অর্থনীতির উন্নয়ন ও বেকারত্ব দূরীকরণে ক্ষুদ্র শিল্প প্রতিষ্ঠান

অর্থনীতির উন্নয়ন ও বেকারত্ব দূরীকরণে ক্ষুদ্র শিল্প প্রতিষ্ঠান

এশিয়া মহাদেশের মধ্যে বাংলাদেশ একটি বিশাল জনগোষ্ঠীর দেশ। এই বিশাল জনগোষ্ঠীর একটি বিরাট অংশের লোক হলো বেকার। বেকার সমস্যা বাংলাদেশের একটি জাতীয় সমস্যা। এ বেকার সমস্যা সমাধানের জন্য কিছু দিন পর পর দেশের বেকার জনগোষ্ঠী তাদের কর্মসংস্থানের জন্য আন্দোলন মিছিল মিটিং করে থাকে। কোনো ফলাফল দেখা যায়নি। তারপরও বাংলাদেশের মতো একটি দেশ এত বিশাল সংখ্যক লোককে বেকার রেখে হাঁটি হাঁটি পা পা করে আজ বিশ্বদরবারে উন্নতশীল দেশের তালিকায় নাম লিখিয়েছে সেটাও একটা বিশাল ব্যাপার। আজ যদি বাংলাদেশের বেকার লোকজনদের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা থাকত, তারা কর্ম করতে পারত তাহলে বাংলাদেশ আজ বিশ্বের সব ধনী দেশকে টপকিয়ে বিশ্বের এক নাম্বার ধনী দেশে পরিণত হতো। তাতে কোনো সন্দেহের অবকাশ ছিল না। বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন প্রাকৃতিক দুর্যোগ কাটিয়ে দুর্বারগতিতে এগিয়ে চলছে বাংলাদেশ। তবে এ বছরের মহামারি করোনায় শুধু বাংলাদেশ নয়- সারাবিশ্ব অর্থনৈতিকভাবে ধসে পড়ছে। করোনার কারণে বিশেষ করে আমাদের দেশের ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পোদ্যোক্তারা অর্থনৈতিকভাবে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। তারা না পেয়েছে সরকারি কোনো প্রণোদনা না বেসরকারি কোনো সাহায্য-সহযোগিতা।

আমাদের দেশে দরিদ্র মানুষের সংখ্যা বরাবরই বেশি। করোনাকালে এই সংখ্যা আরও বেড়েছে। এক গবেষণায় বলা হয়েছে, করোনাকালে তিন কোটিরও বেশি মানুষ নতুন করে দরিদ্র হয়েছে। আগের দরিদ্রের সঙ্গে নতুন দরিদ্র যোগ করলে দরিদ্রের সংখ্যা কত দাঁড়াবে, সেটা অনুমান করা কঠিন নয়। করোনার কারণে বহু মানুষ চাকরি হারিয়েছে, বহু মানুষ কর্মহীন হয়ে পড়েছে, বহু মানুষের আয়-রোজগার হ্রাস পেয়েছে এবং বহু মানুষের ছোটখাটো কারবার বন্ধ হয়ে গেছে। বিশেষজ্ঞরা আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন, দেশে মধ্যবিত্ত ক্ষুদ্র শ্রেণির বিলোপ হতে বসেছে। মধ্যবিত্ত এখন আর তার অবস্থানে নেই; অবস্থানের অবনমন ঘটেছে। মধ্যবিত্ত নিম্নবিত্তে নেমে যাওয়ায় নিম্নবিত্তের সংখ্যা বেড়েছে বটে, তবে অনেক নিম্নবিত্ত বিত্তহীন, দরিদ্র এমনকি অনেক দরিদ্র হতদরিদ্রে পরিণত হয়েছে। করোনা বিত্তবিবেচনায় সমাজ বিন্যাসকে কীভাবে ভেঙে ফেলেছে, তা এ থেকে সম্যক উপলব্ধি করা যায়। করোনার প্রকোপ কমায় কয়েক মাস ধরে স্বাভাবিক জীবন-যাপনে ফেরার জোর প্রয়াস চলছে। শিল্পকারখানা, ব্যবসা-বাণিজ্য, দোকানপাট, ছোট কারখানা সচল করার চেষ্টা চলছে পুরোদমে। এ ক্ষেত্রে নানারকম সমস্যা-সংকট ও প্রতিবন্ধকতা কম নেই। সব বাধা-বিপত্তি অতিক্রম করে কবে নাগাদ অর্থনীতিতে প্রত্যাশিত গতি ও সুবাতাস ফিরে আসবে, সেটাই প্রশ্ন। ইতোমধ্যে আন্তর্জাতিক বাজারে তেল-গ্যাস ও পণ্যের দাম বাড়ায় আমাদের দেশেও তার বিরূপ প্রভাব দেখা দিয়েছে। দেশে তেল-গ্যাসের দাম বাড়ানো হয়েছে। এতে অনিবার্যভাবেই পরিবহণ ও উৎপাদনসহ নানা ক্ষেত্রে ব্যয়-বৃদ্ধি ঘটেছে। এই বৃদ্ধির প্রভাব শুধু মানুষের ওপরই নয়, অর্থনীতির ওপর পড়তে শুরু করেছে। চাপ আগামীতে আরও বাড়বে বা বাড়তে পারে, এমন আশঙ্কা অমূলক নয়। এখনই নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যসহ সব পণ্যের দাম আকাশ ছুঁয়েছে। সাধারণ মানুষের ক্রয়ক্ষমতায় এমনিতেই টান ছিল; সেটা আরও বাড়ছে। পরিবারের চাহিদামতো পণ্য কেনার সামর্থ্য না থাকায় অধিকাংশেরই কম করে পণ্য কিনতে হচ্ছে, থাকতে হচ্ছে কম খেয়ে বা না খেয়ে। এতে স্বাস্থ্যের ওপর মারাত্মক প্রভাব পড়ছে; পুষ্টিহীনতা বাড়ছে, যা অত্যন্ত উদ্বেগজনক। এদিকে অর্থনীতির সূচকগুলোও ক্রমাবনতিশীল। রপ্তানি ও প্রবাসী আয় কমছে, রাজস্ব আয়ও তাই। আমদানি বাড়ায় বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভও কমতে শুরু হয়েছে। এমতাবস্থায়, উদ্বিগ্ন না হয়ে উপায় নেই।

