সরকার রাষ্ট্রকে দলীয়করণ করেছে :ফখরুল

সরকার রাষ্ট্রকে দলীয়করণ করেছে :ফখরুল
মির্জা ফখরুল

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, সাময়িক বিচারপতি নিয়োগ হয়েছে। দলীয়ভাবে প্রশাসনে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীতে লোক নেওয়া হচ্ছে দলীয় ভিত্তিতে। যেখানে চাকরির জন্য যাবে, সেখানে দলীয় ভিত্তিতে নিয়োগ হচ্ছে। এভাবে পুরো প্রশাসন ও সরকার দলীয়করণ করে ফেলেছে।

সোমবার দুপুরে এক আলোচনা সভায় বিএনপি মহাসচিব এসব কথা বলেন। জাতীয় প্রেসক্লাব মিলনায়তনে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য অবসরপ্রাপ্ত ব্রিগেডিয়ার জেনারেল আ স ম হান্নান শাহের পঞ্চম মৃতু্যবার্ষিকী উপলক্ষে এ আলোচনা সভা হয়। অবসরপ্রাপ্ত ব্রিগেডিয়ার জেনারেল আ স ম হান্নান শাহ স্মৃতি পরিষদ এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।

মির্জা ফখরুল অভিযোগ করে বলেন, ৩৫ লাখ মানুষের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা হয়েছে। দলের ৫ শতাধিক নেতা গুম হয়ে গেছেন, সহস্রাধিক মানুষকে হত্যা করা হয়েছে। এরপরও সরকারের পক্ষ থেকে নির্বাচনের কথা বলে, গণতন্ত্রের কথা বলে। কেউ যেন ভোট দিতে না পারে তা জেনে-শুনেই সেই ব্যবস্থা তৈরি করা হয়েছে। এমন একটা অবস্থা তৈরি করেছে, কেউ কোনো বিচার পাবে না। কোর্টে বিএনপি দেখলেই তার জন্য আলাদা বিচার, আর বিএনপির বাইরে আলাদা বিচার। এটাই হচ্ছে বাস্তবতা।

এ অবস্থা থেকে বেরিয়ে আসতে 'জোটবদ্ধ' আন্দোলনের কোনো বিকল্প নেই উলেস্নখ করে মির্জা ফখরুল বলেন, শুধু বিএনপির জন্য নয় যদি দেশকে বাঁচাতে হয়, জনগণকে যদি অধিকার ফিরিয়ে দিতে হয়, ভোটের অধিকার ফিরিয়ে দিতে হয়, বাঁচার অধিকার, কাজের অধিকারকে যদি ফিরিয়ে দিতে হয় তাহলে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। জোট বাঁধতে হবে, বিভক্তি নয়। নিজেদের মধ্যে ঐক্যকে আরও সুদূঢ় করতে হবে। জনগণকে সঙ্গে নিয়ে অবশ্যই রুখে দাঁড়াতে হবে এবং একটি গণআন্দোলনের মধ্য দিয়ে, গণঅভু্যত্থানের মধ্য দিয়ে এই ভয়াবহ-ফ্যাসিস্ট-দানবীয় সরকারকে পরাজিত করে জনগণের সরকার প্রতিষ্ঠিত করতে হবে-এটাই হোক আজকের দিনের শপথ। সেটাই হবে ব্রিগেডিয়ার জেনারেল আ স ম হান্নান শাহের প্রতি সর্বশ্রেষ্ঠ সম্মান প্রদর্শন।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস বলেন, এই সরকারের পতন ঘটিয়ে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীন যেভাবে যা হবে, ইনশালস্নাহ বিএনপি সেই নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবে। এ সরকারের অধীন কোনো নির্বাচন হবে না। এ সরকারের অধীন কোনো নির্বাচন হতে দেওয়া হবে না। চেষ্টা করলে প্রতিরোধ করা হবে, বাধা দেওয়া হবে। সেই বাধার মুখে সরকার টিকে থাকতে পারবে না। নেতাকর্মীদের প্রস্তুতি নেওয়ার আহ্বান জানান তিনি।

নির্বাচন কমিশন পুনর্গঠন সম্পর্কে মির্জা আব্বাস বলেন, ইদানীং রব উঠেছে, নির্বাচন কমিশন পুনর্গঠন করবেন সার্চ কমিটি দিয়ে। এই সার্চ কমিটির কোনো সাংবিধানিক ভিত্তি নাই।

সংগঠনের আহ্বায়ক বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক ফজলুল হক মিলনের সভাপতিত্বে ও জেলা নেতা মজিবুর রহমান ও সাখাওয়াত হোসেন সবুজের সঞ্চালনায় আলোচনা সভায় দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা কাউন্সিলের সদস্য আমান উলস্নাহ আমান, সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী, যুগ্ম মহাসচিব খায়রুল কবির খোকন, স্বেচ্ছাসেবক দলের সাধারণ সম্পাদক আবদুল কাদির ভুঁইয়া, কৃষক দলের সদস্য সচিব শহিদুল ইসলাম বাবুল, গাজীপুর বিএনপির ডা. রফিকুল ইসলাম বাচ্চু, রাশেদুল হক এবং প্রয়াত হান্নান শাহের ছেলে শাহ রিয়াজুল হান্নান বক্তব্য রাখেন।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

আরও খবর

সকল ফিচার

রঙ বেরঙ
উনিশ বিশ
জেজেডি ফ্রেন্ডস ফোরাম
নন্দিনী
আইন ও বিচার
ক্যাম্পাস
হাট্টি মা টিম টিম
তারার মেলা
সাহিত্য
সুস্বাস্থ্য
কৃষি ও সম্ভাবনা
বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি

Copyright JaiJaiDin ©2021

Design and developed by Orangebd


উপরে