​ শেখ জামালের বিপক্ষে আবাহনীর ৪৯ রানের জয়

​  শেখ জামালের বিপক্ষে আবাহনীর ৪৯ রানের জয়

গতকাল (রোববার) মিরপুরেই প্রাইম ব্যাংক ক্রিকেট ক্লাবের বিপক্ষে ব্যাট হাতে ধ্বংসলীলা চালান আবাহনীয় ওপেনার মুনিম শাহরিয়ার। টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটে প্রথমবারের মতো ফিফটির স্বাদ পাওয়া ইনিংসে থামেন ৯২ রানে। আজ (সোমবার) একই ভেন্যুতে আবার জ্বললো তার ব্যাট, এবার প্রতিপক্ষ শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাব। খেলেন ৪০ বলে ৭৪ রানের ঝড়ো ইনিংস।

মুনিমের সঙ্গে শেখ জামালের বিপক্ষে ম্যাচে ফিফটি পেয়েছেন নাজমুল হোসেন শান্ত। রানের জন্য সংগ্রাম করা এই বাঁহাতি ব্যটসম্যানের চলতি ঢাকা প্রিমিয়ার ডিভিশন ক্রিকেটের প্রথম অর্ধশতক এটি। বৃষ্টি আইনে শেখ জামালকে ৪৯ রানে হারিয়েছে মুশফিকুর রহিমের আবাহনী লিমিটেড। দলের জয়ে বল হাতে অবদান রেখেছেন পেসার মেহেদী হাসান রানা। দলীয় পঞ্চম ও নিজের প্রথম ওভারে বল করতে এসেই ৩ উইকেট তুলে নেন তিনি।

শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে টস জিতে আগে ব্যাট করতে নামে আবাহনী। তবে ইনিংসের শুরটা ভালো হয়নি তাদের। শুরুতেই ওপেনার নাঈম শেখের উইকেট হারিয়ে বসে তারা। এরপর দ্বিতীয় উইকেটে ৮৮ রানের জুটি গড়েন মুনিম ও শান্ত। শেখ জামালের বোলারদের শাসন করে ফিফটি তুলে নেন দুজনই।

এই ম্যাচে আলাদা করে দৃষ্টি কাড়েন মুনিম। আনকোরা এই ডানহাতি ব্যাটসম্যান গতকাল তামিম ইকবালদের সঙ্গে ঝড়ো ব্যাটিংয়ের পর আজও উইকেটের চারপাশে খেলেন দৃষ্টিনন্দন সব শট। পরে ৪০ বলে থামে তার ৭৪ রানের ইনিংস। টি-টোয়েন্টি সূলভ ১৮৫ স্ট্রাইক রেটের ইনিংসটি সাজান ৯টিন চার ও ৩টি ছয়ের মারে।

দীর্ঘদিন ধরে রানের জন্য সংগ্রাম করছেন শান্ত। শ্রীলঙ্কা সফরে টেস্টে শতক হানোর পর রান খরায় ভুগছিলেন তিনি। ডিপিএলের শেষদিকে এসে রানের দেখা পেলেও ইনিংস বড় করতে পারছিলেন না। আজ অর্ধশতক তুলে নেন এই বাঁহাতি ব্যাটসম্যান। ৪২ বলে ৬৫ রানে অপরাজিত থাকেন তিনি। তার ইনিংসটি আরও বড় হতো যদি না আবাহনীর ইনিংসের ১৮ ওভার ২ বলের সময় বৃষ্টি নেমে খেলা বন্ধ হতো।

বৃষ্টির পর আর ব্যাট করতে নামেনি আবাহনী। খেলা বন্ধের আগে তাদের সংগ্রহ ছিল ১৮১ রান। বৃষ্টির পর কমে যায় ম্যাচের দৈর্ঘ্য। শেখ জামালের সামনে নতুন লক্ষ্য দাঁড়ায় ১৩ ওভারে ১৪৭ রানের। এই টার্গেট টপকাতে নেমে সুবিধা করতে পারেনি ধানমন্ডির জায়ান্টরা। ম্যাচ হারে ৪৯ রানে।

দলীয় ১৪ রানেই সৈকত আলী ও জিয়াউর রহমানের উইকেট হারিয়ে বসে শেখ জামাল। পরে নুরুল হাসান সোহান সমান ২টি করে চার ও ছয় মেরে ম্যাচে কিছুটা রোমাঞ্চ ছড়ান, তবে লাভ হয়নি তাতে। সোহান ১১ বলে ২২ রান করে আউট হলে দ্রুত একে একে ফিরে যান তানবীর হায়দার (১), নাসির হোসেন (৬), ইলিয়াস সানিরা (৫)। এর আগে ইমরুল কায়েস ফেরেন ৮ রান করে।

মোহাম্মদ এনামুল শেষদিকে চেষ্টা চালালেও মেহেদী হাসান রানা, আরাফাত সানিদের বোলিং তোপে সুবিধা করতে পারেননি তিনি। ১৩ ওভার শেষে ৮ উইকেট হারানো শেখ জামালের ইনিংস থামে ৯৮ রানে। এতে ৪৯ রানের জয় পায় আবাহনী লিমিটেড। শেষপর্যন্ত এনামুল অপরাজিত থাকেন ২৯ রানে। আবাহনীয় হয়ে মেহেদী ৩টি ও সানী ২ উইকেট নেন।

যাযাদি/এসআই

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

আরও খবর

Copyright JaiJaiDin ©2021

Design and developed by Orangebd


উপরে