শুক্রবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২২, ১৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৯

চিতলমারীর সেই অহায় শিশুদের মাঝে মানবিক সাহায্য অব্যাহত

চিতলমারী (বাগেরহাট) প্রতিনিধি
  ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১৫:৫০

‘চিতলমারীতে ক্যানসারে মায়ের মৃত্যুতে অসহায় ৪ শিশু’ শিরোনামে দৈনিক যায়য়ায়দিনে সংবাদ প্রকাশিত হলে বিভিন্ন ব্যক্তি ও সংগঠন তাদের মানবিক সাহায্যের জন্য এগিয়ে এসেছে। ওই শিশুদের জন্য সহমর্মীতার হাত বাড়িয়ে দেওয়ায় তাদের মধ্যে আনন্দের বন্যা বইছে। 

জানা গেছে, বাগেরহাটের চিতলমারী উপজেলার রুইয়েরকুল গ্রামের দীন মজুর সুদাস ব্রহ্মের স্ত্রী ঝর্ণা  রানী ৪টি শিশু সন্তান রেখে দেড় মাস আগে ক্যানসারে আক্রান্ত হয়ে মারা যান। তার মৃত্যুর পর ওই চার শিশুর জীবনে নেমে আসে চরম দুর্দশা। দরিদ্র ওই শিশুদের পড়ালেখা বন্ধ হওয়ার পাশাপশি ঠিকমত আহার বন্ধ হয়ে যায়। মানবিক এ বিষয়টি নিয়ে গত ৫ সেপ্টেম্বর দৈনিক যায়য়ায়দিন  পত্রিকাসহ বিভিন্ন  মিডিয়ায় প্রচার হলে দেশের অনেক সংগঠন ও ব্যক্তি তাদের সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন। 

ইতিমধ্যে চিতলমারী উপজেলা নির্বাহী অফিসার সাইয়েদা ফায়জুন্নেছ ওই শিশুদের বাড়িতে গিয়ে খাদ্য সহায়তা দিয়েছেন। তিনি ওই পরিবারের জন্য ঘর তৈরির জন্য ডেউটিনসহ সার্বিক সহযোগীতার আশ্বাস দিয়েছেন। এ সময় সদর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান শেখ নিজাম উদ্দিন সাথে ছিলেন। এছাড়া অনেকে নগত অর্থ দিয়ে মানবিক সাহায্য পাঠিয়েছেন শিশু চারটির জন্য। 

 গত ১৪ সেপ্টেম্বর শনিবার বিকাল ৫ টায় খুলনা পুলিশ লাইন থেকে উইআর বাংলাদেশ (ওয়াব) এর পক্ষ থেকে অসহায় ওই শিশুদের জন্য নতুন পোষাক , একটি গাভী, নগত অর্থ ও মাছ ধরার জাল প্রদান করা হয়। 

এছাড়া আজ শুক্রবার যশোর কোতোয়ালী থানা এলাকা থেকে শেখ লেনিন ও আবু জাফর ওই শিশুদের জন্য রান্না করা খাবার ও নগত অর্থ এবং পোষাক প্রদান করেন। 

এ সময় উইআর বাংলাদেশ (ওয়াব) এর প্রতিষ্ঠাতা এসএম আকবর জানান, ‘মানুষ মানুষের জন্য’ এই স্লোগানকে সামনে রেখে উইআর বাংলাদেশ (ওয়াব) সারাদেশে অসহায় মানুষের সেবায় নিবেদিত ভাবে কাজ করে যাচ্ছে। সিলেটে বন্যার্তদের জন্য সাধ্যমত সাহায্য-সহযোগীতা করেছে সংগঠনটি।এরই ধারাবাহিকতায় পত্রিকার সংবাদ পড়ে ওই শিশুদের দুরবস্থার কথা জানতে পেরে সাহায্যের জন্য ছুটে এসেছেন। ওই শিশুদের পাশে আছেন বলে তিনি অভিমত প্রকাশ করেন। 

এছাড়া চিতলমারী সদর ইউনিয়নের ছাত্রলীগের সভাপতি ফেরদাউস শেখ জানান, ওই শিশুদের করুণ অবস্থা দেখে তিনি নগত ৭ হাজার টাকা পরিবারের হাতে তুলে দিয়েছেন।শিশুদের পাশে দাঁড়ানের জন্য অন্যদের আহবান জানান তিনি। 

এ বিষয়ে সুদাস ব্রহ্ম আবেগাপ্লুত হয়ে সাংবাদিকদের ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, স্ত্রী’র মৃত্যুর পর সন্তানদের নিয়ে তিনি চরম সংকটের মধ্যে দিনপাত করছিলেন। বিষয়টি প্রথমে প্রতিবেশি মাধব ব্রহ্মের মাধ্যমে সাংবাদিকদের জানানো হয়। সাংবাদিকরা যদি এভাবে বিষয়টি গণমাধ্যমে তুলে না ধরত তাহলে হয়তো কোন সাহায্য পেতেন না।তিনি সকলকে ধন্যবাদ ও কৃজ্ঞতা জানিয়েছেন। 
 

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

উপরে