উপরের দিকে ব্যাট করার ইচ্ছা মাহমুদউলস্নাহর

উপরের দিকে ব্যাট করার ইচ্ছা মাহমুদউলস্নাহর
অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে টি২০ সিরিজে ওপেনিংয়ে ব্যাট করতে নামবেন সৌম্য সরকার ও মোহাম্মদ নাঈম শেখ -বিসিবি

অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে টি২০ সিরিজে উপরের দিকে ব্যাট করার ইচ্ছা অধিনায়ক মাহমুদউলস্নাহ রিয়াদের। মাহমুদউলস্নাহর উপরে উঠে আসার চিন্তার পেছনে মিডল অর্ডারে মুশফিকুর রহিমের না থাকাও কাজ করছে। ওয়ানডের মতো টি২০তেও মূলত চারে নামেন মুশফিক। তিনি না থাকায় মিডল অর্ডারের এই ভার পড়ছে অধিনায়ক মাহমুদউলস্নাহর উপরই।

জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে প্রথম টি২০তে তিনে নেমে সফল হননি। ১২ বলে ১৫ রান করে আউট হন। পরের ম্যাচে ৫ নম্বরে নেমে ৬ বলে করেন ৪ রান। শেষ ম্যাচে চারে নেমে ২৮ বলে করেন ৩৪।

জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে সিরিজের আগে ক্যারিয়ারে আর একবারই উপরে নেমেছিলেন মাহমুদউলস্নাহ। ক্যারিয়ারে সবচেয়ে বেশি পাঁচে নেমেছিলেন ৩৪ বার। ৩৩ বার ছয় নম্বরে। ১৭ ম্যাচে সাতে আর এক ম্যাচ খেলেন আটে।

৯২ ম্যাচের টি২০ ক্যারিয়ারে বেশিরভাগ সময়েই লোয়ার মিডল অর্ডারে ব্যাট করতে দেখা গেছে মাহমুদউলস্নাহকে। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে সর্বশেষ সিরিজে তাকে তিন-চারেও নামতে দেখা যায়। অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষেও নিজেকে উপরে উঠিয়ে আনার কথা ভাবছেন বাংলাদেশ অধিনায়ক।

শেষদিকে খেলার জন্য নুরুল হাসান সোহান, আফিফ হোসেন, শামীম পাটোয়ারিরা থাকায় উপরে নামার ভরসা পাচ্ছেন মাহমুদউলস্নাহ, 'আমার মনে হয় সোহান, আফিফ শামীমদের সামর্থ্য আছে ফিনিশ করার। তারা সবাই ভালো ছন্দে আছে। আশা করি এই সিরিজে তারা তাদের প্রতিভা আর স্কিলের প্রতি সুবিচার করতে পারবে। টি২০তে আমি হয়তোবা বেশিরভাগ সময় পাঁচ-ছয়ে ব্যাট করেছি। কিন্তু গত জিম্বাবুয়ে সিরিজে আমি উপরের দিকেও ব্যাট করেছি। সম্ভবত এই সিরিজেও উপরের দিকে ব্যাট করতে হতে পারে। দলের প্রয়োজনে অবদান রাখার চেষ্টা করব,' বলেন তিনি।

দেশসেরা ওপেনার তামিম ইকবালের অনুপস্থিতিতে টাইগারদের ওপেনিংয়ে নতুনত্ব আনা হচ্ছে। সৌম্য সরকার ও মোহাম্মদ নাঈম শেখই ইনিংসের গোড়াপত্তন করবেন বলে ধারণা করা হচ্ছে। বাংলাদেশের ১৭ জনের স্কোয়াডে ওপেনার আছেন কেবল দু'জনই, সৌম্য সরকার ও মোহাম্মদ নাঈম। ম্যাচেও তাই এই দুজনের ওপেন করা নিশ্চিতই।

