সিরিজ জিততে বাংলাদেশের টার্গেট ১৪৯

সিরিজ জিততে বাংলাদেশের টার্গেট ১৪৯

প্রথম ওয়ানডের মতো দ্বিতীয়টিতেও ধুঁকেছে ওয়েস্ট ইন্ডিজের ব্যাটসম্যানরা। টাইগারদের বোলিংয়ের সামনে অসহায় ছিল এমব্রিসরা। ৪৩.৪ ওভারে সবকটি উইকেট হারিয়ে ১৪৮ রানেই গুটিয়ে যায় উইন্ডিজদের ইনিংস। সিরিজ জয় নিশ্চিত করতে বাংলাদেশের তুলতে হবে ১৪৯ রান।

সিরিজ জয় নিশ্চিত করতে দ্বিতীয় ওয়ানডে খেলতে নেমেছে বাংলাদেশ দল। প্রথম ওয়ানডে ছয় উইকেটের জয় পাওয়ায় সিরিজ জিততে আত্মবিশ্বাসী স্বাগতিকরা। অন্যদিকে আজকের ম্যাচটি জিতে সিরিজে টিকে থাকতে চায় সফরকারীরা। ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে সিরিজ জয় নিশ্চিতের ম্যাচে টস হেরে ফিল্ডিং পেয়েছে বাংলাদেশ।

দুই পাশ থেকে বল শুরু করলেন রুবেল ও মোস্তাফিজ। শুরু থেকেই আটসাঁট বোলিংয়ে ক্যারিবিয় দুই ওপেনারকে চাপে রেখেছে টাইগার এই বোলিং জুটি। ৪.৫ ওভারে দলীয় ১০ রানে উইন্ডিজ শিবিরে প্রথম আঘাত হানেন মোস্তাফিজ। ক্যারিবিয় ওপেনার এমব্রিসকে মিরাজের তালুবন্দী করে সাজঘরে পাঠান মোস্তাফিজ।

প্রথম উইকেট পতনের পর উইকেটে থিতু হতে চেয়েছিলেন কিরন ওটলে ও অ্যান্ড্রে ম্যাকার্থি। তবে এই জুটিকে বেশি বড় হতে দেননি মিরাজ। দলীয় ৩৬ রানে তামিমের ক্যাচ বানিয়ে কিরন ওটলে'কে(২৪) সাজঘরে পাঠান মিরাজ। দলের স্কোরে ১ রান যোগ হতেই উইন্ডিজ শিবিরে মিরাজের ফের আঘাত। এবার বোল্ড করে জশুয়া ডি সিলভাকে প্যাভিলিয়নে ফেরত পাঠান মিরাজ। পরের ওভারে আরেকটি উইকেট তুলে নেন সাকিব আল হাসান। তাকে স্লগ সুইপ করতে গিয়ে বল মিস করে বোল্ড হন আন্দ্রে ম্যাকার্থি (৩)।

দুই ওভার পর পঞ্চম উইকেট হারায় ক্যারিবীয়রা, মেহেদি মিরাজের আরেক ওভারে। ১৮তম ওভারের প্রথম তিন বলে রান নিতে না পারা ক্যারিবীয় অধিনায়ক জেসন মোহাম্মদ মিরাজের চতুর্থ ডেলিভারিটি স্লোয়ার লেগে পাঠিয়েই দৌড় দিয়েছিলেন, কিন্তু রান আর সম্পন্ন হয়নি। কাইল মায়ের্স (০) স্ট্রাইকিং এন্ডে পৌঁছার আগেই নাজমুল হাসান শান্তর থ্রোতে উইকেট ভেঙে দেন মুশফিকুর রহীম।

সাকিব আল হাসানের কাছে অধিনায়ক জেসন মোহাম্মদের উইকেট হারানোর পরের ওভারে হাসান মাহমুদ পান সফরকারীদের সপ্তম উইকেট। ২৫ বলে ২০ রান করে বোল্ড হন উইন্ডিজ ব্যাটসম্যান।

