বাজেট বিশ্লেষণ ও প্রতিক্রিয়া

দেশি-বিদেশি বিনিয়োগ আকৃষ্ট, ব্যবসা ব্যয়-হ্রাস, বৈশ্বিক প্রতিযোগিতামূলক অবস্থান, অন্তর্ভুক্তিমূলক প্রবৃদ্ধি এবং দারিদ্র্য বিমোচনের লক্ষ্যে এই বাজেটে সামাজিক ও ভৌত অবকাঠামো খাতে উলেস্নখযোগ্য বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। তবে ব্যয়ের গুণগত মান, বাস্তবায়ন সময়, মোট প্রকল্প ব্যয়, ইত্যাদির ওপর অধিক গুরুত্বারোপ করতে হবে।
বাজেট বিশ্লেষণ ও প্রতিক্রিয়া

বিশ্বব্যাপী মহামারি কোভিড-১৯ এর প্রভাবে আমাদের অর্থনীতির প্রায় প্রতিটি ক্ষেত্রে এক অস্বাভাবিক, অসাধারণ, অস্থির, অনিশ্চিত, বিপজ্জনক ও ঝুঁকিপূর্ণ পরিস্থিতিতে ২০২০-২১ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটটি ঘোষিত হয়েছে। প্রস্তাবিত এই বাজেটটি করোনা দুর্যোগ মোকাবিলায় বিগত কয়েক মাসে গৃহীত বিভিন্ন নীতি, কৌশল এবং প্রণোদনাকে বিশেষ বিবেচনায় রেখে জীবন-জীবিকাকে প্রাধান্য দিয়ে ক্ষতিগ্রস্ত অর্থনীতিকে পুনরুদ্ধারের অন্যতম উদ্দেশ্যকে সামনে রেখে প্রণয়ন করা হয়েছে। ঘোষিত প্রস্তাবিত বাজেট ২০২০-২১ এর মৌলিক অঙ্গীকারগুলোর মধ্যে অন্যতম হলো করোনা দুর্যোগ মোকাবিলার জন্য বিভিন্ন নীতি ও কৌশলের সঠিক বাস্তবায়ন। যথা: মাননীয় প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক ঘোষিত ১,০৩,১১৭ কোটি টাকার বিশাল প্রণোদনার দ্রম্নত বাস্তবায়ন, সরকারি ব্যয়ে কর্ম সৃজনকে প্রধান্য, বিলাসী ব্যয় হ্রাস ও নিরুৎসাহিত করা, স্বল্পসুদে ঋণ সুবিধা প্রবর্তন করে অর্থনৈতিক কর্মকান্ড পুনরুজ্জীবিত করা, সামাজিক সুরক্ষা কার্যক্রমের আওতা বৃদ্ধি এবং বাজারে মুদ্রা সরবরাহ বৃদ্ধি করা। উলিস্নখিত বিষয়সমূহকে অধিক গুরুত্ব দিয়ে 'অর্থনৈতিক উত্তরণ ও ভবিষ্যৎ পথ পরিক্রমা' শিরোনামের প্রস্তাবিত ২০২০-২১ বাজেটটি ১১ জুন, ২০২০ মহান জাতীয় সংসদে উপস্থাপন করেন। এ সরকারের প্রতিটি বাজেটই রেকর্ড ভেঙেছে। এবার তৃতীয় মেয়াদের দ্বিতীয় বাজেট ও এর ব্যতিক্রম হয়নি। বাজেট ২০২০-২১ এ মোট ব্যয় প্রাক্কলন হয়েছে ৫,৬৮,০০০ কোটি টাকা। যেটি সংশোধিত ২০১৯-২০ থেকে ৬৬,৪২৩ কোটি টাকা বা ১৩.২৪ শতাংশ বেশি। উলেস্নখ্য, ২০১৯-২০ এর পরিমাণ ছিল ৮০,৬৪৯ কোটি টাকা বা ১৮.২ শতাংশ বেশি। একইভাবে মোট রাজস্ব আয় ধরা হয়েছে ৩,৭৮,০০০ কোটি টাকা, যেটি সংশোধিত ২০১৯-২০ অর্থবছর থেকে ২৯,৯৩১ বা ৮.৬০ শতাংশ বেশি। ২০১৯-২০ অর্থবছরের বাজেটের মোট রাজস্ব প্রাক্কলন পূর্ববর্তী সংশোধিত বাজেটটির তুলনায় ৬১,১৯৭ কোটি টাকা বা ১৯.৩২ শতাংশ বেশি। মোট ব্যয় এবং রাজস্ব প্রাক্কলনের সংক্ষিপ্ত বিশ্লেষণে বলা যায় যে, মোট ব্যয়ের প্রবৃদ্ধি রাজস্ব প্রবৃদ্ধির তুলনায় দ্বিগুণ হয়েছে এবং মোট বাজেট ঘাটতি দাঁড়িয়েছে ১,৯০,০০০ কোটি টাকা, যেটি জিডিপির ৬.০০ শতাংশ।

২০১৯-২০ সংশোধিত বাজেটে ঘাটতি দাঁড়াবে ১,৫৩,৫০৮ কোটি টাকা, যেটি জিডিপির ৫.৫ শতাংশ। প্রস্তাবিত বাজেটে বহিঃউৎস থেকে ৮০,০১৭ কোটি টাকা এবং অভ্যন্তরীণ উৎস থেকে ১,০৯,৯৮৩ কোটি টাকা যার মধ্যে ব্যাংক ঋণ ৮৪,৯৮০ কোটি টাকা ঘাটতি অর্থায়নের প্রাক্কলন করা হয়েছে। উলেস্নখ্য, ২০১৯-২০ সংশোধিত বাজেট বহিঃউৎস থেকে ৫৬,১৬৩ কোটি এবং অভ্যন্তরীণ উৎস থেকে ৯৭,৩৪৫ কোটি টাকা, যার মধ্যে ব্যাংক ঋণ ৮২,৪২১ কোটি টাকার অর্থায়ন পুনঃপ্রাক্কলন করা হয়েছে। অথচ ২০১৯-২০ এ ঘাটতি অর্থায়নে ব্যাংক ব্যবস্থা থেকে ঋণের প্রাক্কলন ছিল ৪৭,৩৬৪ কোটি টাকা। ঘাটতি অর্থায়ন বিশ্লেষণে দেখা যাচ্ছে যে, বহিঃউৎস থেকে অর্থায়ন টার্গেট অনুযায়ী না হওয়ায় এবং রাজস্ব আদায় ঘাটতির কারণে ব্যাংকিং ব্যবস্থা থেকে বাজেটের টার্গেট অতিরিক্ত ঋণ নিয়ে ঘাটতি অর্থায়নের ব্যবস্থা করতে হয়, তাই বাজেট ২০২০-২১ এ ঘাটতি অর্থায়ন ১,৯০,০০০ কোটি টাকা একটি বিরাট চ্যালেঞ্জিং। কেননা, অভ্যন্তরীণ উৎস বিশেষ করে ব্যাংকিং ব্যবস্থা থেকে বাজেট অতিরিক্ত ঋণ নিলে বেসরকারি বিনিয়োগ বাধাপ্রাপ্তসহ তারল্য সংকট এবং মুদ্রাস্ফিতিতে বিরূপ প্রতিক্রিয়া দেখা দিতে পারে। সুতরাং রাজস্ব আহরণ এবং বৈদেশিক উৎস থেকে প্রাক্কলিত অর্থ যথাসময়ে সংগৃহীত না হলে বাজেট বাস্তবায়ন কঠিন হবে। এ জন্য রাজস্ব আহরণে এবং ঘাটতি অর্থায়নে বিশেষ করে বৈদেশিক উৎস থেকে অর্থায়নে সাফল্য দেখাতে না পারলে প্রস্তাবিত বাজেট পুরোপুরি বাস্তবায়ন কঠিন হবে। তাই প্রস্তাবিত বাজেট বাস্তবায়নের জন্য বিভিন্ন কলাকৌশলসহ প্রশাসনিক ব্যবস্থা অতীতের যে কোনো সময় থেকে বেশি নিতে হবে। মোট বাজেট ব্যয় বিশ্লেষণে দেখা যাচ্ছে যে, সামাজিক অবকাঠামো খাতে বরাদ্দের প্রস্তাব করা হয়েছে ১,৫৫,৫৩৬ কোটি টাকা- যা বরাদ্দের ২৭.৩৮ শতাংশ, ভৌত অবকাঠামো খাতে ১,৬৭,০১১ কোটি টাকা (মোট ব্যয়ের ২৯.৪০ শতাংশ), সাধারণ সেবা খাতে ১,৪০,২৬৫ কোটি টাকা (মোট ব্যয়ের ২৪.৬৯ শতাংশ), সুদ পরিশোধ ৬৩,৮০১ কোটি টাকা বা ১১.২৩ শতাংশ এবং সরকারি-বেসরকারি অংশীদ্বারিত্ব (চচচ), আর্থিক সহায়তা, ভর্তুকি এবং বিনিয়োগসহ মোট ৩৬,৬১০ কোটি টাকা- যা বরাদ্দের ৬.৪৫ শতাংশ এবং ওই বরাদ্দগুলো যথাক্রমে সংশোধিত বাজেট ২০১৯-২০ চলতি অর্থবছরের যথাক্রমে ১,৩৯,৫০৮ কোটি টাকা (২৭.৮১ শতাংশ), ১,৫৯,৫৪৫ কোটি (৩১.৮১ শতাংশ), ১,১০,৮১৩ কোটি (২২.০৯ শতাংশ), ৫৭,৬৬৪ কোটি (১১.৫০ শতাংশ) এবং ৩০,০৯৯ কোটি টাকা (৬.০০ শতাংশ) পুনঃপ্রাক্কলন করা হয়েছে। এখানে উলেস্নখ, সামাজিক অবকাঠামো এবং ভৌত অবকাঠামোতে বরাদ্দ বাড়লেও মোট বরাদ্দের শতাংশে হ্রাস পেয়েছে।

