​গাজীপুরে প্রতিমা ভাংচুর, তিন মামলায় গ্রেপ্তার-২০, ১৮জন রিমান্ডে

​গাজীপুরে প্রতিমা ভাংচুর, তিন মামলায়  গ্রেপ্তার-২০, ১৮জন রিমান্ডে

গাজীপুর মহানগরের কাশিমপুর বাজার এলাকায় বৃহস্পতিবার সকালে তিনটি মন্দিরে প্রতিমা ভাংচুর ঘটনায় তিনটি মামলা হয়েছে। এসব মামলায় ২০জনকে গ্রেপ্তারর পর শুক্রবার সকালে ১৮জনের ৭দিনের রিমান্ড চেয়ে আদালতে পাঠানো হয়। আদালত তাদেরকে দুইদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

কাশিমপুর থানার ওসি মো. মাহবুবে খোদা জানান, বৃহস্পতিবার রাতে কাশিমপুর বাজারের শ্রী শ্রী রাধা গোবিন্দ মন্দির পরিচালনা কমিটির সভাপতি ও কাশিমপুর পুজা উদযাপন কমিটির সভাপতি বাবুল রুদ্র, কাশিমপুর পশ্চিমপাড়া এলাকার পারিবারিক মন্দির পরিচালনাকারী সুবল চন্দ্র দাস ও পালপাড়া নামাবাজার এলাকার সার্বজনীন পুজা উদযাপন কমিটির সভাপতি পরিমল পাল বাদি হয়ে ওই মামলা তিনটি করেছেন। প্রতিটি মামলায় অজ্ঞাত ১৫০-২০০জনকে আসামি করা হয়েছে।

দুই মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা কাশিমপুর থানার এসআই মো. তানভীর আহমদ জানান, শুক্রবার সকালে আদালতে গ্রেপ্তারদের মধ্যে ১৮জনের ৭দিনের রিমান্ড আবেদন করলে আদালতের বিচারক তাদের দুইদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। অন্য দুইজনকে ঘটনার দিন আহত অবস্থায় আটক করা হয়েছিল। তারা সুস্থ হলে পরে তাদেরও রিমান্ড চাওয়া হবে।

কাশিমপুর বাজারের পালপাড়া শ্রী শ্রী রাধা গোবিন্দ মন্দির পরিচালনা কমিটির সভাপতি ও কাশিমপুর পুজা উদযাপন কমিটির সভাপতি বাবুল রুদ্র জানান, বৃহস্পতিবার সকালে পূজারীরা মন্দিরে পূজা-অর্চনা করছিলেন। সকাল ৭টার কিছু সময় পরে কিছু বুঝে ওঠার আগেই কয়েক শ’ লোক লাঠিসোটা নিয়ে শ্রী শ্রী রাধা গোবিন্দ মন্দিরে ঢুকে হামলা চালায়। তারা লক্ষী ও অসুরের প্রতিমা ভাংচুর করে চলে যায়। এতে এলাকায় আতঙ্কের সৃষ্টি হয়।

একইদিন সকাল সাড়ে ৬টার দিকে দেড় দুইশ’ লোক কাশিমপুর পশ্চিমপাড়া এলাকার ব্যবসায়ি সুবল দাসের পারিবারিক মন্দিরে এবং স্থানীয় পালপাড়া নামাবাজার সার্বজনীন মন্দিরে হামলা চালায়। এসময় হামলা কারীরা মন্দিরে থাকা সকল প্রতিমা ভাংচুর করে উল্টে ফেলে দেয়। হামলার সময় ২০ হামলকারীকে ধরে পুলিশে হস্তান্তর করা হয়।

এ ঘটনার প্রতিবাদে বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ৯টার দিকে স্থানীয় ও জেলার হিন্দু সম্প্রদায়ের লোকজন গাজীপুর জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সামনে হামলাকারীদের গ্রেপ্তার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবিতে মানববন্ধন ও সমাবেশ করেছেন। খবর পেয়ে গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম, জেলা প্রশাসক এসএম তরিকুল ইসলাম ও গাজীপুর মহানগর পুলিশের উপ-কমিশনার মো. জাকির হাসান (অপরাধ) ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।

যাযাদি/ এস

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

আরও খবর

সকল ফিচার

রঙ বেরঙ
উনিশ বিশ
জেজেডি ফ্রেন্ডস ফোরাম
নন্দিনী
আইন ও বিচার
ক্যাম্পাস
হাট্টি মা টিম টিম
তারার মেলা
সাহিত্য
সুস্বাস্থ্য
কৃষি ও সম্ভাবনা
বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি

Copyright JaiJaiDin ©2021

Design and developed by Orangebd


উপরে