জনগণের মসৃণ ও স্বাচ্ছন্দ্যপূর্ণ জীবনযাপন নিশ্চিত এবং জাতীয় উন্নয়ন দ্রম্নতায়িত করাই আমাদের অর্থনীতির মূল লক্ষ্য। এ জন্য বিনিয়োগ, উৎপাদন, রপ্তানি ও কর্মসংস্থান বৃদ্ধির বিকল্প নেই। বিনিয়োগে অনেক দিন ধরেই খরা চলছে। দেশি-বিদেশি কোনো বিনিয়োগই বাড়ছে না। বিনিয়োগ বাড়ানোর চেষ্টা চলছে। যে কোনো মূল্যে চেষ্টা ফলপ্রসূ করে তুলতে হবে। বিনিয়োগ বাড়লে নতুন নতুন শিল্পকারখানা গড়ে উঠবে, ব্যবসা-বাণিজ্যের বিকাশ ঘটবে, কর্মসংস্থান বাড়বে। বলার অপেক্ষা রাখে না, শিল্পের অবস্থা ভালো নয়। গার্মেন্ট প্রধান শিল্প হলেও ইতোমধ্যে বহু গার্মেন্ট কারখানা বন্ধ হয়ে গেছে। বস্ত্র, পাট, চামড়া ও অন্যান্য শিল্পের অবস্থাও সুবিধাজনক নয়। নানা সমস্যা-সংকটে এসব শিল্প জর্জরিত। গোটা শিল্পখাতের লাখ লাখ শ্রমিক-কর্মী এখন বেকার। শিল্পের সমস্যা-সংকটের আশু অবসান কাম্য। আমাদের দেশে ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পের সংখ্যাই বেশি। পণ্য উৎপাদন, কর্মসংস্থান সৃষ্টি এবং অর্থনীতিতে অবদান রাখার ক্ষেত্রে এই দুই শিল্পক্ষেুদ্রণির ভূমিকা অনেক বেশি। দুঃখজনক হলেও স্বীকার করতে হচ্ছে, বরাবরই ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প শোচনীয় অবহেলার শিকার। ফলে এদের প্রত্যাশিত উন্নতি ও বিকাশ ঘটেনি। করোনার প্রভাব-প্রতিক্রিয়া মোকাবিলায় সরকার শিল্পক্ষেত্রে যে প্রণোদনা দিয়েছে, তার প্রায় সবই বড় শিল্পের ভাগে পড়েছে। ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পের জন্য যা দেওয়া হয়েছে, তাকে অনেকটা 'নামকাওয়াস্তে' বলা যায়। ব্যাংকগুলো এই সামান্য অর্থও দিতে চায়নি বা দেয়নি। এই টাকাও কারও মেলেনি ঘুষ ছাড়া। প্রায় ৬৫ শতাংশ প্রতিষ্ঠান কোনো টাকাই পায়নি। অথচ, ব্যাংকঋণ পরিশোধে ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পের মালিকরা তুলনামূলকভাবে অনেক বেশি স্বচ্ছ ও দায়িত্বশীল বলে প্রমাণিত। প্রণোদনার টাকা না পাওয়া এবং সরকারের তরফে বিশেষ কোনো সহযোগিতা না মেলায় বহু প্রতিষ্ঠান বন্ধ হয়ে গেছে। বাংলাদেশ হ্যান্ডলুম অ্যান্ড পাওয়ারলুম মালিক সমিতির এক কর্মকর্তা জানিয়েছেন, পাবনা-সিরাজগঞ্জের ছয় লাখ তাঁতের প্রায় চার লাখই বন্ধ হয়ে গেছে। অন্যত্রও একই অবস্থা। অন্যান্য ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পের অবস্থাও একই রকম। ছোটখাটো হোটেল, দোকান-পাট, ব্যবসা-প্রতিষ্ঠান ইত্যাদি বলতে গেলে লাঠে উঠেছে অনেক আগেই। পুঁজি বা অর্থাভাবে এগুলো নতুন করে সচল করা সম্ভব হচ্ছে না। ক্ষুদ্র-মাঝারি শিল্প ও উদ্যোগের বিপর্যয়ে লাখ লাখ শ্রমিক-কর্মী কর্ম হারিয়ে বেকারে পরিণত হয়েছে।