বিগত তিন বছরে ২০১৬-১৭ থেকে ২০১৮-১৯ পর্যন্ত যথাক্রমে ৭.২৮,৭.৮৬ এবং ৮.১৫ শতাংশ জিডিপি প্রবৃদ্ধি অর্জিত হয়েছে এবং সামষ্ঠিক অর্থনৈতিক স্থিতিশীলতার আলোকে চলতি বছরে প্রবৃদ্ধি ৮.২ শতাংশ লক্ষ্যমাত্রার বিপরীতে বিশ্বব্যাপী করোনার প্রভাবে অর্থনৈতিক কর্মকান্ডে আগ্রাসী আক্রান্তে ৫.২ শতাংশে সংশোধিত প্রাক্কলন করা হয়েছে। বাজেট ২০২০-২১ এ প্রবৃদ্ধি ধরা হয়েছে ৮.২ শতাংশ। বাজার চাহিদাসহ অর্থনৈতিক কর্মকান্ড কোভিড-১৯ পূর্ববর্তী অবস্থায় পুনর্বাসন হলে হয়তো এই প্রবৃদ্ধি অর্জিত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। কেননা, আমাদের প্রবৃদ্ধির মূল চালিকা শক্তি হচ্ছে শক্তিশালী অভ্যন্তরীণ চাহিদা। মুদ্রাস্ফিতি ৫.৪ শতাংশে সীমাবদ্ধ রাখার আসার প্রত্যয় বাজেট প্রাক্কলন করা হয়েছে। স্বাস্থ্য খাতকে বিচার বিশ্লেষণপূর্বক অগ্রাধিকার প্রদান করা হয়েছে যেটি কোভিড-১৯ পরিস্থিতি মোকাবিলায় সমান হবে।

