​রেকর্ড ভেঙে অলিম্পিকে চোখ মাবিয়ার

​রেকর্ড ভেঙে অলিম্পিকে চোখ মাবিয়ার

অনুমিতভাবেই মাবিয়া আক্তারের স্বর্ণপদক পাওয়ার কথা। কেননা তার জায়গায় এখনও কোনও বিকল্প নেই। হলোও তাই। আজ (বুধবার) বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশ গেমস ভারোত্তোলনে ৬৪ কেজি ওজন শ্রেণিতে সোনা জিতে সবাইকে নিজের দৃঢ় অবস্থান আবারও জানান দিয়েছেন এই স্বর্ণকন্যা।

ময়মনসিংহের জিমনেসিয়ামে মেয়েদের ৬৪ কেজি ওজন শ্রেণিতে আনসারের এই ভারোত্তোলক স্ন্যাচ এবং ক্লিন ও জার্কে রেকর্ড গড়ে সোনা জিতেছেন। মোট ওজন তুলেছেন ১৮১ কেজি। এর মধ্যে স্ন্যাচে ৮০ ও ক্লিন অ্যান্ড জার্কে ১০১ কেজি। সোনা জয়ের সঙ্গে নতুন রেকর্ডও হয়েছে। নিজের রেকর্ড নিজেই ভেঙেছেন মাবিয়া। ২০১৮ সালে আন্তঃসার্ভিস ভারোত্তলনে ১৭৯ কেজি তুলে রেকর্ড গড়েছিলেন। সেটি ভেঙে নতুন রেকর্ড গড়ে মাবিয়ার চোখ এখন টোকিও অলিম্পিকের দিকে।

টানা দুটি এসএ গেমসে সোনা জিতেছেন মাবিয়া। এরপর থেকে দেশেও নিজের পারফরম্যান্স দেখিয়ে আসছেন তিনি। এবার ৬৪ কেজি ওজন শ্রেণিতে অংশ নেওয়ার জন্য নিজের ওজনই কমিয়ে ফেলেছেন ১০ কেজি!

ময়মনসিংহ থেকে মাবিয়া বলেছেন, ‘আমার প্রিয় ইভেন্ট হলো ৬৩ কেজি ওজন শ্রেণি। কিন্তু এখন তা ৬৪ কেজিতে প্রতিযোগিতা করতে হচ্ছে। এজন্য আমাকে অনেক ঘাম ঝরাতে হয়েছে। ওজন কমাতে হয়েছে ১০ কেজির মতো। কেননা আমাকে যে করেই হোক ভালো পারফরম্যান্স করে দেখাতে হবে। অবশেষে সেই চেষ্টা সার্থক হয়েছে।’

নিজের রেকর্ড ভেঙে মাবিয়া চাওয়া টোকিও অলিম্পিকে জায়গা করে নেওয়া। এ মাসেই রয়েছে উজবেকিস্তানে বাছাই পর্ব। মাবিয়ার লক্ষ্য, ‘উজবেকিস্তানের প্রতিযোগিতায় ভালো করতে পারলে হয়তো টোকিও অলিম্পিকে খেলার টিকিট মিলবে। এজন্য অবশ্য আমাকে আরও পরিশ্রম করতে হবে।’

তবে ওজন তুলতে গিয়ে চোটের সম্মুখিন হয়েছিলেন মাবিয়া। বাঁ হাতের কনুইতে প্রচণ্ড ব্যথা পেয়েছেন। তারপরও ভারোত্তোলন করে গেছেন। বলতে গেলে ঝুঁকিই নিয়েছেন। তার ভাষায়, ‘ক্লিন অ্যান্ড জার্কে আমি ১০৩ কেজি উত্তোলন করে রেকর্ড আরও বাড়াতে চেয়েছিলাম। ওই সময় ব্যথা পাই। তারপরেও প্রতিযোগিতা থেকে সরে যায়নি। যে করেই হোক আমাকে সেরা হতে হবে। তবে এখন মনে হচ্ছে হাতে চিড় ধরেছে। তবে আমি আমার পারফরম্যান্সে খুশি।’

যাযাদি/এসআই

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

আরও খবর

Copyright JaiJaiDin ©2021

Design and developed by Orangebd


উপরে