বিশ্বে কমেছে মৃতু্য বেড়েছে সংক্রমণ

বিশ্বে কমেছে মৃতু্য বেড়েছে সংক্রমণ

কয়েকদিন কম থাকার পর চলমান করোনা মহামারিতে বিশ্বজুড়ে ভাইরাসে নতুন সংক্রমিত রোগীর সংখ্যা আবারও বেড়েছে। তবে আগের দিনের তুলনায় কমেছে দৈনিক মৃতু্য। গত ২৪ ঘণ্টায় সারাবিশ্বে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছে সাড়ে আট হাজারের বেশি মানুষ। আগের একদিনে বিশ্বজুড়ে মৃতু্যর সংখ্যা ছিল সাড়ে ৯ হাজারের বেশি। এদিকে, গত ২৪ ঘণ্টায় ভাইরাসটিতে নতুন করে আক্রান্ত মানুষের সংখ্যা ছাড়িয়েছে তিন লাখ ৭২ হাজার। এতে বিশ্বব্যাপী করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ছাড়িয়েছে ১৭ কোটি ৬৭ লাখের ঘর। অন্যদিকে, মৃতের সংখ্যা ছাড়িয়েছে ৩৮ লাখ ১৮ হাজার। সংবাদসূত্র : এএফপি

সোমবার সকালে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত, মৃতু্য ও সুস্থতার হিসাব রাখা ওয়েবসাইট 'ওয়ার্ল্ডোমিটার' থেকে পাওয়া সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী, গত ২৪ ঘণ্টায় সারাবিশ্বে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছে আট হাজার ৫৬০ জন। অর্থাৎ আগের দিনের তুলনায় মৃতু্য কমেছে প্রায় এক হাজার। এতে বিশ্বজুড়ে মৃতের সংখ্যা পৌঁছেছে

প্রায় ৩৮ লাখ ২১ হাজার।

এ ছাড়া একই সময়ের মধ্যে ভাইরাসটিতে নতুন করে আক্রান্ত হয়েছে তিন লাখ ৭২ হাজার ৫৯৬ জন। অর্থাৎ আগের দিনের তুলনায় নতুন শনাক্ত রোগীর সংখ্যা বেড়েছে ২০ হাজারের বেশি। এতে মহামারির শুরু থেকে ভাইরাসে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৭ কোটি ৬৭ লাখ ৭১ হাজারের বেশি।

করোনাভাইরাসে সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত দেশ যুক্তরাষ্ট্র। দেশটিতে এখন পর্যন্ত তিন কোটি ৪৩ লাখ ২১ হাজার ৯৩ জন করোনায় আক্রান্ত এবং ছয় লাখ ১৫ হাজার ৫৩ মানুষ মারা গেছে। লাতিন আমেরিকার দেশ ব্রাজিল করোনায় আক্রান্তের দিক থেকে তৃতীয় ও মৃতু্যর সংখ্যায় তালিকার দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে। দেশটিতে মোট শনাক্ত রোগী এক কোটি ৭৪ লাখ ১৩ হাজার ৯৯৬ এবং মৃতু্য হয়েছে চার লাখ ৮৭ হাজার ৪৭৬ জনের।

অন্যদিকে, করোনায় আক্রান্তের তালিকায় দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে প্রতিবেশী দেশ ভারত। তবে ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মৃতের সংখ্যার তালিকায় দেশটির অবস্থান তৃতীয়। দেশটিতে সোমবার পর্যন্ত আক্রান্ত হয়েছে দুই কোটি ৯৫ লাখ ১০ হাজারের বেশি এবং মারা গেছে তিন লাখ ৭৪ হাজার ৩০৫ জন।

এ ছাড়া এখন পর্যন্ত ফ্রান্সে ৫৭ লাখ ৪০ হাজার ৬৬৫, রাশিয়ায় ৫২ লাখ আট হাজার ৬৮৭, যুক্তরাজ্যে ৪৫ লাখ ৬৫ হাজার ৮১৩, ইতালিতে ৪২ লাখ ৪৪ হাজার ৮৭২, তুরস্কে ৫৩ লাখ ৩০ হাজার ৪৪৭, স্পেনে ৩৭ লাখ ৩৩ হাজার ৬০০, জার্মানিতে ৩৭ লাখ ২৩ হাজার ২৯৪ এবং মেক্সিকোতে ২৪ লাখ ৫২ হাজার ৪৬৯ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছে।

অন্যদিকে, করোনায় আক্রান্ত হয়ে এখন পর্যন্ত ফ্রান্সে এক লাখ ১০ হাজার ৪২০, রাশিয়ায় এক লাখ ২৬ হাজার ৪৩০, যুক্তরাজ্যে এক লাখ ২৭ হাজার ৯০৪, ইতালিতে এক লাখ ২৭ হাজার দুই, তুরস্কে ৪৮ হাজার ৭২১, স্পেনে ৮০ হাজার ৫০১, জার্মানিতে ৯০ হাজার ৪৭০ ও মেক্সিকোতে দুই লাখ ৩০ হাজার ১৪৮ জন মারা গেছে।

উলেস্নখ্য, ২০১৯ সালের ডিসেম্বরে চীনের উহান শহরের সি-ফুড মার্কেটে প্রথম শনাক্ত হয় প্রাণঘাতী সংক্রামক ভাইরাস 'সার্স-কোভ-২'। যা পরে বিশ্বজুড়ে পরিচিতি পায় 'করোনাভাইরাস' নামে। চীনে করোনায় প্রথম রোগীর মৃতু্য হয় ২০২০ সালের ৯ জানুয়ারি। উহান শহরের প্রথম যে ব্যক্তি এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে যখন মারা যান, চীনের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় তখন বলেছিল, অপরিচিত ধরনের নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন তিনি।

২০২০ সালের ১৩ জানুয়ারি চীনের বাইরে প্রথম করোনা রোগী শনাক্ত হয় থাইল্যান্ডে। তারপর ২০২০ সালের জানুয়ারি থেকে বিশ্বজুড়ে ছড়িয়ে পড়া শুরু করে সার্স-কোভ-২ ভাইরাসটি। এক পর্যায়ে সেই বছরের ফেব্রম্নয়ারিতে করোনাকে মহামারি হিসেবে ঘোষণা করতে বাধ্য হয় বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থা। এখন পর্যন্ত বিশ্বের ২২০টি দেশ ও অঞ্চলে প্রাণঘাতী এই ভাইরাসের বিস্তার ঘটেছে।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

আরও খবর

Copyright JaiJaiDin ©2021

Design and developed by Orangebd


উপরে