\হকেননা, কোভিড-১৯ মোকাবিলায় ১০,০০০ কোটি টাকার থোক বরাদ্দ এবং এই খাতে ২৯,২৪৭ কোটির টাকা বরাদ্দ যেটি ২০১৯-২০ এ ছিল ২৫,৭৩২ কোটি টাকা, তা ছাড়া স্বাস্থ্যসেবায় আরো ১৩টি মন্ত্রণালয় যুক্ত আছে সেগুলোসহ বিবেচনায় নিলে মোট বরাদ্দ ৪১,০২৭ কোটি টাকা প্রস্তাব করা হয়েছে। সামাজিক সুরক্ষা আরেকটি অগ্রাধিকার খাত যেটিতে আগামী অর্থবছরে ৯৫,৫৭৪ কোটি টাকা বরাদ্দের প্রস্তাব করা হয়েছে- যা বাজেটের ১৬.৮৩ শতাংশ এবং জিডিপির ৩.০১ শতাংশ। সংশোধিত বাজেট ২০১৯-২০ এ যেটি ৮১,৮৬৫ কোটি টাকা বরাদ্দ হয়েছিল।

বিশ্লেষণে বলা যায় যে, বরাদ্দের এই প্রবৃদ্ধি সামাজিক নিরাপত্তা ও সুরক্ষার আওতা উলেস্নখযোগ্যভাবে বৃদ্ধি পাবে। কৃষি ও কৃষির উপখাতকে পুনরুজ্জীবিত করার লক্ষ্যে বাজেটে বিভিন্ন কার্যক্রমের প্রণোদনা, স্বল্পসুদে ঋণ সুবিধা, ভর্তুকি এবং নানা নীতি কৌশল প্রাধান্য পেয়েছে। এই খাতে মোট বরাদ্দ ২৯,৯৮৩ কোটি টাকা- যা সংশোধিত বাজেটে ২৭,০২৩ কোটি টাকা। বরাবরের মতই সর্বোচ্চ বরাদ্দ পেয়েছে শিক্ষা ও প্রযুক্তি খাত যেটি মোট ৮৫,৭৬০ কোটি টাকা- যা মোট বরাদ্দের ১৫.১ শতাংশ এবং যেটি সংশোধিত ২০১৯-২০ এ প্রাক্কলন হয়েছে ৭৭,০৩৯ কোটি টাকা। যদিও বরাবরের মতোই উলেস্নখযোগ্য বাজেট বরাদ্দ পাবলিক সার্ভিস খাতে হয়ে থাকে যেখানে সুদ পরিশোধ ৬৩,৭৭৬ কোটিসহ মোট বরাদ্দ ১,৮০,৭১৫ কোটি টাকা- যা মোট বরাদ্দের প্রায় ৩২.০০ শতাংশ। এ ছাড়া পরিবহণ ও যোগাযোগ খাতে ৬৪,৫৮৭ কোটি টাকা- যা বরাদ্দের ১১.৪ শতাংশ, স্থানীয় সরকার ও পলস্নী উন্নয়ন মন্ত্রণালয়ে ৩৯,৫৭৩ কোটি (বরাদ্দের ৭.০০ শতাংশ), প্রতিরক্ষা খাতে ৩৪,৮৮২ কোটি টাকা (বরাদ্দের ৬.১ শতাংশ), সামাজিক সুরক্ষা ও কল্যাণ খাতে ৩২,১৬৬ কোটি টাকা (বরাদ্দের ৫.০ শতাংশ) ইত্যাদি খাতগুলো উলেস্নখযোগ্য বরাদ্দ পেয়েছে। প্রস্তাবিত বাজেটের বিভিন্ন খাতগুলোর বরাদ্দ বিশ্লেষণ করলে বলা যায় যে, প্রস্তাবিত বাজেট জনকল্যাণমূলক বিভিন্ন সামাজিক নিরাপত্তা বিধানমূলক কর্মসূচি এবং কর সহনীয়করণসহ প্রবৃদ্ধি সঞ্চারী মেঘা প্রকল্পসমূহ এবং স্থবির বেসরকারি খাতে বিনিয়োগ বৃদ্ধির নানা কলাকৌশল অগ্রাধিকার পেয়েছে। গতানুগতিক বড় আকারের বাজেট নিয়ে ড. সেলিম উলেস্নখ করেন যে, বাংলাদেশের অপার উন্নয়ন সম্ভাবনা, জনগণের প্রত্যাশা, ভোগ ও চাহিদার