বৃহস্পতিবার, ০২ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ১৯ মাঘ ১৪২৯
walton1

ভোলা পলিটেকনিকের সাবেক ছাত্র বেল্লাল বাঁচতে চান

বোরহানউদ্দিন (ভোলা) প্রতিনিধি
  ০৪ নভেম্বর ২০২২, ১০:৩৪
পাশাপাশি অসুস্থ বেল্লালের সাবেক ও বর্তমান ছবি

স্বপ্ন পূরণে বেল্লাল হোসেন ভোলা পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট থেকে সিভিল টেকনোলজি থেকে ডিপ্লোমা শেষে  বাংলাদেশ আইইবিএম ইঞ্জিনিয়ার্স ইন্সটিটিউশনের সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং ভর্তি হয়ে বিএসসি(ইঞ্জিনিয়ারিং) পড়াশোনার পাশাপাশি চাকরির জন্য প্রস্তুতিও নিচ্ছেন। হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়লে ঢাকার একটি হাসপাতালে নিলে তাঁর কোলন ক্যান্সার ধরা পড়ে। এখন কোলন ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে বাসায় পড়ে আছেন মেধাবী ছাত্র বেল্লাল হোসেন।

 

চরফ্যাশন উপজেলার দক্ষিণ আইচার মো. বেল্লাল হোসেন (২৫)। স্বপ্ন দেখতেন লেখাপড়া শেষে চাকরি করে দরিদ্র পরিবারের সচ্ছলতা ফিরিয়ে আনবেন। বাবা-মায়ের মুখে হাসি ফোটাবেন।

 

ভোলা পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ মঞ্জুর মোর্শেদ জানান,২০১৭ সালে বেল্লাল কৃতিত্বের সাথে ডিপ্লোমা পাশ করে। তখনই তাঁর মধ্যে অমিত সম্ভাবনার দ্যুতি দেখা গেছে। তিনি আরও জানান, বেল্লাল হোসেন দক্ষিণ আইচা থানার চরমানিকা ইউনিয়নের ৩ নাম্বর ওয়ার্ডের উত্তর চরমানিকা গ্রামের মো. হাতেম সিকদারের ছেলে। বেল্লালের পাশে কীভাবে দাঁড়ানো যায় নিজস্ব ফোরামে তারা যত দ্রুত সম্ভব আলোচনা করবেন।

 

বেল্লাল হোসেনের পিতা হাতেম সিকদার জানান, ছেলের স্বপ্ন পূরণে অনেক প্রতিকূলতা পাড়ি দিয়ে সংসারের টানাপোড়েন উপেক্ষা করে ছেলেকে পড়াশোনা করাই। ছেলে সংসারের অবস্থা দেখে ভোলা পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটে  পড়াশোনা শেষে আইইবিএম এ ভর্তি হয়ে চাকরির প্রস্তুতি নিচ্ছিল। এরই মধ্যে হঠাৎ গত (৪ এপ্রিল) অসুস্থ হয়ে পড়ে; এরপর ডাক্তার দেখাতে ঢাকার একটি হাসপাতালে নিলে পরীক্ষা-নিরীক্ষায় তার  কোলন ক্যান্সার ধরা পড়ে।

 

দীর্ঘ ৪-৫ মাস চিকিৎসাসেবা শেষে (১৫ অক্টোবর) ফের ডাক্তারের কাছে নিলে ডাক্তাররা জানান, বেল্লালের অবস্থা অবনতি দিকে। দ্রুত ভারতে নিয়ে চিকিৎসা করালে সুস্থ জীবনে ফেরার সম্ভাবনা রয়েছে।

 

কিন্তু চিকিৎসার জন্য কয়েক লাখ টাকার প্রয়োজন। তার পরিবার জমিজমা বিক্রি করে ৮ লাখ টাকা খরচ করেছে। বর্তমানে অর্থহীন এবং চিকিৎসা করার সক্ষমতা নেই তার পরিবারের। ফলে এ সাধারণ পরিবারটির পক্ষে আর চিকিৎসা চালিয়ে যাওয়া সম্ভব হচ্ছে না।

 

তাই মেধাবী ছাত্র বেল্লাল হোসেনকে বাঁচাতে সরকারসহ বিত্তবানদের কাছে সাহায্য চেয়েছেন তাঁর বাবা-মা।

 

 

 

যাযাদি/সাইফুল

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

উপরে