• বৃহস্পতিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ১১ ফাল্গুন ১৪২৭

বোরহানউদ্দিন পৌর নির্বাচন

হ্যাটট্রিক জয়ে আশাবাদী আ'লীগ, নিষ্ক্রিয় বিএনপি

হ্যাটট্রিক জয়ে আশাবাদী আ'লীগ, নিষ্ক্রিয় বিএনপি

ভোলার বোরহানউদ্দিন পৌরসভার আসন্ন নির্বাচনকে ঘিরে শীত-কুয়াশার মধ্যেও ভোটের পালে শেষ সময়ের প্রচারণায় গরম হাওয়ার রেশ চলছে। মেয়র পদে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী রফিকুল ইসলাম দ্বিতীয় মেয়াদের পর হ্যাটট্রিক জয়ে আশাবাদী। তবে বিএনপি মনোনীত প্রার্থী মনিরুজ্জামান কবির জয়ের ব্যাপারে আশাবাদ ব্যক্ত করলেও প্রচার-প্রচারণা ও দলীয় নেতাকর্মীদের নিষ্ক্রিয় ভূমিকা লক্ষ্যণীয়।

তৃতীয় দফায় বোরহানউদ্দিন পৌর নির্বাচনে মেয়র পদে ৩ জন, সংরক্ষিত কাউন্সিলর পদে ৬ জন ও কাউন্সিলর পদে ৩২ জন প্রার্থী নির্বাচনের মাঠে আছেন। এর মধ্যে মেয়র পদে আওয়ামী লীগের প্রার্থী রফিকুল ইসলাম নৌকা, বিএনপির প্রার্থী মনিরুজ্জামান কবির ধানের শীষ ও জামাত মনোনীত প্রার্থী আব্দুস সালাম নারকেল গাছ প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করছেন। ইতোমধ্যে পৌর ৯ নম্বর ওয়ার্ড থেকে মো. ইউসুফ, ৭ নম্বর ওয়ার্ড থেকে তাজউদ্দিন খান ও ৭, ৮, ৯ নম্বর ওয়ার্ডের সংরক্ষিত কাউন্সিলর পদে খালেদা বেগম বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন। আগামী শনিবার পৌরসভার ১০ হাজার ৭২০ জন ভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন। এর মধ্যে নারী ভোটারের সংখ্যা ৪ হাজার ৫০ ও পুরুষ ৪ হাজার ৩৬০ জন।

শনিবার পর্যন্ত দল মনোনীত একক মেয়রপ্রার্থী, কাউন্সিলর ও সংরক্ষিত আসনের মহিলা কাউন্সিলরদের কুশল বিনিময়, লিফলেট বিতরণ, উঠান বৈঠক ও মাইকিংয়ে উৎসবমুখর ছিল পৌর শহরের অলিগলি। একাধিক ওয়ার্ডে কাউন্সিলর প্রার্থীদের অস্থায়ী নির্বাচনী অফিসে ভোটাররা প্রতিদিনের অগ্রগতির হিসাব-নিকাশ কষছেন। ফেসবুকে তরুণ ভোটাররা তাদের পছন্দের প্রার্থীর পক্ষে নানা প্রচারণা চালাচ্ছেন। পৌর শহরের সব স্থান পোস্টারে ছেয়ে গেছে।

সরেজমিনে দেখা যায়, আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থীর পক্ষে প্রচারণায় দলীয় নেতাকর্মীদের সরব উপস্থিতি। তবে বিএনপি ও এর সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা তাদের প্রার্থীর পক্ষে প্রচারণায় অনেকটাই নিষ্ক্রিয় ভূমিকায়।

নৌকা প্রতীকের প্রার্থী ও বর্তমান মেয়র রফিকুল ইসলাম বলেন, 'গত নির্বাচনে দেওয়া ৮৫ শতাংশ নির্বাচনী ওয়াদা আমি পূরণ করেছি। কোনো কোনো ক্ষেত্রে এর বেশি। জনগণ উন্নয়নের পক্ষে নৌকা প্রতীকে ভোট দিয়ে আমাকে হ্যাটট্রিক জয় উপহার দেবে।'

অন্যদিকে বিএনপির প্রার্থী ও পৌর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মনিরুজ্জামান কবির জানান, অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন হলে জনগণ তাকে নির্বাচিত করবে। সিনিয়র নেতারা মামলা-হামলার ভয়ে প্রকাশ্যে আসছেন না, তবে তারা পরামর্শ দিয়ে সহযোগিতা করছেন।

উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি জসিমউদ্দিন হায়দার জানান, বিএনপি প্রার্থী শুধু জনবিচ্ছিন্ন নয়, তাদের দলের নেতাকর্মী থেকেও বিচ্ছিন্ন। তার পাশে একজন উপজেলা বা পৌর কমিটির নেতাও নেই।

উপজেলা বিএনপির সিনিয়র সহ-সভাপতি আবুল হাসান হাওলাদার জানান, জনগণ ভোট দিতে পারলে তাদের প্রার্থী জয়ী হবে। প্রচারণায় তাদের না থাকা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, এটা তাদের নির্বাচনী কৌশল।

উপজেলা নির্বাচন অফিসার ও সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা মো. শহিদুল্যাহ জানান, নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু, শান্তিপূর্ণ করতে সব ধরনের প্রস্তুতি নেওয়া আছে।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

আরও খবর

Copyright JaiJaiDin ©2021

Design and developed by Orangebd


উপরে