সোনারগাঁওয়ে হেফাজতের তান্ডব :আরও ৩ মামলা

সোনারগাঁওয়ে হেফাজতের তান্ডব :আরও ৩ মামলা

হেফাজতে ইসলামের নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁওয়ে রিসোর্টে নারীসহ মামুনুল হককে ঘেরাওয়ের পর হামলা ও ভাঙচুরের ঘটনায় আরও তিনটি মামলা হয়েছে।

সোনারগাঁও থানার এসআই ইয়াউর রহমান জানান, বৃহস্পতিবার রাতে একটি ও শুক্রবার দুপুরে দুটি মামলা দায়ের করা হয়। এই ঘটনায় এ নিয়ে ছয়টি মামলা হয়েছে, যার দুটিতে হেফাজতে ইসলামের যুগ্ম মহাসচিব মামুনুল হককে আসামি করা হয়েছে।

জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সভাপতি সোহাগ রনির বাবা শাহ জামাল তোতা বাদী হয়ে সোনারগাঁও থানায় একটি মামলা করেন বৃহস্পতিবার রাতে। তাছাড়া সোনারগাঁও উপজেলা যুবলীগ সভাপতি রফিকুল ইসলাম নান্নু ও যুবলীগের প্রচার সম্পাদক নাছির উদ্দিন দুটি মামলা করেন শুক্রবার দুপুরে।

এসআই ইয়াউর রহমান জানান, গত শনিবার (৩ এপ্রিল) রাতে নারায়ণগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সভাপতি সোহাগ রনিকে হত্যার উদ্দেশ্যে হামলা ও ভাঙচুরের অভিযোগে তার বাবা শাহ জামাল তোতার মামলায় সাতজনের নাম উলেস্নখসহ অজ্ঞাত আরও ৩০ থেকে ৪০ জনকে আসামি করা হয়। এই মামলায় হেফাজতে ইসলামের কর্মী খালেদ সাইফুলস্নাহ সাইফ, কাজী সমির ও অহিদকে গ্রেপ্তার করেছে জেলা গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)।

শুক্রবার বিকালে বিভিন্ন এলাকা থেকে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়েছে বলে এসআই ইয়াউর জানান। তিনি বলেন, সোনারগাঁও উপজেলা যুবলীগ সভাপতি রফিকুল ইসলাম নান্নুর বাড়িঘর, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও গাড়ি ভাঙচুরের অভিযোগে ১২০ জনের নাম উলেস্নখসহ অজ্ঞাত আরও ৫০ থেকে ৬০ জনের

\হবিরুদ্ধে শুক্রবার তিনি নিজে মামলা করেছেন।

একই দিনে সোনারগাঁও উপজেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে হামলা ও ভাঙচুরের ঘটনায় সোনারগাঁও যুবলীগের প্রচার সম্পাদক নাছিরউদ্দিন বাদী অপর একটি মামলা দায়ের করেছেন। এ মামলায় ১১০ জনের নাম উলেস্নখসহ অজ্ঞাত আরও ৭০-৮০ জনকে আসামি করা হয়েছে।

নারায়ণগঞ্জের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) মোস্তাফিজুর রহমান জানান, আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে হামলা ও ভাঙচুরের ঘটনায় নাছির উদ্দিনের করা মামলায় মামুনুল হককে প্রধান আসামি করা হয়েছে।

সোনারগাঁও থানার ওসি মো. হাফিজুর রহমান জানান, হেফাজতে ইসলামের সহিংসতার ঘটনায় আরও তিনটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। এ নিয়ে মোট মামলা হলো ছয়টি।

ওসি জানান, এর আগে মামুনুলকান্ডে পুলিশ বাদী হয়ে দুটি ও সাংবাদিককে মারধর ঘটনায় একটি মামলা হয়। ওই তিন মামলায় ৮৩ জনের নাম উলেস্নখসহ অজ্ঞাত পরিচয় আরও ৫০০ থেকে ৬০০ জনকে আসামি করা হয়।

পুলিশের একটি মামলা মামুনুল হককে প্রধান আসামি করা হয়েছে বলেও জানিয়ে ওসি বলেন, এজাহারভুক্ত মোট ১৫ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। অন্যান্য আসামিদের গ্রেপ্তারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

গত ৩ এপ্রিল সোনারগাঁওয়ে রয়েল রিসোর্টের এক রুমে হেফাজতে ইসলামের যুগ্ম মহাসচিব মামুনুল হককে নারীসহ অবরুদ্ধ করে স্থানীয় লোকজন। পরে পুলিশ গিয়ে মামুনুলকে জিজ্ঞাসাবাদের সময় তার অনুসারীরা ওই রিসোর্টে হামলা চালিয়ে ভাঙচুর চালিয়ে তাকে পুলিশের কাছ থেকে ছিনিয়ে নেয়। পরে হেফাজতের নেতাকর্মীরা ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে টায়ার জ্বালিয়ে অগ্নিসংযোগ করে। ভাঙচুর করে শতাধিক যানবাহন। স্থানীয় আওয়ামী লীগ কার্যালয়ও ভাঙচুর করেছে।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

আরও খবর

Copyright JaiJaiDin ©2021

Design and developed by Orangebd


উপরে