ক্রমোন্নতি, বর্তমান অর্থনৈতিক স্থিতিশিলতা ও বিভিন্ন অর্থনৈতিক সূচকের অগ্রগতি পর্যবেক্ষণ সাপেক্ষে বলা যায় যে, আকার রক্ষণশীল না হওয়াই ভালো। বড় আকারের বাজেটে অনেকে মনে করেন যে, অর্থের অপচয় ও অপব্যবহার হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। তাই আমি বলব অর্থ বরাদ্দে উদারতা থাকা ভালো এবং অনেক সময় সফলতা আসে তবে অর্থ ব্যবহারে যথেষ্ট সতর্ক থাকা এবং অর্থ অপব্যবহার বা অপচয় রোধকল্পে সচেতনতাসহ কঠোরতা অবলম্বন করলে এবং আগামী কয়েক মাসের মধ্যে বিশেষ করে সেপ্টেম্বর ২০২০ যদি বিশ্ব মহামারি কোভিড-১৯ পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণে এলে বিশাল এই বাজেট অধিকাংশই বাস্তবায়ন করা সম্ভব। বাংলাদেশরে অর্থনীতি সম্পর্কিত স্বল্প, মধ্য ও দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনার সমষ্টিকে অর্থনীতির সূচকগুলো যথা: মুদ্রাস্ফিতি ৫.৪ শতাংশ রাখা, মধ্যমেয়াদি নীতি কৌশল কঠোরভাবে পরিপালনসহ কৃষি, শিল্প, ব্যবসা, রপ্তানি খাত, আবাসন খাত, প্রবাসী আয় ও সেবা খাতকে প্রতিযোগিতামূলক অবস্থানে নেওয়ার অঙ্গীকার, দারিদ্র্য নিরসন, কর্মসংস্থান সৃষ্টি, বিদেশি বিনিয়োগ আকৃষ্ট এবং আয় বৈষম্য নিয়ন্ত্রণে স্ববিশেষ সূচক ও চলকগুলোকে বাজেট বাস্তবায়নে কঠোরভাবে পরিপালনসহ নজরদারিতে রাখতে হবে।

এখানে উলেস্নখ্য, কোনো ধরনের তাৎপর্যপূর্ণ নতুন করারোপ ছাড়াই এই বিশাল বৃহৎ এবং উচ্চ বিলাসী বাজেট যদি প্রত্যেক মাসে আনুপাতিক হারে সততা ও আন্তরিকতার সঙ্গে সঠিক অর্থে ও মানসম্মতভাবে বাস্তবায়িত হলে সামগ্রিক চাহিদা বৃদ্ধি, অবকাঠামো ঘাটতি হ্রাস এবং দারিদ্র্যবান্ধব, অন্তর্ভুক্তিমূলক ও বিভিন্ন সামাজিক নিরাপত্তা বিধানমূলক ব্যয় ইত্যাদির মাধ্যমে প্রস্তাবিত বাজেট সার্বিক জনকল্যাণে এবং অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি অর্জনে শক্তিশালী ভূমিকা রাখবে। মুদ্দাকথা, প্রস্তাবিত বাজেটের সাফল্য অনেকাংশে নির্ভর করবে সারা বৎসরের আর্থিক কর্মকান্ডগুলো মাসিক কিংবা ত্রৈমাসিকের ভিত্তিতে আনুপাতিক হারে গুণগত ও পরিমাণগত বৈশিষ্ট্যের আলোকে মানসম্মত বাজেট বাস্তবায়নের ওপর। কেননা, বিগত বছরসমূহে বাজেট অবাস্তবায়নের হার প্রায় ১০ শতাংশ থেকে বৃদ্ধি পেয়ে ২১ শতাংশে পৌঁছেছে।

