সন্দেহে আইএস-কে

আফগানিস্তানের মসজিদ আবারও রক্তাক্ত, হতাহত শতাধিক

আত্মঘাতী তিন বিস্ফোরণ ঘটেছে বিবি ফাতিমা মসজিদে
আফগানিস্তানের মসজিদ আবারও রক্তাক্ত, হতাহত শতাধিক
কান্দাহারে বিস্ফোরণের পর বিবি ফাতিমা মসজিদ পরিষ্কার করছেন মুসলিস্নরা -ইন্টারনেট

ভয়াবহ বোমায় আবারও রক্তাক্ত হলো আফগানিস্তানের মসজিদ। এবার দেশটির কান্দাহারে বিবি ফাতিমা মসজিদে বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেছে। এতে অন্তত ৩৩ জন নিহত এবং ৯০ জন আহত হয়েছেন। জুমার নামাজের সময় মসজিদে বিস্ফোরণের এ ঘটনা ঘটে। মসজিদটি 'ইমাম বারগাহ মসজিদ' নামেও পরিচিত। তবে কী কারণে বিস্ফোরণ ঘটেছে, তা তাৎক্ষণিকভাবে জানা যায়নি। ধারণা করা হচ্ছে, এটি ছিল আত্মঘাতী বোমা হামলা। দেশটির কুন্দুজের একটি শিয়া মসজিদে একই ধরনের বোমা বিস্ফোরণের ঘটনার ঠিক এক সপ্তাহের মাথায় হামলার এ ঘটনা ঘটল। এখনো কেউ ঘটনার দায় স্বীকার করেনি। তবে সন্দেহ করা হচ্ছে ইসলামিক স্টেটের আফগান শাখা আইএস খেরাসানকেই (আইএস-কে)। সংবাদসূত্র : বিবিসি, রয়টার্স, আল-জাজিরা, এএফপি

আন্তর্জাতিক সংবাদ মাধ্যমগুলো জানিয়েছে, বিস্ফোরণের পর মসজিদের ভেতরে জানালার ভাঙা কাচ এবং মাটিতে লাশ পড়ে থাকতে দেখা গেছে। অনেকেই মেঝেতে শুয়ে কাতরাতে থাকা আহতদের সাহায্যে এগিয়ে যান। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া ছবিতে মসজিদের ভেতর অনেক লোককে আপাতদৃষ্টিতে মৃত অথবা রক্তাক্ত শরীরে পড়ে থাকতে দেখা গেছে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা মসজিদের প্রধান ফটকে তিনটি বিস্ফোরণের শব্দ শুনতে পাওয়ার কথা জানিয়েছে। বিস্ফোরণের সময় মসজিদ লোকে লোকারণ্য ছিল। ঘটনাস্থলে অন্তত ১৫টি অ্যাম্বুলেন্স দেখা গেছে। আহতদের স্থানীয় হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে।

কান্দাহারের এক স্থানীয় সাংবাদিক জানান, প্রত্যক্ষদর্শীরা তিন আত্মঘাতী হামলাকারীর হামলা চালানোর বর্ণনা দিয়েছেন। তারা জানান, এক হামলাকারী মসজিদের প্রবেশপথে নিজেকে উড়িয়ে দেয় এবং অন্য আরও দুইজন মসজিদের অজুখানা ও ভেতরে বিস্ফোরণ ঘটায়। এ সময় পুরো এলাকা বিস্ফোরণে কেঁপে ওঠে। মুহূর্তে কালো ধোঁয়ায় ঢেকে যায় এলাকাটি। ঘটনার আকস্মিকতায় চারদিকে হুলুস্থুল পড়ে যায়। বিস্ফোরণের পর ছুটে আসেন আশপাশের এলাকার লোকজন।

নেমাতুলস্না ওয়াফা নামে প্রাদেশিক কাউন্সিলের এক সাবেক সদস্য বলেছেন, তিনি ঘটনাস্থল থেকে অন্তত সাতটি মরদেহ ও আহত ১৩ জনকে সরিয়ে নিতে দেখেছেন। আফগান স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র কারি সায়িদ খোসতি টুইটারে বলেন, 'কান্দাহারে শিয়াদের একটি মসজিদে বিস্ফোরণ ঘটেছে জেনে আমরা খুবই দুঃখিত। সেখানে আমাদের বেশ কয়েকজন স্বদেশী শহীদ ও আহত হয়েছেন।' তিনি আরও বলেছেন, তালেবানের বিশেষ বাহিনী ওই এলাকায় মসজিদটিতে পৌঁছেছে। ঘটনার প্রকৃতি বিবেচনা ও দুষ্কৃতকারীদের বিচারের আওতায় আনা হবে।

তালেবানের মুখপাত্র বিলাল কারিমি জানান, জুমার নামাজের সময় মসজিদে ভিড় অনেক বেশি থাকে। তাই এই ঘটনায় আরও অনেকের মৃতু্যর আশঙ্কা করা হচ্ছে। বিস্ফোরণের তদন্ত চলছে। তবে এর বেশি কিছু বলতে চাননি তালেবানের মুখপাত্র।

এর আগে গত ৮ অক্টোবর জুমার নামাজের সময় কুন্দুজ শহরের শিয়া মসজিদে বোমা হামলায় শতাধিক মানুষ হতাহত হন। পরে জঙ্গিগোষ্ঠী ইসলামিক স্টেট (আইএস) ওই হামলার দায় স্বীকার করেছিল। এবার কান্দাহারের মসজিদে বিস্ফোরণের জন্যও তালেবানের ঘোর বিরোধী ইসলামিক স্টেটের আফগান শাখা আইএস খেরাসানকেই (আইএস-কে) সন্দেহ করা হচ্ছে।

আইএস-কে গোষ্ঠীর সুন্নি যোদ্ধারা অতীতে বারবারই শিয়া সংখ্যালঘুদের নিশানা করে হামলা চালিয়েছে। আত্মঘাতী হামলা চালিয়েছে মসজিদে, স্পোর্টস ক্লাবে ও স্কুলেও। সাম্প্রতিক সপ্তাহগুলোতে তারা তালেবানের বিরুদ্ধে হামলার মাত্রা বাড়িয়েছে।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

আরও খবর

সকল ফিচার

রঙ বেরঙ
উনিশ বিশ
জেজেডি ফ্রেন্ডস ফোরাম
নন্দিনী
আইন ও বিচার
ক্যাম্পাস
হাট্টি মা টিম টিম
তারার মেলা
সাহিত্য
সুস্বাস্থ্য
কৃষি ও সম্ভাবনা
বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি

Copyright JaiJaiDin ©2021

Design and developed by Orangebd


উপরে