টি২০তে ওপেনারদের ভূমিকা প্রায় সব সময় একটিই থাকে, দ্রম্নত রান তোলা। পাওয়ার পেস্নর যতটা সম্ভব ফায়দা তোলা। সেই চেষ্টায় উইকেট একটি-দুটি হারালেও পাত্তা দেয় না অনেক দল। তবে খেলা যখন মিরপুরে, সেই বাস্তবতা বদলে যায় অনেক সময়ই।

মিরপুরের উইকেট বেশিরভাগ সময় থাকে মন্থর। বল পিচ পড়ে ব্যাটে আসে ধীরে। বাউন্স থাকে অসমান। শট খেলা হয়ে ওঠে কঠিন। অনেক সময়ই তাই ওপেনারদের প্রতি বার্তা থাকে একটু সাবধানে খেলার।

নতুন বলে মিচেল স্টার্ক, জশ হেইজেলউডদের সামলানোর কাজটি সহজ নয়। তবে অস্ট্রেলিয়ার দুই পেসারকে রয়েসয়ে খেলার কোনো বার্তা নেই সৌম্য সরকার ও মোহাম্মদ নাঈম শেখের প্রতি। বাংলাদেশের দুই ওপেনারকে নিজেদের ইচ্ছেমতো খেলার স্বাধীনতা দিয়েছে টিম ম্যানেজমেন্ট।

অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে সিরিজ শুরুর আগের দিন সংবাদ সম্মেলনে অধিনায়ক মাহমুদউলস্নাহ বললেন, দলের পক্ষে থেকে ওপেনারদের প্রতি কোনো বিধি-নিষেধ নেই, উইকেট পর্যালোচনা করাটা অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ। যে কোনো ফরম্যাটই হোক। বিশেষ করে মিরপুরে। আমাদের ওপেনাররা যে রকম শুরু করে, ফ্রিডম নিয়ে খেলাটা গুরুত্বপূর্ণ। তাদের ফ্রিডম দেওয়াটাও, টিম ম্যানেজমেন্ট থেকে ওভাবেই কথা বলা হয়েছেন যেন তারা ফ্রিডম নিয়ে খেলতে পারে। ওপেনাররা যদি আমাদের ভালো শুরু এনে দিতে পারে, তাহলে আমরা সেখান থেকে এগোতে পারি।'

হুট করেই জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে দলে ফেরানো হয় অভিজ্ঞ এই ক্রিকেটারকে। হারারেতে খেলানো হয় ৮ নম্বর ব্যাটসম্যান হিসেবে। দলের বিপর্যয়ে আটে নেমে করে ফেলেন ক্যারিয়ার সেরা অপরাজিত ১৫০ রান। দেড় বছর পর জিম্বাবুয়ে সফরে টেস্টে ডাক পাওয়া, আটে নেমে সেঞ্চুরির পর নাটকীয়ভাবে অবসর নেওয়া নিয়ে এতদিন কোনো ব্যাখ্যা দেননি মাহমুদউলস্নাহ। অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে সিরিজের আগে বাংলাদেশের গণমাধ্যমের সামনে হাজির হয়ে এবারও রহস্য রেখে দিলেন। জানালেন, বিষয়টি নিয়ে অতি শিগগিরই কথা বলবেন তিনি।

নাটকীয় অবসর নিয়ে সংবাদ মাধ্যম এবং ভক্তরা কোনো ধারণা পেতে পারেন কিনা, জানতে চাওয়া হয়েছিল তার কাছে। ছোট উত্তরে প্রসঙ্গ এড়িয়ে গিয়ে বিষয়টি অতি দ্রম্নত খোলাসা করার ইচ্ছার কথা জানান তিনি, 'প্রথমত আমি একটা জিনিস পরিষ্কারভাবে বলতে চাই। আমি শুধুমাত্র এই সিরিজটা নিয়েই ভাবিত। এই বিষয়ে আপনাদেরকে আমি হয়তো অতি শিগগিরই বিস্তারিত জানাতে পারব।'

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

আরও খবর

Copyright JaiJaiDin ©2021

Design and developed by Orangebd


উপরে