একুশ আমার অহংকার

৮৮% শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানই শহীদ মিনারশূন্য

গোয়ালন্দ
৮৮% শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানই শহীদ মিনারশূন্য
রাজবাড়ীর গোয়ালন্দের নাজিরউদ্দীন পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ে শহীদ মিনার

রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলার ৭০টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের মধ্যে ৬২টিতেই অর্থাৎ প্রায় ৮৮ শতাংশ প্রতিষ্ঠানে শহীদ মিনার নেই। স্বাধীনতা, বিজয় ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের মতো গুরুত্বপূর্ণ দিবসগুলোয় স্থানীয় শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা পার্শ্ববর্তী কোনো শহীদ মিনারে গিয়ে পুষ্পমাল্য অর্পণ করেন।

বিষয়টি নিয়ে দীর্ঘদিন আলোচনা-সমালোচনা থাকলেও এ বিষয়ে এতদিনেও কার্যকরী কোনো পদক্ষেপ নেওয়া হয়নি। এ নিয়ে স্থানীয় বাসিন্দাদের মধ্যে ক্ষোভ ও হতাশা রয়েছে।

উপজেলা প্রাথমিক ও মাধ্যমিক শিক্ষা অফিস সূত্রে জানা গেছে, গোয়ালন্দ উপজেলায় ৫টি কলেজের একটিতেও শহীদ মিনার নেই। ১৭টি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের মধ্যে শহীদ মিনার রয়েছে ৫টিতে। বাকি ১২টিতে নেই। এ ছাড়া ৫১টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মধ্যে শহীদ মিনার রয়েছে মাত্র ৬টিতে। বাকি ৪৫টিতে নেই।

এ বিষয়ে স্কুল-কলেজের কয়েকজন শিক্ষক বলেন, অধিকাংশ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শহীদ মিনার না থাকা খুবই দুঃখজনক। সরকারি কামরুল ইসলাম কলেজ, রাবেয়া ইদ্রিস মহিলা কলেজ, শহীদ স্মৃতি সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়সহ উপজেলার বড় বড় বেসরকারি উচ্চ বিদ্যালয়গুলোয় শহীদ মিনার না থাকার পেছনে ওইসব প্রতিষ্ঠান পরিচালনা কর্তৃপক্ষের সদিচ্ছার অভাব রয়েছে বলে মনে করেন তারা। সেখানে অর্থের সংকট থাকার কথা নয়।

এ বিষয়ে গোয়ালন্দ সরকারি কামরুল ইসলাম

কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ আব্দুল হালিম তালুকদার বলেন, কলেজটি বেসরকারি থাকাকালে অর্থ সংকটে শহীদ মিনার করা যায়নি। সরকারি হওয়ার পর এখন আমাদের ইচ্ছেমতো অর্থ ব্যয়ের কোনো সুযোগ নেই।

গোয়ালন্দ উপজেলা পরিষদের নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান মো. মোস্তফা মুন্সি বলেন, আমরা ১৬ ফেব্রম্নয়ারি উপজেলা পরিষদের এক সভায় সিদ্ধান্ত নিয়েছি এলজিএসপি প্রকল্পের মাধ্যমে ২০২২ সালের ২১ ফেব্রম্নয়ারির আগেই উপজেলার সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শহীদ মিনার নির্মাণ করব। বিষয়টি খুবই জরুরি। আরও অনেক আগেই এটা হওয়া দরকার ছিল।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

আরও খবর

Copyright JaiJaiDin ©2021

Design and developed by Orangebd


উপরে