ে আমরা অনেকবারই কথা বলেছি। প্রত্যেকটি ক্ষেত্রে মাফিয়ারাই আজকে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে দেশে। বাংলাদেশের পরিণতি যে এটা হবে আমরা আগে কখনও কল্পনাও করতে পারিনি। আজকে দুর্ভাগ্য যে স্বাধীনতার ৫০ বছর পরেও এ রকম একটা ভয়ঙ্কর পরিস্থিতি দেখতে হচ্ছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘সে কারণে আমরা বারবার বলে আসছি, এর থেকে মুক্তি পেতে হলে অবশ্যই এখানে একটা নিরপেক্ষ, সুষ্ঠু নির্বাচন হতে হবে। সেই সুষ্ঠু অবাধ নির্বাচনে জন্য একটা নিরপেক্ষ সরকার দরকার হবে। এ জন্য আমাদের জনগণকে ঐক্যবদ্ধ হয়েই যারা অবৈধভাবে ক্ষমতা দখল করে আছে, তাদের সরিয়ে দিতে হবে। সত্যিকার অর্থে জনগণের সরকার প্রতিষ্ঠা করতে হবে।’

বিএনপির মহাসচিব বলেন, ‘স্থায়ী কমিটির বৈঠকে মনে করা হয়, দেশে প্রাতিষ্ঠানিক ও অপ্রাতিষ্ঠানিক কোটি শ্রমিকের বহুমুখী কল্যাণে এই অনির্বাচিত সরকারর সম্পূর্ণ ব্যর্থ হয়েছে। শ্রমিকদের ন্যায্য মজুরি নিশ্চিত, অন্ন, বস্ত্র, বাসস্থান, স্বাস্থ্যসেবার নিশ্চিয়তা দেওয়া ও তাদের সন্তানদের উপযুক্ত শিক্ষা নিশ্চিত করতে পারেনি সরকার। বিশেষ করে কোভিডের সংক্রমণের ফলে লকডাউনে চাকরিচ্যুতি, বেতন না পাওয়া, শ্রমিকদের মানবেতর জীবনের দিকে ঠেলে দিয়েছে সরকার।’

অবিলম্বে বিএনপির প্রস্তাবিত প্রণোদনা অনুযায়ী প্রাতিষ্ঠানিক ও অপ্রাতিষ্ঠানিক শ্রমিকদের কর্মপক্ষে তিন মাসের জন্য ১৫ হাজার টাকা করে এককালীন অনুদান দেওয়া আহ্বান জানান মির্জা ফখরুল।

ভারত একতরফাভাবে অক্সিজেন রফতানি বন্ধের ঘোষণায় দলের সভায় গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করা হয় বলে উল্লেখ করেন মির্জা ফখরুল। তিনি বলেন, ‘করোনা রোগীর চিকিৎসায় অত্যন্ত জরুরি অক্সিজেন রফতানি বন্ধের সিদ্ধান্ত কোনো মতেই বন্ধুসুলভ আচরণ হতে পারে না। ইতোপূর্বেও বাংলাদেশের জরুরি প্রয়োজনের সময় বিভিন্ন জরুরি পণ্যের রফতারি একতরফা ভাবে বন্ধ করায় চরম বিপদাপন্ন হতে হয় আমাদের। পেঁয়াজের সময়ও একই ঘটনা ঘটে। বিভিন্ন বিষয়ে যখন সংকট তৈরি হয়, শুধুমাত্র একটি দেশ ভারতের ওপর নির্ভর করার কারণে আমরা বড় রকমের সংকটে পড়ে যাই।’

শুধুমাত্র ভারতের ওপর নির্ভর না করে বিকল্প উৎস থেকে অক্সিজেনসহ নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্য আমদানির ব্যবস্থা নিতে সরকারকে আহ্বান জানিয়ে মির্জা ফখরুল বলেন, দেশে অক্সিজেন উৎপাদনের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।

সংবাদ সম্মেলনের শুরুতে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘স্থায়ী কমিটির বৈঠকের শুরুতে খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থার ক্রমোন্নতিতে সন্তোষ প্রকাশ করা হয়। একইসঙ্গে তার পরিপূর্ণ রোগমুক্তির জন্য দোয়া কামনা করা হয়।’

মির্জা ফখরুল জানান, ‘বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের সভাপতিত্বে বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ব্যারিস্টার জমির উদ্দিন সরকার, মির্জা আব্বাস, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, ড. মঈন খান, নজরুল ইসলাম খান, আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী, সেলিমা রহমান ও ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু।’

যাযাদি/এসআই

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

আরও খবর

Copyright JaiJaiDin ©2021

Design and developed by Orangebd


উপরে