হরিরামপুরে ধর্মীয় অনুষ্ঠানে বাধা দিয়ে দায়িত্বরত ব্যক্তিকে পিটিয়ে জখম

হরিরামপুরে ধর্মীয় অনুষ্ঠানে বাধা দিয়ে দায়িত্বরত ব্যক্তিকে পিটিয়ে জখম

মানিকগঞ্জের হরিরামপুরে সেবা শ্রমের ধর্মীয় অনুষ্ঠানে বাধা দিয়ে এক দায়িত্বরত ব্যক্তিকে পিটিয়ে জখম করার অভিযোগ উঠেছে এক নারী ও তার ছেলের বিরুদ্ধে।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, উপজেলার কাঞ্চনপুর ইউনিয়নের যগোৎসানন্দ নারায়নী অবধূত মহারজ জীর সেবাশ্রম নামে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের একটি আশ্রম রয়েছে। যেখানে মার্চের ৩ তারিখে শতাব্দী ধরে যাদব গোস্বামী নামে এক গোস্বামীর তিরোধান উপলক্ষে ভাগবত পাঠ, নামকীর্তন, রাধা গোবিন্দভোগ ও ভক্তবৃন্দের সেবার আয়োজন করা হয়।

এবছর সে উপলক্ষে কোভিড-১৯ এর জন্য সরকারি বিধিনিষেধ মেনে, সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে আশ্রমের চারপাশে ও প্রবেশ পথ আলাদা করতে। গতকাল (২ মার্চ) বিকেলে আশ্রমের দেখভালের দায়িত্বরত ভবতুষ হালদারকে সঙ্গে নিয়ে বাঁশের বেড়া দেওয়ার প্রস্তুতি নেন আশ্রমের সভাপতি রবিন্দ্রনাথ সাহা।

এতে ক্ষিপ্ত হয় আশ্রমকে বিভিন্ন ভাবে ব্যবহারকারী ও ভবতুষের প্রতিবেশী আরশেদ আলীর স্ত্রী অভিযুক্ত আম্বিয়া বেগম (৪০) ও তার পুত্র শাকিল হোসেন (২১)। সভাপতি ও দায়িত্ব থাকা সকলকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করতে থাকে।

রবিন্দ্রনাথ সাহা স্থানীয় মেম্বারকে অবহিত করে ডেকে আনতে গেলে অভিযুক্তরা ভবতুষকে একা পেয়ে দেশীয় অস্ত্র দিয়ে মারতে আসলে সে দৌড়ে পালিয়ে তার নিজ ঘরে অবস্থান করে। পরে শাকিল, আম্বিয়া ও অজ্ঞাত নামা কয়েকজন তার ঘরের দরজা ভেঙে ভেতরে ঢুকে বাঁশ ও লোহার সাবল দিয়ে মাথায় ও মুখে আঘাত করে।

পরবর্তীতে ভবতুষের ডাকচিৎকারে আশেপাশের লোকজন এগিয়ে আসলে অভিযুক্তরা পালিয়ে যায় ও সভাপতি বিষয়টি খোঁজ পেয়ে স্থানীয়দের সহায়তায় তাৎক্ষণিক উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করান ও থানায় একটি লিখিত অভিযোগের মাধ্যমে অবহিত করেন।

এ বিষয়ে আশ্রমের সভাপতি রবিন্দ্রনাথ সাহা ও সাধারণ সম্পাদক নৃপেন সূত্রধর জানান, ধর্মীয় অনুষ্ঠানে বাধা দিয়ে আশ্রমের একজনকে এরকম রক্তাক্ত জখম করায় আমরা অনুষ্ঠান নিয়ে বড় উদ্বিগ্নের মধ্যে রয়েছি। এছাড়া প্রশাসনের পক্ষ থেকে এখনো কোন ধরনের ব্যবস্থা না নেওয়ায় তারা হতাশা ব্যক্ত করেছেন ও দোষীদের বিচারের দাবি জানিয়েছেন।

এদিকে আজ বুধবার সকালে অভিযুক্তদের বাড়িতে গেলে ঘরে তালা ঝোলানো অবস্থায় দেখা গিয়েছে এবং তাদের কাউকেই পাওয়া না যাওয়ায় বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি।

এ ব্যাপারে হরিরামপুর থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা(ওসি) মুঈদ চৌধুরী জানান, আমি ঘটনাস্থলে যাচ্ছি। বিস্তারিত দেখে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেয়া হবে।

যাযাদি/ এমডি

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

আরও খবর

Copyright JaiJaiDin ©2021

Design and developed by Orangebd


উপরে