logo
রোববার, ২৫ অক্টোবর ২০২০ ১০ কার্তিক ১৪২৭

  মো. আব্দুল ওয়াদুদ, মৌলভীবাজার   ২২ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০০:০০  

মৌলভীবাজার জেলা পরিষদ উপনির্বাচন

মাঠে সক্রিয় আওয়ামী লীগ অনীহা বিএনপি-জামায়াতের

মাঠে সক্রিয় আওয়ামী লীগ অনীহা বিএনপি-জামায়াতের

মৌলভীবাজার জেলা পরিষদ উপনির্বাচনের তারিখ চূড়ান্ত হওয়ায় মাঠে নেমে জোর তৎপরতা চালাচ্ছেন সম্ভাব্যপ্রার্থীরা। জেলার সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ এ পদটি নিজের কবলে নিয়ে আসতে সুদূর রাজধানী ঢাকায় লবিং-তদবিরসহ দলীয় প্রতীক পেতে শেষ মুহূর্তের মতো নির্ঘুম রাত পার করছেন প্রার্থীরা। এ ছাড়াও জেলার সবকটি উপজেলায় ভোটারদের নানাভাবে জানান দিচ্ছেন সম্ভাব্য আওয়ামী লীগ প্রার্থীরা। এ নির্বাচনকে ঘিরে ব্যানার-ফেস্টুন ও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে সরকারি দলের নেতাদের সবচেয়ে বেশি প্রচার করতে দেখা যাচ্ছে জেলাশহরে। দেশের অন্যতম বৃহত্তম দল বিএনপি ও শরিক দল জামায়াতের কেউ এখনো মাঠে নেই বললেই চলে। নির্বাচন কমিশন আগামী ২০ অক্টোবর জেলা পরিষদ নির্বাচনের তারিখ ঘোষণা করেছে। মৌলভীবাজার জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো. আজিজুর রহমান ১৮ আগস্ট করোনায় মারা যাওয়ার পর আওয়ামী লীগ নেতারা ঢাকায় তদবির ও লবিং শুরু করেছেন জোরেশোরে। সে সময় জেলা পরিষদে প্রশাসক নিয়োগ হচ্ছে এমন গুঞ্জন শুরু হয়। ওই পদে সাবেক সমাজকল্যাণমন্ত্রী প্রয়াত সৈয়দ মহসীন আলীর পত্নী ও সাবেক সংসদ সদস্য সৈয়দা সায়রা মহসিন ও জেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক মিছবাহুর রহমানের নাম আসে। পরবর্তীতে পরিষদের ১ নম্বর প্যানেল চেয়ারম্যান তফাদার রিজওয়ানা ইয়াসমিন ৬ সেপ্টেম্বর অস্থায়ী চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পেলে প্রশাসক নিয়োগের গুঞ্জন বন্ধ হয়ে যায়। উপনির্বাচনে সম্ভাব্যপ্রার্থী তালিকায় যাদের নাম শোনা যাচ্ছে তারা হচ্ছেন- সাবেক সংসদ সদস্য ও জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য সৈয়দা সায়েরা মহসীন, আওয়ামী লীগের প্রবীণ নেতা ও জাতীয় পরিষদ সদস্য মো. ফিরুজ, যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের সহসভাপতি ও সাবেক ব্রিটিশ কাউন্সিলর এম এ রহিম (সিআইপি), জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি মুহিবুর রহমান তরফদার, সাধারণ সম্পাদক মিছবাহুর রহমান, সদস্য সাইফুর রহমান বাবুল, সাবেক এআইজি বজলুল করিম, জেলা যুবলীগ সভাপতি নাহিদ আহমদ, সাবেক সাংসদ ও বিকল্পধারার প্রেসিডিয়াম সদস্য এম এম শাহীন, জেলা জাতীয় পার্টির সভাপতি শাহাব উদ্দিন আহমদ, কেন্দ্রীয় জাপা নেতা আহমেদ রিয়াজ ও সাংবাদিক বকসি ইকবাল আহমদ। তবে জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মিজানুর রহমান জানান, এই সরকারের অধীনে বিএনপি উপনির্বাচনে যাবে না এটা তাদের দলীয় ও জোটগত সিদ্ধান্ত। সিদ্ধান্ত ডিঙিয়ে বিএনপির কোনো নেতা যদি নির্বাচনে অংশ নেন, তবে দলীয় সিদ্ধান্ত কেমন হবে- এমন প্রশ্নের জবাবে মিজান বলেন, সেটা পরে দেখা যাবে। জামায়াত নেতাকর্মীরা তাকিয়ে আছেন বিএনপির দিকে। জেলা নির্বাচন অফিসের তথ্যমতে মৌলভীবাজারের ৭টি উপজেলার ৬৭টি ইউনিয়ন, ৫টি পৌরসভা ও ৭টি উপজেলা মিলে ৯৪৩ জন নির্বাচকমন্ডলীর সদস্য (ভোটার) রয়েছেন। চেয়ারম্যান একজন, ১৫ জন সদস্য ও সংরক্ষিত আসনের পাঁচজন নারী সদস্য নিয়ে গঠিত জেলা পরিষদ।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সকল ফিচার

রঙ বেরঙ
উনিশ বিশ
জেজেডি ফ্রেন্ডস ফোরাম
নন্দিনী
আইন ও বিচার
ক্যাম্পাস
হাট্টি মা টিম টিম
তারার মেলা
সাহিত্য
সুস্বাস্থ্য
কৃষি ও সম্ভাবনা
বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি
close

উপরে