প্রস্তাবিত বাজেট বাস্তবায়নে সামস্টিক অর্থনীতির দূর্বলতা, অসংগতি, প্রতিবন্ধকতা ও চ্যালেঞ্জসমূহের প্রতি আলোকপাত করতে গিয়ে আমার মনে হয়েছে, উচ্চতর প্রবৃদ্ধি অর্জনের জন্য বর্তমান বিনেয়োগ যথেষ্ট নয়। সক্ষমতার অভাবে এডিপি বাস্তবায়ন পুরোপুরি না হওয়ায় সরকারি বিনিয়োগ কাঙ্ক্ষিত মাত্রায় বৃদ্ধি পাচ্ছে না। আবার বছর বছর সরকারি বিনিয়োগ বৃদ্ধিই যথেষ্ট নয়, এর গুণগতমান বৃদ্ধি এবং অর্থবছরের শেষ তিন মাসে বা শেষ প্রান্তিক অত্যাধিক ব্যয় প্রবণতার কারণে সরকারি অর্থের অপচয়, কাজে নিম্নমান ও গুণগতমান হ্রাস, স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা ইত্যাদি ক্ষেত্রে অসামঞ্জস্য দেখা দেয়। অন্যদিকে নানা প্রতিবন্ধকতার কারণে ব্যক্তি খাতের বিনিয়োগ গত কয়েক বছর ধরে ২১-২২-২৩ শতাংশের মধ্যেই সীমাবদ্ধ রয়েছে। কাঙ্ক্ষিত প্রবৃদ্ধির জন্য এই হার জিডিপির ২৬-২৭ শতাংশে উন্নীত করা দরকার। সামষ্টিক অর্থনীতির স্থিতিশীলতা বিশেষ করে ব্যক্তি খাতে বিনিয়োগ আগামী অর্থবছরে ঋণ সুবিধা, বিনিময় হার, তারল্য সংকট, খেলাপি ঋণ সংকট, মুদ্রাস্ফীতির হার, বহির্খাতের অসামঞ্জস্যতা, বিনিয়োগকারীর আস্থা এবং আন্তর্জাতিক বাণিজ্যে সংকটসহ প্রধানতম বিশ্ব মহামারি কোভিড-১৯ এর ধংসাত্মক আক্রমণ ও প্রভাব ইত্যাদি কারণে চ্যালেঞ্জের সম্মুখীন হওয়ার সমূহসম্ভাবনা দেখা দিয়েছে। এ ছাড়া প্রস্তাবিত বাজেট বাস্তবায়নে অন্যান্য চ্যালেঞ্জসমূহের মধ্যে লক্ষ্যমাত্রার রাজস্ব আহরণ অন্যতম। অবকাঠামোগত ঘাটতি, সরকারি ব্যয়ের অগ্রাধিকার ঠিক করা, ঘাটতি বাজেটের অর্থায়ন ব্যবস্থাপনা- বিশেষ করে বৈদেশিক উৎস থেকে অর্থ প্রাপ্তির অনিশ্চয়তা, ব্যক্তি খাতে ঋণপ্রবাহের প্রতিবন্ধকতাসমূহ, রপ্তানি বৈচিত্র্যকরণ, রপ্তানির প্রবৃদ্ধির তুলনায় আমদানি প্রবৃদ্ধির ধারাবাহিক বৃদ্ধি, কাঙ্ক্ষিত মাত্রায় কর্মসংস্থান সৃষ্টি এবং সঞ্চয় বিনিয়োগ তারতম্য ইত্যাদি উলেস্নখযোগ্য। উপরোক্ত চ্যালেঞ্জের পরিপ্রেক্ষিতে উন্নয়ন প্রকল্পগুলো ব্যয়াধিক্য (ঈড়ংঃ ঙাবৎৎঁহ) এবং বাস্তবায়ন সময়োত্তীর্ণের (ঞরসব ড়াবৎৎঁহ) সঠিক ঝুঁকি নির্ণয়, মাসিক ভিত্তিতে প্রকল্প রেজাল্ট মূল্যায়নের ব্যবস্থা থাকা দরকার। ব্যক্তি খাতের বিনিয়োগ বৃদ্ধিতে বৈদেশিক সূত্র থেকে ঝামেলামুক্ত ঋণপ্রবাহ নিশ্চিত, ৯% সুদের হার, বিনিময় হার, মুদ্রাস্ফীতির হার, আস্থার উন্নতি, বিদুৎ, জ্বালানি, পরিবহণ ও যোগাযোগ ইত্যাদি চলমান কার্যক্রমগুলোর সুষ্ঠু সমাপ্তসহ ইত্যাদি বিষয়ের ওপর জোর নজরদারি, তদারকি এবং স্থিতিশীলতা অন্যতম নিয়ামক হিসেবে কাজ করবে। এ ছাড়া বাজেটকে সঠিক বাস্তবায়নে সক্ষমতা, প্রস্তাবিত বাজেট বাস্তবায়নের স্বচ্ছ রোডম্যাপ, রাজস্ব আদায়ে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা, প্রকল্প বাস্তবায়নে গুণগত পরিবর্তন ইত্যাদি বিবেচনায় নিলে বাজেট বাস্তবায়নের অনেক চ্যালেঞ্জ বা প্রতিবন্ধকতা দূর হবে।

