১৪ শিক্ষার্থীর চুল কাটা রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ে আন্দোলনরত ছাত্রের 'বিষপান'

১৪ শিক্ষার্থীর চুল কাটা রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ে আন্দোলনরত ছাত্রের 'বিষপান'

সিরাজগঞ্জের রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের ১৪ শিক্ষার্থীর মাথার চুল কেটে দেওয়ার ঘটনায় অভিযুক্ত শিক্ষিকা ফারহানা ইয়াসমিনের স্থায়ী বহিষ্কার চেয়ে দ্বিতীয় দফায় আমরণ অনশন করছেন শিক্ষার্থীরা। রোববার দুপুর সাড়ে ১২টায় অনশন থেকেই বক্তব্য দেওয়ার সময় প্রকাশ্যে বিষপান করে আত্মহত্যার চেষ্টা করেন শামীম নামে এক শিক্ষার্থী। তিনি সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য ও বাংলাদেশ অধ্যয়ন বিভাগের শিক্ষার্থী।

এর আগে শনিবার রাতে ফেসবুক লাইভে এসে শামীম ঘোষণা দিয়েছিলেন, ওই বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ফারহানা ইয়াসমিন বাতেনকে স্থায়ীভাবে অপসারণ না করার বিষয়ে রোববার বেলা ১২টার মধ্যে কোনো সিদ্ধান্ত কর্তৃপক্ষ না নিলে তিনি অ্যাকাডেমিক ভবনের সামনেই আত্মহত্যা করবেন।

শিক্ষার্থীরা বলেছেন, রোববার দুপুরে অ্যাকাডেমিক ভবনের সামনে অনশনস্থলে শিক্ষক-শিক্ষার্থী আর সাংবাদিকদের ক্যামেরার সামনে হ্যান্ড মাইকে কথা বলতে বলতেই বিষপানের চেষ্টা করেন শামীম।

তার সহপাঠী জাহিদুল ইসলাম সিরাজ বলেন, 'আমাদের দাবি না মানার কারণে শামীম আত্মহত্যার চেষ্টা করেছে।'

এদিকে, ঘটনায় গঠিত তদন্ত কমিটির প্রধান রবীন্দ্র অধ্যয়ন বিভাগের চেয়ারম্যান লায়লা ফেরদৌস হিমেল জানান, তিনিসহ আরও কয়েকজন শিক্ষক ঘটনার সময় কাছাকাছিই ছিলেন। তিনি বলেন, 'আমরাই না শুধু, উপস্থিত যে সাধারণ শিক্ষার্থীরা ছিল, ওরাও খুব আটকে ধরে...বোধহয় ওর সঙ্গেই ছিল জিনিসটা। আমরা ভেবেছিলাম, ও যদি কিছু আনতে যায়, আমরা আটকাব। কিন্তু সম্ভবত ওর পকেটে বা কোথাও ছিল।'

শামীম আসলে কী খেয়েছেন জানতে চাইলে হিমেল বলেন, 'পয়জন ছিল, সম্ভবত। আমি দেখিনি ও কী খেয়েছে, আমি দেখেছি ও মুখে কিছু দিয়েছে।'

তিনি আরও বলেন, 'প্রশাসনিক জায়গা থেকে ওরা আসলে কিছু শুনতে চাচ্ছিল। ভিসি মহোদয় আসেননি, রেজিস্ট্রার এসেছেন, কিন্তু উনি কোনো কথা বলবেন না। তো এই অবস্থায় এই অ্যাটেম্পটা নিল।'

আন্দোলনকারীরা বলছেন, শামীম ঘোষণা দিয়ে রাখায় আগেই অ্যাম্বুলেস এনে রাখা হয়েছিল। সেই অ্যাম্বুলেন্সে করেই তাকে পোতাদিয়ায় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপেস্নক্সে পাঠানো হয়।

এদিকে প্রশাসনিক ভবনের সামনে ওই ঘটনার পর শিক্ষার্থীদের একটি অংশ বেলা সাড়ে ১২টায় সিরাজগঞ্জ পাবনা নগরবাড়ী মহাসড়কের বিসিক মোড় অবরোধ করে বিক্ষোভ শুরু করেন।

তাদের অবরোধের কারণে দুই দিকে দীর্ঘ যানজট সৃষ্টি হয়। গোলযোগ এড়াতে বিপুলসংখ্যক পুলিশ মোতায়েন করা হয় সেখানে।

ঘণ্টাখানেক পর শিক্ষার্থীরা অবরোধ তুলে নিয়ে আবার ক্যাম্পাসে ফিরে গেলে যান চলাচল স্বাভাবিক হতে শুরু করে।

এর আগে রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের ১৪ শিক্ষার্থীর মাথার চুল কেটে দেওয়ার ঘটনায় অভিযুক্ত শিক্ষিকা ফারহানা ইয়াসমিনের স্থায়ী বহিষ্কার চেয়ে শুক্রবার রাত থেকে দ্বিতীয় দফায় আবারও আন্দোলন ও আমরণ অনশনে নামেন শিক্ষার্থীরা। গত শুক্রবার বিকালে অভিযুক্ত শিক্ষিকার বিষয়ে সিন্ডিকেট সভায় কোনো সিদ্ধান্ত না নেওয়ায় দ্বিতীয় দফায় আন্দোলন শুরু করেন শিক্ষার্থীরা।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

আরও খবর

সকল ফিচার

রঙ বেরঙ
উনিশ বিশ
জেজেডি ফ্রেন্ডস ফোরাম
নন্দিনী
আইন ও বিচার
ক্যাম্পাস
হাট্টি মা টিম টিম
তারার মেলা
সাহিত্য
সুস্বাস্থ্য
কৃষি ও সম্ভাবনা
বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি

Copyright JaiJaiDin ©2021

Design and developed by Orangebd


উপরে