প্রথম দিনের তালিকায় ঢামেক পরিচালকও

প্রথম দিনের তালিকায় ঢামেক পরিচালকও

নভেল করোনাভাইরাস মোকাবিলায় প্রতিরোধে টিকা দেওয়ার জন্য প্রস্তুত ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল (ঢামেক)। হাসপাতালের জরুরি বিভাগের নিচতলা (আন্ডারগ্রাউন্ড) প্রস্তুত রাখা হয়েছে। সেখানেই অগ্রাধিকারপ্রাপ্ত স্বাস্থ্যকর্মীদের টিকা দেওয়া হবে ২৮ জানুয়ারি।

মূলত এই দিন যারা টিকা নেবেন তাদেরকে সরকারি সিদ্ধান্তে পরীক্ষামূলক ভ্যাকসিন প্রয়োগ করা হবে এবং তাদেরকে নজরদারির মধ্যে রাখা হবে। ভ্যাকসিন গ্রহীতাদের ফলাফলের ওপর পরবর্তীতে দেশব্যাপী টিকা কার্যক্রম

শুরু করা হবে। প্রথম দিনের তালিকায় ঢামেক পরিচালক নিজেও

টিকা নেবেন।

উলেস্নখ্য, এর আগে আগামী ২৭ জানুয়ারি কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে এক নার্সকে টিকা দেওয়ার মাধ্যমে টিকা প্রয়োগ কর্মসূচির উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

ঢামেকে পরীক্ষামূলক টিকা কর্মসূচি বাস্তবায়নের জন্য চারটি বুথ প্রস্তুত করা হয়েছে। এছাড়া টিকা নেওয়ার আগে এবং পরে বিশ্রামের জন্য আলাদা বসার জায়গা করা হয়েছে। টিকা নেওয়ার পর সবাইকে বাধ্যতামূলক বিশ্রামে থাকতে হবে। এ সময় কারও শরীরে কোনো রকম সমস্যা দেখা দিলে সাথে সাথে চিকিৎসা দেওয়ার জন্য চিকিৎসক দল প্রস্তুত রাখা হয়েছে। ঢামেকে টিকা গ্রহীতাদের বিশ্রামের জন্য কোনো বেডের ব্যবস্থা করা হয়নি। তবে পর্যাপ্ত পরিমাণ চেয়ারের ব্যবস্থা করা হয়েছে।

ঢামেকের টিকা প্রদানের প্রতিটি বুথে দুজন নার্স এবং চারজন স্বেচ্ছাসেবক দায়িত্ব পালন করবেন। এই হিসেবে চারটি বুথের জন্য আটজন নার্স এবং ১৬ জন স্বেচ্ছাসেবক দায়িত্বে থাকবেন। তারা ২৮ তারিখ ১০০ জনকে টিকা দেবেন। প্রতিটি বুথে ২৫ জনকে টিকা দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে ঢামেক। এজন্য ঢামেকের জরুরি বিভাগের আন্ডারগ্রাউন্ড বিশেষভাবে তৈরি করা হয়েছে। ধুয়ে মুছে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নভাবে প্রস্তুত করে রাখা হয়েছে। মূলত আগে থেকে জরুরি চিকিৎসার জন্য প্রস্তুত করে রাখা হয়েছিল এই জায়গা। সেটি এখন টিকা প্রদানের কাজে ব্যবহার করা হবে।

এই বিষয়ে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল নাজমুল হক বলেন, 'সরকারি সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ২৮ তারিখ টিকা প্রদানের জন্য ঢামেক পুরোপুরি প্রস্তুত। তবে এই সংখ্যা কম বেশি হতে পারে। আর সাধারণত অন্যান্য টিকা দেওয়ার জন্য যে পদ্ধতি বা ব্যবস্থা থাকে এখানেও তাই করা হয়েছে। এখানে শুধু অতিরিক্ত সতর্কতা অবলম্বন করা হচ্ছে।'

তিনি জানান, 'ঢামেকে টিকা দেওয়ার জন্য যে তালিকা তৈরি করা হয়েছে তার মধ্যে হাসপাতালের চিকিৎসক, নার্স, ওয়ার্ডবয়, আনসার সদস্যসহ ডেইলি বেসিকের মাধ্যমে যারা কর্মরত তারা আছেন। এরপর সরকারের পরবর্তী সিদ্ধান্ত অনুযায়ী নতুন সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। সরকারি নির্দেশনা অনুযায়ী সঠিকভাবে করোনা ভ্যাকসিন প্রয়োগ করা হবে। এ নিয়ে একটি কমিটিও করা হয়েছে।'

টিকা সংরক্ষণের জন্য ঢামেকে পর্যাপ্ত ব্যবস্থা আছে। ব্যাপক হারে টিকা প্রদান শুরু হলে একবারে বেশি টিকা না এনে প্রতি সাত দিনের টিকা আনবে কর্তৃপক্ষ সেগুলো ফুরিয়ে গেলে আবার সাত দিনের জন্য আনা হবে।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

আরও খবর

Copyright JaiJaiDin ©2021

Design and developed by Orangebd


উপরে