কচুয়ায় জনপ্রিয় হয়ে উঠছে শুকনো বীজতলা

কচুয়ায় জনপ্রিয় হয়ে উঠছে শুকনো বীজতলা

চাঁদপুরের কচুয়া কৃষকরা এখন শুকনো বীজতলা পদ্ধতিতে আবাদে ঝুঁকছেন। এ উপজেলায় এই চাষ ব্যাপক জনপ্রিয়তা পেয়েছে। এই পদ্ধতিতে মাটি প্রস্তুত করে পর্যাপ্ত জৈবসার দিয়ে অঙ্কুরোদমকৃত বীজ মাটিতে ছিটানো, স্বচ্ছ পলিথিন দিয়ে বীজতলা ঢাকা, নেই সেচ এবং সারের ব্যবহার ও চারা তোলাও খুব সহজ। কৃষক পর্যায়ে এই পদ্ধতিতে বসতবাড়িতেও কৃষক চারা উৎপাদন করতে পারে। ফলে কৃষক পর্যায়ে এ শুকনো বীজতলা জনপ্রিয় হয়ে উঠছে। অন্যদিকে সনাতন পদ্ধতির বীজতলার চারা উঠাতে গেলে গুচ্ছ শিকড় ছিড়ে যায় ফলে রোপণের পর গুচ্ছ শিকড় গজাতে অনেক সময় লাগে। তাই বর্তমানে এ উপজেলায় কৃষি কাজে জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে এ পদ্ধতি।

উপজেলার পাড়াগাঁও ও আকিয়ারা গ্রামের কৃষক আলী হোসেন, আরিফুল ইসলাম বলেন, 'আগে তারা পানি সেচ দিয়ে বোরো ধানের বীজতলা তৈরি করতেন। কিন্তু চলতি বছর থেকে শুকনো বীজতলায় চারা উৎপাদন করছেন। এতে বীজ ও চারা উভয়ই নষ্ট হওয়ার সম্ভাবনা কম থাকে। বাড়তি কোনো সেচও দিতে হয় না বলে খরচ অনেকাংশে কম লাগে।

উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অফিসার কৃষিবিদ মো. জাহাঙ্গীর আলম লিটন বলেন, কচুয়া উপজেলায় প্রতিটি ইউনিয়নে শুকনো বীজতলা করা হয়েছে। কৃষক পর্যায়ে দ্রম্নত জনপ্রিয় পাচ্ছে এই প্রযুক্তি। অল্প সময়ে রোগবালাই মুক্ত চারা উৎপাদন করে কৃষকরা খুবই খুশি। স্বল্প খরচে এ বীজতলা তৈরি ও চারা তোলাও খুব সহজ। কৃষক পর্যায়ে এই পদ্ধতিতে বসতবাড়িতেও কৃষক চারা উৎপাদন করা সম্ভব। তাছাড়া উপজেলা কৃষি অফিস থেকে নিয়মিত পর্যবেক্ষণ করে কৃষকদের পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

আরও খবর

সকল ফিচার

ক্যাম্পাস
তারার মেলা
সাহিত্য
সুস্বাস্থ্য
বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি
জেজেডি ফ্রেন্ডস ফোরাম
নন্দিনী
আইন ও বিচার
হাট্টি মা টিম টিম
কৃষি ও সম্ভাবনা
রঙ বেরঙ

Copyright JaiJaiDin ©2022

Design and developed by Orangebd


উপরে