খালেদার বিদেশযাত্রায় সরকারের 'না'

'প্রচলিত আইনে সুযোগ নেই' হতাশ বিএনপি
খালেদার বিদেশযাত্রায় সরকারের 'না'

দুর্নীতি মামলায় দন্ডিত বিএনপি নেত্রী খালেদা জিয়াকে উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশে নিয়ে যেতে তার পরিবারকে অনুমতি দেয়নি সরকার। আইনমন্ত্রী আনিসুল হক রোববার বলেন, ফৌজদারি কার্যবিধির ৪০১ ধারায় খালেদা জিয়ার সাজা ও দন্ডাদেশ স্থগিত করে যেভাবে তাকে সাময়িক মুক্তি দেওয়া হয়েছিল, তাতে এখন আর তাকে বিদেশে যেতে দেওয়ার সুযোগ নেই।

আইনমন্ত্রীর এ মতামত পাওয়ার পর স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান সাংবাদিকদের বলেন, 'খালেদা জিয়াকে বিদেশ নেওয়ার অনুমতি চেয়ে তার ভাই শামীম ইস্কান্দারের আবেদন মঞ্জুর করা সম্ভব হচ্ছে না। এ সিদ্ধান্তের কথা তাদের এখন জানিয়ে দেওয়া হবে।'

তাহলে কী এ বিষয়ে মানবিক দিকের কথা বিবেচনা করা হচ্ছে না- সাংবাদিকদের এ প্রশ্নের জবাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, 'মানবিক বিষয় দেখব বলেই তো আমরা পাঠিয়েছি যে আইনের কোনো জায়গায় তাকে (এ সুযোগ) দেওয়া যায় কি না আইনের মধ্যে যে সুযোগ নেই সেটা আইন মন্ত্রণালয় থেকে জানিয়েছে। মানবিকতার কথা বিবেচনা করেই প্রধানমন্ত্রী তাকে সাজা স্থগিত রেখে বাসায় চিকিৎসাসেবা গ্রহণের সুযোগ দিয়েছিলেন'

এদিকে রাজধানীর এভারকেয়ার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশে যাওয়ার অনুমতি না মেলায় হতাশা প্রকাশ করেছে বিএনপি। রোববার রাতে হাসপাতালে খালেদা জিয়ার খোঁজ-খবর

নেওয়ার পর সাংবাদিকদের কাছে এ কথা বলেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

অন্যদিকে, খালেদা জিয়ার আইনজীবী খন্দকার মাহবুব হোসেন বলেন, খালেদা জিয়ার বিদেশে চিকিৎসার বিষয়ে আইন মন্ত্রণালয়ের এ মতামত বেআইনি। খালেদা জিয়ার ক্ষেত্রে কোনো অঘটন ঘটে গেলে তার দায় সরকারের।

এর আগে খালেদা জিয়ার ভাই শামীম ইস্কান্দার খালেদা জিয়াকে চিকিৎসার জন্য বিদেশে নিয়ে যেতে সরকারের অনুমতি চেয়ে আবেদন করেছিলেন। তার ওই আবেদন করার পর গত চার দিন ধরে পর্যালোচনা ও দাপ্তরিক বিভিন্ন প্রক্রিয়া শেষে রোববার বিকালে আনুষ্ঠানিকভাবে সরকারের সিদ্ধান্ত জানানো হলো।

খালেদা জিয়াকে বিদেশে নেওয়ার জন্য পাসপোর্ট নবায়নসহ অন্যান্য প্রস্তুতিও এগিয়ে নিচ্ছিল তার পরিবার। দুই মন্ত্রী সরকারের সিদ্ধান্ত জানিয়ে দেওয়ার পর রাত সাড়ে ৯টায় এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত বিএনপি বা খালেদা জিয়ার পরিবারের পক্ষ থেকে তাৎক্ষণিক কোনো প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি।

দুর্নীতির মামলায় দন্ড নিয়ে তিন বছর আগে কারাগারে যেতে হয় সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়াকে। গত বছর মহামারির ?শুরুতে পরিবারের আবেদনে সরকার তার দন্ডের কার্যকারিতা স্থগিত করে সাময়িক মুক্তি দেয়।

সে সময় শর্ত দেওয়া হয়, মুক্ত থাকার সময়ে খালেদা জিয়াকে ঢাকায় নিজের বাসায় থেকে চিকিৎসা নিতে হবে এবং তিনি বিদেশে যেতে পারবেন না।

এরপর থেকে গুলশানের ভাড়া বাসাতেই থাকছিলেন খালেদা জিয়া। করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার পর ২৭ এপ্রিল তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এরপর তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশে পাঠানোর বিষয়টি নতুন করে আলোচনায় আসে।

