শনিবার, ২৬ নভেম্বর ২০২২, ১১ অগ্রহায়ণ ১৪২৯

জেলা পরিষদ নির্বাচনে সদস্য পদে নকলায় দ্বিমুখী লড়াই

নকলা (শেরপুর) প্রতিনিধি
  ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১৬:২৯

আগামী সোমবার (১৭ অক্টোবর) অনুষ্ঠিতব্য শেরপুর জেলা পরিষদ নির্বাচনে ৩নং সাধারণ আসনে নকলা উপজেলা থেকে সাধারণ সদস্য পদে ৩ জন প্রার্থী নির্বাচনী মাঠ চষে বেড়াচ্ছেন। এদিকে সাধারণ ভোটার বলছেন হবে দ্বিমুখী লড়াই।

সাধারণ সদস্য পদের প্রার্থীরা হলেন, সাবেক জেলা পরিষদ সদস্য মো. ছানোয়ার হোসেন (তালা প্রতিক), উপজেলা আওয়ামী লীগের প্রচার-প্রকাশনা সম্পাদক মো. আব্দুর রশিদ সরকার (টিউবওয়েল প্রতিক) ও মো. মাজহারুল ইসলাম চেরু (হাতি প্রতিক) তালা প্রতিকের প্রার্থী মো. ছানোয়ার হোসেনকে সকাল থেকে গভীর রাত
পর্যন্ত ভোটারদের বাড়িবাড়ি গিয়ে ভোট প্রার্থনা করতে দেখা যায়।

এদিকে টিউবওয়েল প্রতিকের প্রার্থী মো. আব্দুর রশিদ সরকারও থেমে নেই। প্রথমবারের মতন প্রার্থী হয়েছেন তিনি। সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্তও তাকে দেখা যায় ভোটারদের বাড়িবাড়ি গিয়ে ভোট প্রার্থনা করতে। বর্তমানে এ দুজনের গুঞ্জনই শুনা যাচ্ছে উপজেলার ভোটরসহ সর্বসাধারণের মাঝে। অপরদিকে হাতি প্রতিকের
প্রার্থী মো. মাজহারুল ইসলাম বিভিন্ন ইউনিয়নে নিজ নির্বাচনী প্রচার কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন। তবে ভোটারদের মাঝে তেমন কোন উৎসাহ দেখা যাচ্ছে না।

মো. ছানোয়ার হোসেন বলেন, আমি গত মেয়াদে জেলা পরিষদের সদস্য হিসেবে ছিলাম। জনগনের পাশে থেকে সাধ্যমতো সেবা দিতে চেষ্টা করেছি। অতএব ভোটারগন আমাকে ভোট দিয়ে পুনরায় জয়যুক্ত করবেন। আমার পুরাতন নির্বাচনী এলাকার প্রায় প্রতিটি মসজিদ, মাদরাসা ও মন্দিরসহ সকল ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানের উন্নয়নে সামান্য হলেও আমার মাধ্যমে জেলা পরিষদের অনুদান এসেছে।

মো. আব্দুর রশিদ সরকার বলেন, ভোটারগনের চাওয়াকে প্রাধান্য দিতে গিয়েই আমি জেলা পরিষদ নির্বাচনে সদস্য পদে প্রার্থী হয়েছি। আমার দীর্ঘ রাজনৈতিক জীবনে পদ পদবীকে পুঁজি করে কোন দিন কোন প্রকার প্রভাব খাটানোর নজির নেই। আমি জনসেবা করার লক্ষে প্রার্থী হয়েছি। ভোটারদের ধারে ধারে গিয়ে ভোট প্রার্থনা করছি। আমার বিশ্বাস সচেতন ভোটারগন তাদের পবিত্র আমানতের ভোটটি দিয়ে জেলা পরিষদের সদস্য হিসেবে বিপুল ভোটে আমাকে নির্বাচিত করবেন।

মো. মাজহারুল ইসলাম জানান, তিনি দীর্ঘদিন ধরে নির্বাচনী মাঠে আছেন। এর আগে আমি ইউপি নির্বাচনে প্রার্থী হয়ে কিছু ভোটের ব্যবধানে হেরেছি। সকল সচেতন ভোটারগন তাদের সুচিন্তিত সমর্থনের মাধ্যমে যোগ্য প্রার্থী হিসেবে আমাকে নির্বাচিত করবেন বলে আমি আশাবাদী।

জেলা রির্টানিং কর্মকর্তা সূত্রে জানা গেছে, জেলা পরিষদ নির্বাচনে ৩নং সাধারণ আসন নকলায় মোট ভোটার ১৩৩ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ১০২ ও নারী ভোটার ৩১ জন।

যাযাদি/এসএস

 

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

উপরে