শনিবার, ২৬ নভেম্বর ২০২২, ১১ অগ্রহায়ণ ১৪২৯
তদন্ত কমিটি গঠন

বাস উল্টে একই পরিবারের তিনজনসহ নিহত ৬

নিহতদের পরিবার পাবে ২০ হাজার টাকা ঝিনাইদহে নারীর মৃতু্য
ম স্টাফ রিপোর্টার, টাঙ্গাইল ও ঝিনাইদহ প্রতিনিধি
  ০৭ অক্টোবর ২০২২, ০০:০০
বঙ্গবন্ধু সেতু-ঢাকা মহাসড়কের পূর্বপ্রান্তে সেতুর কাছে উত্তরাঞ্চল থেকে ছেড়ে আসা একতা পরিবহণের একটি বাস নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে উল্টে উল্টো লেনে পড়েছে। এ সময় বাসটি একটি মাইক্রোবাসের ওপর ওঠে যায়। এতে ছয়জন নিহত এবং অন্তত ৪০ জন আহত হয়েছেন। বৃহস্পতিবার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্ব রেলস্টেশনের কাছে এ দুর্ঘটনা ঘটে। তাৎক্ষণিকভাবে নিহতদের মধ্যে পাঁচজনের পরিচয় পাওয়া গেছে। তারা হলেন কুষ্টিয়া ফার্টিলাইজারের বিএডিসি (সার) যুগ্ম পরিচালক পাবনা জেলার জহিরুল ইসলাম (৫০), বগুড়া জেলা সদরের জলসিঁড়িতলার হেলাল উদ্দিনের ছেলে রিফাত আল হাসান (৩৫), রিফাতের মা মালেকা ভানু রুবি (৬৫), নিহত রিফাতের ছেলে সাজিদ হাসান (৭) এবং কুমিলস্না জেলার চান্দিনা উপজেলার কুতুম্বপুর গ্রামের ফজলু মিয়ার ছেলে মাইক্রোবাস চালক দুলাল মিয়া (৪৮)। আহতদের বঙ্গবন্ধু ক্যান্টনমেন্টের সেনাবাহিনী, পুলিশ, বঙ্গবন্ধু সেতুর নিরাপত্তা কর্মী ও ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য বিভিন্ন হাসপাতাল ও ক্লিনিকে পাঠান। এদের মধ্যে পাঁচজনকে টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তারা সবাই নাটোর জেলার বাসিন্দা। তারা হলেন নাটোর সদর উপজেলার অর্জুনপুর গ্রামের পারভেজ (২৭), একই উপজেলার গৌরীপুর গ্রামের সিদ্দিক হোসেনের ছেলে জাকির হোসেন (৩০), একই এলাকার মাঠনগর গ্রামের তোফাজ্জল হোসেনের ছেলে মনিরুজ্জামান (২১), নলডাঙ্গা উপজেলার পীরগাছা গ্রামের বাবু মিয়ার ছেলে উৎসব (১৭) এবং একই এলাকার মালা বেগম (২৫)। এর মধ্যে মালা বেগম মস্তিষ্কে গুরুতর আঘাতপ্রাপ্ত হওয়ায় তাকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়েছে। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, উত্তরবঙ্গ থেকে ছেড়ে আসা একতা প?রিবহ?ণের এক?টি বাস বঙ্গবন্ধু সেতু পার হওয়ার পরই ব্রেক ফেল করে। এমতাবস্থায় বাস?টি নিয়ন্ত্রণ হা?রি?য়ে ঢাকাগামী লেন থে?কে উল্টে উত্তরবঙ্গগামী লে?নে গি?য়ে এক?টি মাইক্রোবা?সের (ঢাকা মেট্রো-চ-১৯-৩৫৯১) ওপর ওঠে প?ড়ে। এতে মাইক্রোবাসটি দুমরে-মুচড়ে যায়। মাইক্রোবাসে থাকা একই পরিবারের মা-ছেলে ও নাতি এবং চালকসহ দুই গাড়ির ছয় যাত্রীর মৃতু্য এবং অন্তত ৪০ জন আহত হন। এরই মধ্যে মাইক্রোবাসের চালক ও একই পরিবারের দুইজন ঘটনাস্থলে নিহত হন। অপর তিন যাত্রী টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে নেওয়ার পর মারা যান। একতা পরিবহণের যাত্রী নাটোর সদর উপজেলার জাকির হোসেন দুর্ঘটনার লোমহর্ষক বর্ণনা দিয়ে জানান, তিনি ঢাকা যাওয়ার জন্য একতা পরিবহণের গাড়িতে উঠেছিলেন। গাড়িটি টোলপস্নাজা পাড় হয়ে বঙ্গবন্ধু সেতুর পূর্বপ্রান্তের গোলচত্বরে এলে তিনি বুঝতে পারেন- চালক গাড়িটি নিয়ন্ত্রণে রাখার চেষ্টা করছেন। তখন গাড়িটি এদিক-সেদিক অর্থাৎ ডান-বাম করছিল। হঠাৎ চালক গাড়িটি ডান পাশের লেনে ধাক্কা দেয়। তারপর তিনি আর কিছু জানেন না। পরে জ্ঞান ফিরে দেখেন তার শরীরে রক্তের দাগ- তাকে হাসপাতালে নেওয়া হচ্ছে। অপর আহত একই এলাকার মাঠনগর গ্রামের মনিরুজ্জামান জানান, তিনি গাড়িতে ঘুমিয়ে পড়েছিলেন। টোলপস্নাজায় এলে তার ঘুম ভেঙে যায় এবং তিনি বুঝতে পারেন চালক গাড়িটি নিয়ন্ত্রণ করতে বার বার নিচের দিকে তাকাচ্ছিলেন। এরপর তার আর কিছু মনে নেই। তাকে হাসপাতালে নেওয়ার পথে তার জ্ঞান ফিরে আসে। এদিকে, এ ঘটনায় নিহত প্রত্যেকের পরিবারকে ২০ হাজার টাকা করে মরদেহ দাফনের জন্য দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন জেলা প্রশাসক ডক্টর মো. আতাউল গণি। তিনি টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আহতদের দেখতে গিয়ে সবার চিকিৎসাসেবা নিশ্চিত করতে সব ধরনের সহযোগিতার আশ্বাস দেন। আহতদের চিকিৎসায় বাইরের ওষুধ বা পরীক্ষা-নিরীক্ষা করার খরচও জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে বহন করা হবে। টাঙ্গাইলের জেলা প্রশাসক ডক্টর মো. আতাউল গণি জানান, দুর্ঘটনার সংবাদ পেয়ে তিনি তাৎক্ষণিকভাবে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। নিহতদের প্রত্যেক পরিবারকে ২০ হাজার টাকা করে দেওয়া হবে। এছাড়া টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি হওয়া আহতদের চিকিৎসা নিশ্চিত করা হয়েছে। চিকিৎসাধীন কারও ওষুধ লাগলে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে তা বাইরে থেকে কিনে দেওয়া হবে। তিনি আরও জানান, দুর্ঘটনার কারণ তদন্তে অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মো. আবুল হাসেমকে প্রধান করে বিআরটিএ, পুলিশ ও হাইওয়ে পুলিশের প্রতিনিধিদের নিয়ে চার সদস্যবিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। টাঙ্গাইলের পুলিশ সুপার সরকার মোহাম্মদ কায়সার জানান, বৃহস্পতিবার দুপুরে বঙ্গবন্ধু সেতুর পূর্বপ্রান্তের গোল চত্বর এলাকায় একটি যাত্রীবাহী বাস উল্টে বিপরীত লেনের একটি মাইক্রোবাসের ওপর গিয়ে পড়ে। এতে মাইক্রোবাসের চালক, নারী ও শিশুসহ চারজন এবং যাত্রীবাহী বাসের দুইজন নিহত হয়েছেন। তাদের মধ্যে ঘটনাস্থলে তিনজন ও হাসপাতালে নেওয়ার পর আরও তিনজনের মৃতু্য হয়। এ ঘটনায় বেশ কয়েকজন আহত হয়েছেন। ঝিনাইদহে নারীর মৃতু্য এদিকে, ঝিনাইদহ প্রতিনিধি জানান, জেলার পাঁচমাইল নামক স্থানে সড়ক দুর্ঘটনায় শিরিন (৫৫) নামের এক নারীর মৃতু্য হয়েছে। বৃহস্পতিবার সকাল ৭টার দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটে। তিনি পোড়াহাটি গ্রামের মৃত মহি বিশ্বাসের স্ত্রী। আরাপপুর হাইওয়ে থানার সহকারী উপ-পরিদর্শক আবুল কালাম আজাদের বরাত দিয়ে তিনি আরও জানান, সকালে গোয়ালপাড়া এলাকায় বোনের বাড়ি থেকে হেঁটে নিজ বাড়িতে ফিরছিলেন শিরিন। পথিমধ্যে পাঁচমাইল নামক স্থানে পৌঁছালে মাগুরা থেকে ঝিনাইদহের দিকে আসা একটি পিকআপ তাকে পেছন দিক থেকে ধাক্কা দিয়ে রাস্তার পাশে উল্টে পড়ে। এতে ঘটনাস্থলেই মারা যান ওই নারী। পিকআপ ভ্যানটিকে আটক করেছে পুলিশ।
  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

উপরে