তার ছোট ভাই শামীম ইস্কান্দার ওই আবেদন নিয়ে ৫ মে রাতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করেন। সেই রাতেই তা আইন মন্ত্রণালয়ে পাঠানোর কথা জানিয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেছিলেন, খালেদা জিয়ার বিদেশে চিকিৎসার প্রয়োজন হলে বিষয়টি 'ইতিবাচক দৃষ্টিতে' বিবেচনা করা হবে।

আইন মন্ত্রণালয়ে যাচাই-বাছাই শেষে পরদিন বিকালে ওই আবেদনের ফাইল আইনমন্ত্রী আনিসুল হকের হাতে যায়। সে সময় তিনি বলেন, খালেদা জিয়ার সাময়িক মুক্তির শর্ত শিথিলের সুযোগ আছে কি না, তা দেখে তিনি দ্রম্নতই সিদ্ধান্ত দেবেন। তিনিও বিষয়টি 'ইতিবাচকভাবে' দেখার কথা বলেছিলেন।

এ নিয়ে দিনভর আলোচনার মধ্যেই ৬ মে খালেদা জিয়ার পাসপোর্ট নবায়নের জন্য আবেদন করা হয়। আবেদন যেহেতু হয়েছে, নবায়নও হয়ে যাবে বলে সেদিন জানিয়েছিলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল।

শুক্র ও শনিবারের সাপ্তাহিক ছুটি পেরিয়ে খালেদার পরিবারের করা আবেদনের ফাইল আইনমন্ত্রীর 'মতামতসহ' স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে পৌঁছায় রোববার সকালে। দুপুরে জানিয়ে দেওয়া হয়, খালেদা জিয়া অনুমতি পাচ্ছেন না।

হতাশ বিএনপি: রাজধানীর এভারকেয়ার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশে যাওয়ার অনুমতি না মেলায় হতাশা প্রকাশ করেছে বিএনপি।

রোববার রাতে হাসপাতালে খালেদা জিয়ার খোঁজ-খবর নেওয়ার পর সাংবাদিকদের কাছে এ কথা বলেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

তিনি বলেন, 'সরকারের এই সিদ্ধান্তে আমরা নিঃসন্দেহে হতাশ। তার (খালেদা জিয়া) এই চিকিৎসা যথেষ্ট নয়। ওয়ান-ইলেভেনের ধারাবাহিকতায় সরকার খালেদা জিয়াকে রাজনীতি থেকে দূরে রাখতে চায়, এই জন্যই এ ধরনের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। প্রতিহিংসামূলক রাজনীতি চরিতার্থ করার জন্যই এ সিদ্ধান্ত।'

বিএনপি মহাসচিব বলেন, 'আইনের মধ্যেই যথেষ্ট পরিমাণ দন্ড মওকুফের সুযোগ রয়েছে। খালেদা জিয়ার জন্য তাদের মানবতা কাজ করেনি, শিষ্টাচার কাজ করেনি। রাজনীতির শিকার হয়েছেন তিনি।' এ সময় বিএনপি চেয়ারপারসনের প্রেস উইং সদস্য শামসুদ্দিন দিদার ও শায়রুল কবির খান উপস্থিত ছিলেন।

'আইন মন্ত্রণালয়ের এ মতামত বেআইনি' : খালেদা জিয়ার আইনজীবী খন্দকার মাহবুব হোসেন বলেছেন, খালেদা জিয়ার বিদেশে চিকিৎসার বিষয়ে আইন মন্ত্রণালয়ের এ মতামত বেআইনি। খালেদা জিয়ার ক্ষেত্রে কোনো অঘটন ঘটে গেলে তার দায় সরকারের।

সরকারের এ সিদ্ধান্তের বিষয়ে জানতে চাইলে খালেদা জিয়ার আইনজীবী খন্দকার মাহবুব হোসেন বলেন, 'এটি সম্পূর্ণ বেআইনি। এ আইনে এমন কোনো বিধান নেই যে, কোনো দন্ডপ্রাপ্ত আসামি বিদেশে যেতে পারবে না। এ আইন করাই হয়েছে দন্ডপ্রাপ্ত আসামিদের জন্য।'

তিনি আরও বলেন, চিকিৎসা শেষে ফিরে আসতে হবে-সরকার এই শর্ত দিতে পারত। খালেদা জিয়া তিন বারের প্রধানমন্ত্রী। তার অবস্থা অত্যন্ত জটিল। সরকার মানবিকভাবে দেখতে পারত।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

আরও খবর

Copyright JaiJaiDin ©2021

Design and developed by Orangebd


উপরে