দেশি-বিদেশি বিনিয়োগ আকৃষ্ট, ব্যবসা ব্যয়-হ্রাস, বৈশ্বিক প্রতিযোগিতামূলক অবস্থান, অন্তর্ভুক্তিমূলক প্রবৃদ্ধি এবং দারিদ্র্য বিমোচনের লক্ষ্যে এই বাজেটে সামাজিক ও ভৌত অবকাঠামো খাতে উলেস্নখযোগ্য বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। তবে ব্যয়ের গুণগত মান, বাস্তবায়ন সময়, মোট প্রকল্প ব্যয়, ইত্যাদির ওপর অধিক গুরুত্বারোপ করতে হবে।

চলমান বৃহৎ প্রকল্পগুলোর বাস্তবায়নের হার সময় সময় প্রেস ব্রিফিংয়ের মাধ্যমে জনসম্মুখে প্রচারের ব্যবস্থা থাকা উচিত। যেমন: বাংলাদেশ দৈনিক কতটুকু বা কত কিলোমিটার রাস্তা সম এককে (বয়ঁরাধষবহঃ ঁহরঃ) তৈরি হচ্ছে, দৈনিক কত কিলোওয়াট বিদু্যৎ উৎপাদন হচ্ছে (সম এককে) ইত্যাদি প্রকাশ করার জন্য সুপারিশ করছি। সামাজিক ও ভৌত অবকাঠামোর কারণে সুফলগুলো সুস্পষ্ট করা উচিত বলে মনে করি।

