শনিবার, ২৬ নভেম্বর ২০২২, ১১ অগ্রহায়ণ ১৪২৯

আওয়ামী লীগ জনবিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে : ফখরুল

ম যাযাদি ডেস্ক
  ০১ অক্টোবর ২০২২, ০০:০০
বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, ২০১৪ সালের মতো নির্বাচন হতে দেওয়া হবে না। জনগণের ভোট ছাড়াই ১৫৪ জন এমপি হয়েছিলেন। বর্তমানে আওয়ামী লীগ জনবিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। তাদের পায়ের তলায় এখন মাটি নেই। শুক্রবার বিকালে বিএনপির জাতীয় স্থায়ী কমিটির অন্যতম সদস্য প্রয়াত নেতা ব্রিগেডিয়ার জেনারেল অবসরপ্রাপ্ত আ স ম হান্নান শাহর ৬ষ্ঠ মৃতু্যবার্ষিকী উপলক্ষে গাজীপুরের কাপাসিয়া উপজেলার ঘাগটিয়া চালা ওয়েলফেয়ার ক্লাব মাঠে আয়োজিত দোয়া ও আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন। হান্নান শাহ্‌ স্মৃতি সংসদের উদ্যোগে আয়োজিত সভায় সভাপতিত্ব করেন সংগঠনের সভাপতি ও গাজীপুর জেলা বিএনপির সভাপতি একেএম ফজলুল হক মিলন। সুষ্ঠু নির্বাচন হলে আওয়ামী লীগ ২৫টির বেশি আসন পাবে না বলে মন্তব্য করে বিএনপি মহাসচিব বলেন, এ কারণেই আওয়ামী লীগ বিভিন্ন কায়দায় বিএনপিকে নির্বাচনের বাইরে রাখার গভীর ষড়যন্ত্র করছে। বিএনপির হাজার হাজার নেতাকর্মীকে নামে মিথ্যা মামলা দায়ের ও গ্রেপ্তার করা হচ্ছে। নেতাকর্মীদের গুম, খুন করে ভয় দেখানো হচ্ছে। ফখরুল বলেন, ২০১৪ সালের মতো নির্বাচন হতে দেওয়া হবে না। জনগণের ভোট ছাড়াই ১৫৪ জন এমপি হয়েছিলেন। বর্তমানে আওয়ামী লীগ জনবিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। তাদের পায়ের তলায় এখন মাটি নেই। তিনি বলেন, 'নির্বাচনের আগেই সংসদ ভেঙে দিয়ে প্রধানমন্ত্রীকে ক্ষমতা ছেড়ে নির্বাচনকালীন সহায়ক সরকারের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তর করতে হবে। সব দলের জন্য সমান সুযোগ সৃষ্টির জন্য লেভেল পেস্নয়িং ফিল্ড তৈরি করতে হবে। আমরা চাই শান্তিপূর্ণ একটি নির্বাচন হোক যেন জনগণ সুষ্ঠুভাবে ভোট দিতে পারেন।' বক্তব্যে রোহিঙ্গা সংকট উত্তরণে জাতীয় ঐক্য গঠনে বিভিন্ন দলের সমন্বয়ে জাতীয় কনভেনশন ডাকার জন্য সরকারের প্রতি আহ্বান জানান ফখরুল। হান্নান শাহ স্মৃতিচারণ করে বিএনপি মহাসচিব বলেন, তিনি ছিলেন একজন সৈনিক। তিনি ছিলেন জাতীয় নেতা। স্বাধীনতা, সার্বভৌমত্ব ও গণতন্ত্র রক্ষায় তিনি জিয়াউর রহমানের সঙ্গে রাজনীতি করেছেন। হান্নান শাহ ঐতিহাসিক ৭ নভেম্বরের শিপাহী বিপস্নবের সময় জিয়ার পাশে দাঁড়িয়েছিলেন। ঠিক তেমনিভাবে ১/১১ সময়ও গণতন্ত্র রক্ষায় কথা বলেছেন। হান্নান শাহ দেশের দুর্যোগে, দলের দুঃসময়ে কান্ডারি ছিলেন। হান্নান শাহ ছিলেন জিয়া পরিবারের বিশ্বস্ত ব্যক্তি ও বিএনপির নেতাকর্মীদের অভিভাবক। তিনি বলেন, ১/১১-এর কঠিন সময়ে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া ও তার পরিবারের পাশে দাঁড়িয়ে হান্নান শাহ বিএনপির তৃণমূল নেতাকর্মীদের সংগঠিত করার কাজে গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করেন। ওই সময়ের সেনাসমর্থিত তত্ত্বাবধায়ক সরকার ও দলের সংস্কারপন্থি অংশের 'কর্মকান্ড ও ষড়যন্ত্র'-এর বিরুদ্ধে গণমাধ্যমের সামনে এসে সাহসী কণ্ঠে কথা বলে দেশ-বিদেশে দলের নেতাকর্মীদের দৃষ্টি কাড়েন তিনি। স্বৈরাচার এরশাদবিরোধী আন্দোলনে হান্নান শাহ বেশ কয়েকবার কারাগারে যান। একইভাবে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলেও তাকে কয়েকবার কারাবাস করতে হয়েছে। ওই সময় তার বিরুদ্ধে ৩০টির বেশি মামলা ছিল। স্মরণসভায় প্রয়াত হান্নান শাহপুত্র শাহ রিয়াজুল হান্নান আবেগাপস্নুত বক্তব্যে বলেন, 'আমার বাবা ছিলেন আমার ও আমার পরিবারের অভিভাবক। বাবা আজ বেঁচে নেই। বাবার অনুপস্থিতিতে আপনারাই আমার অভিভাবক। আপনাদের সহযোগিতায় আমার বাবার অসমাপ্ত কাজ ও স্বপ্ন বাস্তবায়ন করতে প্রস্তুত।'
  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

উপরে