সেই কাদের মির্জা বিপুল ভোটে জয়ী

কাদের মির্জা পেয়েছেন ১০ হাজার ৭৩৮ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপির প্রার্থী কামাল উদ্দিন চৌধুরী পেয়েছেন এক হাজার ৭৭৮ ভাট
সেই কাদের মির্জা বিপুল ভোটে জয়ী
আব্দুল কাদের মির্জা

বহুল আলোচিত নোয়াখালীর বসুরহাট পৌরসভা নির্বাচনে আওয়ামী লীগ প্রার্থী আবদুল কাদের মির্জা মেয়র নির্বাচিত হয়েছেন। কাদের মির্জা পেয়েছেন ১০ হাজার ৭৩৮ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপির প্রার্থী কামাল উদ্দিন চৌধুরী পেয়েছেন এক হাজার ৭৭৮ ভাট। অন্যদিকে জামায়াতে ইসলামীর প্রার্থী মোশারফ হোসেন মোবাইল প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন এক হাজার ৪৫১ ভোট। উৎসবমুখর পরিবেশে প্রথমবারের মতো ইভিএম পদ্ধতিতে ভোটাররা তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করেন। সহিংসতা, সংঘাতের সমস্ত জল্পনা-কল্পনাকে পাশ কাটিয়ে শান্তিপূর্ণ নির্বাচন হওয়ায় সব দলের প্রার্থীরা খুশি।

এদিকে ফলাফল ঘোষণার পরপরই আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী আবদুল কাদের মির্জা সমর্থক ও নেতাকর্মীরা বসুরহাট রূপালী চত্বরে তাৎক্ষণিক বিজয় সমাবেশ করেন। সেখানে তিনি বক্তব্যে প্রশাসন, নির্বাচন কমিশন, সব আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী,

গণমাধ্যমকর্মী, দলীয় নেতাকর্মী, বিভিন্ন রাজনৈতিক দল এবং প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীসহ সবার প্রতি কৃতজ্ঞতা জানান।

এ সময় কাদের মির্জা বলেন, আজকের এই বিজয় অন্যায়-অবিচার জুলুমের বিরুদ্ধে ন্যায় প্রতিষ্ঠার বিজয়, বাঙালি জাতির স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শের বিজয়, এই বিজয় জননেত্রী শেখ হাসিনার উন্নয়নের বিজয়, এই বিজয় জননেতা ওবায়দুল কাদেরের উন্নয়নের বিজয়। এ সময় তিনি সারাদেশে দলের ত্যাগী নেতাকর্মীদের প্রতি বিজয়কে উৎসর্গের ঘোষণা দেন। তিনি বলেন, আমি আমৃতু্য অন্যায়-অবিচার, অপরাজনীতির বিরুদ্ধে কথা বলে যাব। যেসব ওয়াদা আপনাদের কাছে করেছি, জীবনের শেষ রক্তবিন্দু দিয়ে হলেও সেটা পূরণ করব।

এর আগে সকাল ৮টা থেকে শুরু হয়ে শান্তিপূর্ণভাবে ভোটগ্রহণ চলে বিকাল ৪টা পর্যন্ত। ভোটার উপস্থিতি ছিল চোখে পড়ার মতো। বিশেষ করে নারী ভোটারদের স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণে জমে উঠে এবারের বসুরহাটের পৌর নির্বাচন।

নির্বাচনের শান্তিপূর্ণ পরিবেশ বজায় রাখতে মাঠে ছিল পুলিশ,র্ যাব, বিজিবি ও আনসারের ৪০০ সদস্য।র্ যাবের তিনটি টিম, বিজিবি চার পস্নাটুন, পুলিশের মোবাইল টিম ৯টি, স্ট্রাইকিং টিম দুটি, নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ৯ জন এবং জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট একজন।

নোয়াখালী বসুরহাট পৌরসভা নির্বাচনে প্রধান দুই দলের প্রার্থীসহ মেয়রপ্রার্থী তিনজন, কাউন্সিলর ২৫ এবং সংরক্ষিত নারী প্রার্থী সাতজন। ১৯৯০ সালে প্রতিষ্ঠিত বসুরহাট পৌরসভা নির্বাচনে মোট ভোটার ২১ হাজার ১১৫ জন, নারী ভোটার ১০ হাজার ৪৯৪ জন এবং পুরুষ ১০ হাজার ৬২১ জন।

পৌর নির্বাচনে মেয়রপদে আওয়ামী লীগের প্রার্থী ছিলেন আবদুল কাদের মির্জা, বিএনপির প্রার্থী কামাল উদ্দিন চৌধুরী ও জামায়াতে ইসলামি থেকে মোশারফ হোসেন।

উলেস্নখ্য, বসুরহাট পৌরসভার মেয়রপদে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের ছোট ভাই আবদুল কাদের মির্জা ইতোমধ্যে তার বিভিন্ন পথসভা, কর্মিসভায় হাফ ডজন জেলা ও কেন্দ্রীয় নেতাদের নিয়ে মন্তব্য ও সমালোচনা করে দেশের রাজনীতিতে আলোচনার কেন্দ্রে পরিণত হন।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

আরও খবর

Copyright JaiJaiDin ©2021

Design and developed by Orangebd


উপরে