ফরিদপুর রাজেন্দ্র কলেজ ক্যাম্পাসের সীমানা প্রাচীর নির্মাণের প্রশাসনের বাধা

ফরিদপুর রাজেন্দ্র কলেজ ক্যাম্পাসের সীমানা প্রাচীর নির্মাণের প্রশাসনের বাধা

ফরিদপুরের সরকারি রাজেন্দ্র কলেজের দুইটি ক্যাম্পাস। একটি শহর তলীর বায়তুল আমান (অর্নাস ও মাস্টাস) অন্যটি শহরের প্রাণ কেন্দ্র (ঝিলটুলি) ডিগ্রী শাখা এলাকায়।

গত সোমবার কলেজের শহর ক্যাম্পাসের মাঠের পশ্চিম-উত্তর প্রান্ত থেকে সীমানা প্রাচীর নির্মাণের কাজ শুরু করা হয়। মঙ্গলবার সীমানা প্রাচীর নির্মাণের কাজ বন্ধ করে দেন ফরিদপুর সদরের সহকারি কমিশনার (ভূমি) মুহাম্মদ আল আমিন।

অপরদিকে শহরের প্রাণকেন্দ্রে বড় এই মাঠটি প্রাচীর দিয়ে আটকে দেওয়ার পক্ষে নয় ফরিদপুরের সচেতন নাগরিক সমাজ। তারা এ মাঠটি উন্মুক্ত রাখার দাবি জানিয়েছে।

সম্প্রতি কলেজের সীমানা প্রাচির নির্মাণের উদ্যোগ নেয় কলেজ কর্তৃপক্ষ। কিন্তু ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান কলেজ কতৃপক্ষের যোগসাজসে শহরতলীর বায়তুল আমান ক্যাম্পের সীমনা প্রাচিরের কাজটি না করে শহর ক্যাম্পাসে করা উদ্যোগ নেয়। বিষয়টি জেলার সুধিমহল থেকে আপত্তি আসার পর স্থানীয় প্রশাসন গিয়ে নির্মান কাজটি বন্ধ করে দেয়।

ফরিদপুর সরকারি রাজেন্দ্র কলেজে সূত্রে জানা যায়, ১৯১৮ সালে ফরিদপুরর শহরের প্রাণকেন্দ্রে ৫৪ দশমিক এক একর জমির উপর স্থাপিত হয় রাজন্দ্র কলেজ। আগে এ জায়গাটি মেলার মাঠ হিসেবে পরিচিত ছিল। পরবর্তিতে কলেজের কলেবর বেড়ে গেলে শহর থেকে আনুমানিক তিন কিলোমিটার দূরে কলেজের আরেকটি ক্যাম্পাস চালু হয় ১৯৮৩ সালে।

ফরিদপুর রাজেন্দ্র কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর মোশার্রফ আলী বলেন, শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তরের অধিনে রাজেন্দ্র কলেজের দুই ক্যাম্পাসের জন্য টেন্ডার আহবান করে। কিন্তু রায়তুল আমান ক্যাম্পাসের জন্য সীমা প্রাচিরের কার্যাদেশ দেওয়া হয় (আরিফ হোসেন) ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের নামে।

তিনি এক প্রশ্নে জবাবে বলেন, রাজেন্দ্র কলেজের সিমানা প্রাচিরের নির্মাণের শহর ক্যাম্পাসের কোন কার্যাদেশ হয় নি।

প্রফেসর মোশার্রফ আলী আরো বলেন, আমার চাকরির বসয় শেষ পর্যায়ে। আমি চেয়ে ছিলাম শহর ক্যাম্পাসে একটি সীমানা প্রাচির হোক। এই জন্য আরিফ কে দিয়ে কাজটি শুরু করেছিলাম। কিন্তু প্রশাসনের লোক এসে সেটি বন্ধ করে দিয়েছে।

এবিষয়ে ফরিদপুর সচেতন নাগরিক কমিটির (সনাক) সভাপতি শিপ্রা গোস্বামী বলেন, যে ভাবে শহর ক্যাম্পাসে দেওয়াল দেওয়া হবে তাতে কালেজের নিরাপত্তা রক্ষিত হবে না, শুধুমাত্র মাঠটি আটকে দেওয়া হবে। আমরা মনে করি শহরের প্রাণ হচ্ছে এই মাঠটি। অভিভাবকগণ বাচ্চাদের বিকেলে এ মাঠে নিয়ে যান, দম ফেলতে। সীমানা প্রাচির করা হলে শহরবাসীর জন্য দম ফেলার জায়গাটা থাকবে না।

এই বিষয়ে ফরিদপুর সদর উপজেলা নির্বাহি কর্মকর্তা মো. মাসুম রেজা রাজেন্দ্র কলেজের সীমানা প্রাচির নির্মান কাজ প্রসঙ্গে বলেন, কলেজের একটি ক্যাম্পসের কার্যাদেশ দিয়ে তো অন্য ক্যাম্পাসের কাজ করা যাবে না। এটা সরকারি বিধি লঙ্ঘন

করে তিনি ( অধ্যক্ষ) করার চেষ্টা করছিলেন । যে কারণে আমরা বাধা দিয়েছি ।

যাযাদি/ এমডি

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

আরও খবর

Copyright JaiJaiDin ©2021

Design and developed by Orangebd


উপরে