নৈতিকতা ও শিষ্টাচার ছাড়া সভ্যতার বিকাশ সম্ভব নয়

জীবন গঠনে শিষ্টাচারের প্রয়োগ অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। শিষ্টাচারের প্রতি যে যত বেশি যত্নবান, তিনি তত বেশি সুনাম ও সাফল্য অর্জন করতে পারেন। শিষ্টাচার সম্পর্কে যে উদাসীন, মানুষের কাছে তার গ্রহণযোগ্যতা তত কম।
নৈতিকতা ও শিষ্টাচার ছাড়া সভ্যতার বিকাশ সম্ভব নয়

সুন্দর সমাজ গড়তে নৈতিকতা ও শিষ্টাচার একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। এর অভাবে সমাজে দ্বন্দ্ব সংঘাত বিশৃঙ্খলা অনিবার্য। সমাজবদ্ধ জীব হিসেবে মানুষের মধ্যে কতিপয় জ্ঞান থাকা অত্যাবশ্যক। বর্তমানে মানুষের মধ্যে এ সব অত্যাবশ্যক গুণাবলি ক্রমান্বয়ে নিম্নমুখী হচ্ছে। সমাজে মিথ্যা, অসত্য, উগ্রতা, অস্থিরতা আমাদের মননে ও মগজে মিশে গেছে। কে কাকে কীভাবে কোণঠাসা করবে, কে কাকে মাড়িয়ে উপরে উঠবে, ন্যায় অন্যায় না মেনে কত সম্পদের পাহাড় গড়া যায় সেই প্রতিযোগিতা চলছে দুর্বার গতিতে। সৃষ্টির জন্য নয়, ধ্বংস আর বিনাশের দিকেই নজর অধিকাংশ মানুষের। মূল্যবোধের অবক্ষয়ের প্রথম ধাপ হিসেবে নৈতিকতা ও শিষ্টাচার বহির্ভূত আচরণকে চিহ্নিত করা যায়। সততা, ন্যায়পরায়নতা, নিষ্ঠা ও শৃঙ্খলাবোধের সমন্বিত গুণাবলি হচ্ছে নৈতিকতা, একে ধরা ছোঁয়া বা পরিমাপ করা যায় না, শুধু অনুধাবন করা সম্ভব। বিভিন্ন পেশায় নিয়োজিত প্রতিটি মানুষেরই সততা ও নিষ্ঠার সঙ্গে নিজ দায়িত্ব পালনই নৈতিকতা। উন্নত বিশ্বে একে অন্যকে প্রয়োজন মতো সাহায্য করাকে নৈতিক দায়িত্ব মনে করা হয়। দায়িত্ববোধ ও মমত্ববোধ থেকে সৃষ্ট এ মানবিক গুণ ছাড়া সভ্যতার বিকাশ সম্ভব নয়। যে ব্যবসায়ী মানুষের প্রয়োজনকে গৌণ মনে করে বাণিজ্য করেন অর্থাৎ আর্থিক সুবিধা আদায় করেন তিনি নৈতিকতা থেকে অনেক দূরে অবস্থান করছেন। দেশের আইন মেনে সততা ও নিষ্ঠার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করা নৈতিক দায়িত্ব। একজন মানুষের আচার ব্যবহার কথাবার্তা চাল-চলন ও কাজ কর্মে যে শিষ্টতা, নম্রতা ও মার্জিত রুচির পরিচয় প্রকাশ পায় সেটাই আদবকায়দা বা শিষ্টাচার। শিষ্টাচারের আরেকটি দিক হচ্ছে আমি যে ধরনের আচরণ অন্যের কাছে আশা করি আমারও উচিত অন্যের সঙ্গে সেই ধরনের আচরণ করা, বিদ্যাবুদ্ধি যেমন চেষ্টা ও সাধনা দ্বারা অর্জন করতে হয়, তেমনি শিষ্টাচার বা আদবকায়দা ও চেষ্টা এবং সাধনা দ্বারা বিশেষ শিক্ষার মাধ্যমে অর্জন করতে হয়।

কল্যাণধর্মী সমাজ ও রাষ্ট্রের জন্য স্কুল, কলেজ, অফিস-আদালত, বাস, ট্রেন, সভা, সমিতি এবং সামাজিক অনুষ্ঠানে শিষ্টাচার বা আদবকায়দার প্রযোজন অধিক। শিষ্টাচার মানুষের ব্যক্তিত্বের বিকাশ ঘটায় এবং বন্ধুত্ব লাভ হয়। সমাজে অনেক সমস্যা আছে যেগুলো শুধু আইনানুগ ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব হয় না। এক্ষেত্রে শিষ্টাচার সহমমির্তার কত গুণাবলি সাহায্য করে থাকে। শিশুকাল থেকে শিষ্টাচার অনুশীলন করতে হয় এবং সারা জীবন ধরে এর অর্জন চলতে থাকে। শিষ্টাচার বা আদবকায়দা অভ্যাসে পরিণত করতে না পারলে সময়মতো প্রয়োগ করা যায় না। শিষ্টাচার মানুষের জীবনের সবচেয়ে মূল্যবান বিষয়। জীবন গঠনে শিষ্টাচারের প্রয়োগ অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। শিষ্টাচারের প্রতি যে যত বেশি যত্নবান, তিনি তত বেশি সুনাম ও সাফল্য অর্জন করতে পারেন। শিষ্টাচার সম্পর্কে যে উদাসীন, মানুষের কাছে তার গ্রহণযোগতা তত কম।

