বুধবার, ০৭ ডিসেম্বর ২০২২, ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৯

ঈদের দ্বিতীয় দিনে পর্যটকে মুখরিত কুতুবদিয়ার সমুদ্র সৈকত

শাহেদুল ইসলাম মনির কুতুবদিয়া কক্সবাজার প্রতিনিধি
  ১১ জুলাই ২০২২, ১৭:০৫

পর্যটকের ভিড়ে মুখর হয়ে উঠেছে কক্সবাজার জেলার দ্বীপ কুতুবদিয়ার  সমুদ্রসৈকত। ছবিতোলা, বালিয়াড়িতে হৈ-হুল্লোড়, আড্ডা, ফুটবল খেলা যেন আনন্দের কমতি ছিল না। দীর্ঘ ২২ কিলোমিটার লম্বা বিশাল সমুদ্রের উত্তাল ঢেউয়ের তালে তালে নেচে গেয়ে আনন্দ উৎসবে মেতে ওঠে আগত হাজার হাজার পর্যটক ও দর্শনার্থীরা।

সোমবার (১১ জুলাই) ঈদ উল আজহার দ্বিতীয় দিনে সকাল থেকে এসব দর্শনার্থী ও পর্যটকের আগমন ঘটতে থাকে। কেউ পিকআপ ভ্যান, আবার কেউ মোটরসাইকেল ও অটোরিকশা নিয়ে সৈকতে আসতে থাকে। এদিকে পর্যটকদের নিরাপত্তা নিশ্চিতে সৈকতের বিভিন্ন স্পটে পুলিশের ব্যাপক তৎপরতা লক্ষ্য করা গেছে।  

ঢাকা থেকে আসা পর্যটক রাসেল এবং মুন্নী, কুতুবদিয়া বেড়াতে এসেছি। পরিবেশটা দারুন লেগেছে। বিকেলেই আমরা চলে যাবো।

চট্টগ্রাম থেকে আসা পর্যটন সাকিব বলেন, ১০ বন্ধু মিলে কুতুবদিয়া বেড়াতে এসেছি। অনেক বন্ধুরা ঢাকা থেকে এসেছেন। আমরা তাদের নিয়ে অনেক আনন্দ করছি। সৈকতের প্রতিটা স্পটে আমরা যাচ্ছি। সমুদ্রে গোসল করেছি। বন্ধুদের নিয়ে সৈকতে আড্ডা দেওয়ার মজাটাই আলাদা।

ঈদ উল আজহার দ্বিতীয় দিনে সমুদ্র সৈকতে ঘুরতে যাওয়া কুতুবদিয়া ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি এস.এম সাজ্জাদ বলেন,
ঈদের পর থেকেই সৈকতের জিরো পয়েন্ট থেকে পূর্ব ও পশ্চিমে প্রায় ২২ কিলোমিটারে পর্যটকদের উপচে পড়া ভিড়। অন্যদিকে, দর্শনীয় স্থান বায়ুবিদ্যুৎ কেন্দ্র, বাতি ঘর, সিটিজেন পার্ক, কুতুব আউলিয়া দরবার, ঐতিহ্যবাহী দুই মসজিদ ফকিরা মসজিদ ও কালামার মসজিদ পর্যটকদের পদভারে দিন রাত মুখরিত হয়ে উঠেছে।

কুতুবদিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ ওমর হায়দার জানান,পর্যটকদের সার্বিক নিরাপত্তায়  থানার টহল টিম মাঠে রয়েছে ও বিভিন্ন স্পটে পোশাকে পুলিশের পাশাপাশি সাদা পোশাকে পুলিশ মোতায়েন রয়েছে। পর্যটকরা নির্বিঘ্নে ভ্রমণ করতে পারবেন এবং বাড়তি নজরদারি রয়েছে বলেও জানান তিনি।

 

যাযাদি/ এস

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

উপরে