ওয়েস্ট ইন্ডিজের প্যাভিলিয়নে ফেরার মিছিলে এবার যোগ দিলেন রেমন রেইফার। ৩০তম ওভারের চতুর্থ বলে নিজের তৃতীয় উইকেট পেলেন মেহেদী হাসান মিরাজ। উইন্ডিজ ব্যাটসম্যানের বিরুদ্ধে এলবিডাব্লিউর জোরালো আপিলে আম্পায়ার সাড়া না দিলে রিভিউ নেয় বাংলাদেশ এবং সিদ্ধান্ত যায় তাদের পক্ষে। ১২ বলে ২ রান করে অষ্টম ব্যাটসম্যান হিসেবে মাঠ ছাড়েন রেইফার।

বাংলাদেশের বিপক্ষে দ্বিতীয় ম্যাচে ১০০ রান করা নিয়ে সংশয়ে ছিল ওয়েস্ট ইন্ডিজ। কিন্তু রোভম্যান পাওয়েল ও আলজারি জোসেফ প্রতিরোধ গড়ে স্কোর একশ পার করেন। স্কোরবোর্ডে ১২০ রান তোলার পর তাদের বিচ্ছিন্ন করেন মোস্তাফিজুর রহমান। ৩২ রানের এই জুটি ভাঙে উইকেটকিপার লিটন দাশকে আলজারি ক্যাচ দিলে। ২১ বলে তিন চারে ১৭ রান করেন তিনি।

শেষদিকে আকিলা-পাওয়ালের ৪০ বলে ২৮ রানের জুটিতে রান বাড়লেও ১৪৮ রানেই গুটিয়ে যায় ক্যারিবীয়দের ইনিংস।

প্রথম ম্যাচে টাইগাররা ৬ উইকেটে জয় পেলেও দ্বিতীয় ম্যাচে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে হাল্কাভাবে নিচ্ছেন না স্বাগতিকরা। প্রথম ম্যাচে ব্যাট হাতে স্বাভাবিক হতে দেখা যায়নি টপঅর্ডার ব্যাটসম্যানদের।

করোনাভাইরাসে বিরতির পর আন্তর্জাতিক ম্যাচে ছন্দে ফেরা হয়ে ওঠেনি মুশফিক, মাহমুদউল্লাহ, সাকিবদের। তবে বল হাতে দুর্দান্ত কামব্যাক করেছে টাইগার বোলাররা।

অন্যদিকে ক্যারিবীয়ানদের মূল দলের অনেক খেলোয়াড় না আসায় প্রথম ম্যাচে অভিষেক হয়েছে ৬ ক্রিকেটারের। প্রথম ম্যাচের ভুল ত্রুটি শুধরে দ্বিতীয় ম্যাচে ঘুরে দাঁড়াতে চায় ওয়েস্ট ইন্ডিজ।

ম্যাচ জিতলেও বাংলাদেশ দলে আভাস ছিল পরিবর্তনের। তবে হয়নি, অপরিবর্তিত একাদশ নিয়েই মাঠে টাইগাররা। অন্যদিকে উইন্ডিজ দলে এক পরিবর্তন। ক্যারিবিয়ান একাদশে জায়গা পেয়েছেন কেজর্ন অতেলি।

বাংলাদেশ একাদশ:

তামিম ইকবাল, লিটন দাস, নাজমুল হোসেন শান্ত, সাকিব আল হাসান, মুশফিকুর রহিম, মাহমুদউল্লাহ, সৌম্য সরকার, মেহেদী হাসান মিরাজ, রুবেল হোসেন, মুস্তাফিজুর রহমান, হাসান মাহমুদ।

ওয়েস্ট ইন্ডিজ একাদশ:

জশুয়া ডা সিলভা, সুনীল অ্যাম্ব্রিস, জেসন মোহাম্মদ (অধিনায়ক), অ্যান্ড্রে ম্যাকার্থি, রেমন রেইফ্রি, রোভমান পাওয়েল, কাইল মায়ার্স, ঙ্ক্রুমাহ বোনার, অ্যাকেল হোসেন, অ্যালজারি জোসেপ এবং কিরন ওটলে (অভিষিক্ত)।

যাযাদি/ এমএস

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

আরও খবর

Copyright JaiJaiDin ©2021

Design and developed by Orangebd


উপরে