\হনিম্ন আয়ের ব্যক্তিবর্গ, কুটিরশিল্প, ক্ষুদ্র, ছোট ও মাঝারি শিল্প ও ব্যবসায়ীকে কোভিড-১৯ এর ক্ষতি পুষিয়ে নেওয়ার জন্য আয়করের অ-করযোগ্য সীমা বৃদ্ধি, প্রথম ১,০০,০০০ টাকায় ৫% আয়কর, সর্বোচ্চ কর হার ৩০% এর বদলে ২৫%, অতালিকাভুক্ত করহার হ্রাস, কৃষি ও কৃষি উপখাতে নিয়োজিত কৃষি যন্ত্রাপাতিতে শুল্ক হ্রাস, ভ্যাট রেয়াত, কাস্টমের হয়রানি রোধে বিভিন্ন কর্ম কৌশল, রপ্তানিমুখী দেশীয় এবং আমদানি পরিপূরক শিল্প ও ব্যবসায়কে সুরক্ষায় বিভিন্ন ধরনের প্রণোদনার প্রবর্তন, শুল্ক হ্রাস, কর হার হ্রাস, রাজস্ব প্রণোদনাসহ বিভিন্ন নীতি কৌশলের সহায়তা বাজেটে পরিস্ফুটিত হয়েছে। মোটামুটি বড় ধরনের নতুন কোনো করারোপ ছাড়াই এই বাজেট প্রণীত হয়েছে। রাজস্বের উৎসের জন্য অনেকটা ঢালাওভাবে কালো টাকা সাদা করার সুযোগ দিয়ে অর্থমন্ত্রী অনেকটাই কালো বাজারির অর্থের উৎসের ওপর নির্ভরশীল থাকতে চেয়েছে। অতীত অভিজ্ঞতা এ ব্যপারে সুখকর নয় তবে আগামী অর্থবছরের অভিজ্ঞতাটা ভিন্ন হয় কি না দেখার বিষয়। সব পক্ষকে মোটামুটি স্বস্তি দিয়ে এই বাজেট বাস্তবায়নের যে পরিকল্পনা রচিত হয়েছে সেটি সঠিক অর্থে দক্ষতা ও আন্তরিকতার সঙ্গে এবং সময়মতো বাস্তবায়নের সব কর্মকৌশল গ্রহণ ব্যতীত সফলতা দুরূহ হবে।

\হবিশ্ব মহামারি কোভিড-১৯ বিগত কয়েক মাসে বিধ্বস্ত ও বিপর্যস্ত বিশ্বকে একটি শিক্ষা স্পষ্ট করে দিয়েছে যে, অদূর ভবিষৎতে বা নিকট ভবিষৎতে বহু জানা, অসস্পষ্ট, স্পষ্ট এবং অজানা চ্যালেঞ্জ এবং বিপদ যে কোনো সময় দেখা দিতে পারে যেটি অর্থনীতি পুর্নগঠনে ব্যাঘাত সৃষ্টি করতে পারে। স্বল্প, মধ্য ও দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনার মাধ্যমে যা অবশ্যই বৈচিত্র্যময় ঝুঁকিপূর্ণ ও অনিশ্চিত ঘটনাবলির সঙ্গে দ্রম্নত তাল মিলিয়ে পরিবর্তন, পরিবর্ধন ও পরিমার্জনের ব্যবস্থা রেখেই অত্যন্ত ক্ষিপ্রতার সঙ্গে সমস্ত চ্যালেঞ্জ মোকাবিলার পূর্বপ্রস্তুতি থাকতে হবে।

অধ্যাপক ড. মো. সেলিম উদ্দিন : এফসিএ, এফসিএমএ অধ্যাপক, হিসাব বিজ্ঞান বিভাগ, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় এবং চেয়ারম্যান, বাংলাদেশ হাউস বিল্ডিং ফাইন্যান্স করপোরেশন ও নির্বাহী কমিটির সদস্য, ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেড

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

Copyright JaiJaiDin ©2021

Design and developed by Orangebd


উপরে