\হনৈতিকতা গঠনে প্রতিটি মানুষের সৃষ্টিকর্তাকে ভয় করা, বিশেষ ব্যক্তিদের সঙ্গে পরামর্শ করা, ন্যায়পরায়ণ হওয়া, গুণিদের সহচার্য লাভ করা, গঠনমূলক আলোচনার প্রতি আগ্রহী হওয়া ও অস্থিরতা পরিহার করতে হবে। সমাজে ছোট-বড়, গরিব-ধনী, শিক্ষিত-অশিক্ষিত, বিভিন্ন ধর্ম ও বর্ণের লোকের বসবাস। পরস্পরের দেখা সাক্ষাতে কুশল বিনিময় ও যুক্তিপূর্ণ আচরণ, সমাজে পারস্পরিক শ্রদ্ধাবোধ, সম্মান ও ভালোবাসার মাধ্যমে সামাজিক সম্প্রীতি বৃদ্ধি পায় এবং নিজ নিজ অবস্থান সুদৃঢ হয়। ধর্ম, বর্ণ ও নির্বিশেষে সবার প্রতি বিনয়ী আচরণ শিষ্টাচারের পরিচায়ক। গরিব-দুঃখীর প্রতি মমত্ববোধ, প্রতিবেশীর প্রতি সম্মান ও শ্রদ্ধাবোধ থাকা অপরিহার্য। এর ব্যত্যয় ঘটলে সামাজিক বিশৃঙ্খলা দেখা দিতে পারে। সমাজে, সংসারে যারা গুরুজন, তাদের শ্রদ্ধা করতে হবে, ছোটদের স্নেহ করতে হবে। একজন বিনয়ী, সুন্দর ব্যক্তিত্বসম্পন্ন মানুষ সব থেকে পূজনীয়। তাই আমাদের উচিত উন্নত চরিত্রের অধিকারী হওয়ার সাধনা করা। যা ইহকালে সবার কাছে যেমন গ্রহণীয় হবে তেমনি জান্নাত লাভের পথ সুগম হবে।

অহেতুক কারো সঙ্গে বিতর্কে না জড়িয়ে সুন্দর সাবলীল পরিবেশে যে কোনো সঠিক সিদ্ধান্তে আসা জ্ঞানী লোকের পরিচয়। ত্রম্নটিপূর্ণ তথ্য পরিবেশন সুদূরপ্রসারী ক্ষতির কারণ হতে পারে। অধীনস্থ কর্মচারীদের সঙ্গে সহানুভূতির সঙ্গে কথা বললে তাদের কাজের মান ও পরিমাণ দুইই বৃদ্ধি পায়। পরনিন্দা অবশ্যই পরিতাজ্য। পরনিন্দা মানুষকে ছোট করে ও শত্রম্নতা বাড়ায়। নিন্দা করে সমস্যার সমাধান হয় না বরং জটিলতা বৃদ্ধি পায়। এটি একটি শিষ্টাচারবিরোধী কাজ। সর্বোপরী এটি একটি কবিরা গুনাহ। একজন মানুষের পোশাক পরিধানের ক্ষেত্রে মার্জিত ও রুচিসম্মত পোশাক পরিধান করা ঐতিহ্য; সুন্দর, রুচিসম্মত পোশাক-পরিচ্ছদ একজন মানুষের ব্যক্তিত্ব অনেকগুণে বাড়িয়ে দেয়। নিজেকে জাহির করা থেকে বিরত থাকতে হবে, কারণ এটি অহঙ্কারেরই নামান্তর- যা যে কোনো ধর্মে পরিত্যাজ্য। জীবনের সবচেয়ে মূল্যবান বিষয় মানুষের চরিত্র গঠন।

জীবন গঠনে শিষ্টাচারের প্রয়োগ অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। শিষ্টাচারের প্রতি যে যত বেশি যত্নবান, তিনি তত বেশি সুনাম ও সাফল্য অর্জন করতে পারেন। শিষ্টাচার সম্পর্কে যে উদাসীন, মানুষের কাছে তার গ্রহণযোগ্যতা তত কম।

\হকাজেই, নৈতিকতা শিষ্টাচারের বীজ পরিবার থেকেই বপন করতে হবে এবং প্রাথমিক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান থেকে পরিচর্যার মাধ্যমে উন্নয়ন ঘটাতে হবে- যা পরবর্তী সময়ে সমাজ তথা রাষ্ট্রের সভ্যতার বিকাশ ঘটাবে। এতে সমাজের রন্ধ্রে রন্ধ্রে বিরাজমান দুর্নীতি, অনিয়ম, বিশৃঙ্খলা ও সন্ত্রাস সহজে নির্মূল করা সম্ভব হবে।

এম এ কাদের : কলাম লেখক

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

আরও খবর

Copyright JaiJaiDin ©2021

Design and developed by Orangebd


উপরে