জিডিপিতে ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প খাতের অবদান ২৫ শতাংশ। দেশের মোট কর্মসংস্থানের ৯০ শতাংশই এখাতে। কাজেই, এ খাতের প্রতিষ্ঠান বন্ধ হয়ে গেলে, উদ্যোক্তারা অন্যত্র চলে গেলে এবং শ্রমিক-কর্মীরা বেকার হয়ে পড়লে জিডিপিতে এর অবদানই কমবে না, কর্মসংস্থানের সম্ভাবনাও হ্রাস পাবে। ওয়াকিবহাল মহলের অজানা নেই, গুটিকয়েক উন্নত অর্থনীতির দেশের কথা বাদ দিলে সব দেশের অর্থনীতিতেই ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পের অবদান বেশি। অনেক দেশে এটা অর্থনীতির চালিকাশক্তি হিসেবে বিবেচিত। সব দেশই প্রয়োজনীয় ও জরুরি পণ্যের প্রাপ্তি ও কর্মসংস্থানের অধিকতর সুবিধায় এই খাতকে সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার দিয়ে থাকে। আমাদের দেশে কেন এত অবহেলা, তার কোনো জবাব নেই। বিদ্যমান পরিস্থিতির উত্তরণ এবং আগামীর প্রয়োজনে ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পের দুর্গতি বিনাশে এখনই যথাযথ উদ্যোগ নিতে হবে। চলমান সমস্যাগুলোর দ্রম্নত সুরাহা করতে হবে। এ খাতে পর্যাপ্ত অর্থায়ন ও অধিকতর সুযোগ-সুবিধা নিশ্চিত করতে হবে। ক্ষুদ্র-মাঝারি শিল্পের সুরক্ষা ও বিকাশে আমাদের দেশের সরকারপ্রধানসহ সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে। ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প উদ্যোক্তাদের রক্ষা করতে পারলে একদিকে দেশ অর্থনৈতিকভাবে সচ্ছল হবে অন্যদিকে দেশের বেকারত্বের হারও হ্রাস পাবে।

ওসমান গনি

ঢাকা

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

আরও খবর

সকল ফিচার

ক্যাম্পাস
তারার মেলা
সাহিত্য
সুস্বাস্থ্য
বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি
জেজেডি ফ্রেন্ডস ফোরাম
নন্দিনী
আইন ও বিচার
হাট্টি মা টিম টিম
কৃষি ও সম্ভাবনা
রঙ বেরঙ

Copyright JaiJaiDin ©2022

Design and developed by Orangebd


উপরে